শুকতারা নেচার রিট্রিট রিসোর্ট সিলেট, আল্টিমেট ভ্রমণ গাইড

Shuktara Nature Retreat

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং সবুজ অরণ্যে ভরপুর শুকতারা রিসোর্ট বাংলাদেশের সিলেটের উত্তর-পূর্ব প্রান্তে খাদিম/বুর্জান চা বাগানের পাশে পাহাড়ে অবস্থিত। এই রিসোর্ট (শুকতারা নেচার রিট্রিট রিসোর্ট – Shuktara Nature Retreat Resort ) নামেও পরিচিত। অ্যাডভেঞ্চার প্রেমী এবং প্রিয়জনদের নিয়ে ঘোরার জন্য শুকতারা রিসোর্ট হতে একটি আদর্শ জায়গা। এই রিসোর্টে এলে আপনি আশেপাশের প্রান্তরে সাইকেল চালিয়ে চা বাগান ঘুরে বেড়াতে পারবেন। পাহাড়ের চারপাশে ড্রাগনফ্লাই, প্রজাপতি এবং ফায়ারফ্লাই এর খুনসুটি উপভোগ করতে পারবেন। আপনি চাইলে লাল্লাখালের স্বচ্ছ নীল পানিতে এবং জাফলংয়ের পাই-আইন নদীতে নৌকায় ভ্রমণ করতে পারবেন অথবা সাতার কাটতে পারবেন। তাছাড়া খেলাধুলা করার জন্যও এইখানে বিশেষ ব্যবস্থা রয়েছে। ব্যাডমিন্টন, ফুটবল, ক্রিকেট ইত্যাদি আরও অনেক ধরনের খেলা এইখানে উপভোগ করতে পারবেন। শুকতারা রিসোর্ট এর একটি মজার ব্যাপার হচ্ছে রিসোর্ট এর সমস্ত কাঠামো প্রাকৃতিকভাবে তৈরি এবং স্থানীয় উপকরণ ব্যবহার করে হাতে তৈরি করা হয়েছে। উদাহরণসরুপ এখানে পানি গরম করতে সৌরশক্তি ব্যবহার করা হয়। অতিথিদের জন্য বিনোদনের ব্যবস্থা এবং প্রকৃতি প্রেমীদের সবুজে ঘেরা অরণ্য উপভোগ করার জন্য এইখানে রয়েছে ৭ একরের বেশি জায়গা। এমন প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে  আপনার মন কখনই খারাপ হবে না।

শুকতারা নেচার রিট্রিট রিসোর্ট এর সুযোগ সুবিধা

  • অ্যাকিয়া’ মাল্টি-কুইজিন রেস্টুরেন্টঃ শুকতারায় রিসোর্টে একটি জনপ্রিয় রেস্টুরেন্ট রয়েছে যার নাম অ্যাকিয়া মাল্টি-কুইজিন। এই রেস্টুরেন্টের একটি বিশেষ দিক হচ্ছে এটি একদম খোলা স্থানে তৈরি করা হয়েছে। রেস্টুরেন্টটি এমন অবস্থানে রয়েছে যেখানে আপনি পাহাড়ের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন এবং সেই সাথে আপনার পছন্দের খাবার খেতে পারবেন।
  • লাইব্রেরিঃ বই প্রেমী মানুষদের জন্য এই রিসোর্টে রয়েছে একটি সুন্দর লাইব্রেরি। আপনি চাইলে এই লাইব্রেরি থেকেও একটি সুন্দর সময় কাটাতে পারবেন।
  • পার্টি রুমঃ একটি বিশাল পার্টি রুম রয়েছে। সেইখানে জন্মদিন থেকে শুরু করে সব ধরনের পার্টি আপনি আয়োজন করা সম্ভব।
  • কনফারেন্স রুমঃ সাউন্ড সিস্টেম এবং প্রজেক্টর স্ক্রিন সহ সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ৪০ জন ব্যাক্তির ধারন ক্ষমতা সম্পন্ন একটি কনফারেন্স রুম রয়েছে। যেখানে বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন করা সম্ভব।
  • লিলি গেমস রুমঃ ক্যারাম, ডার্টস, টেবিল টেনিস ইত্যাদি দিয়ে সজ্জিত লিলি গেমস রুম নামে একটি বড় গেমস এরিয়া রয়েছে। যেখানে আপনি বিভিন্ন ধরনের ইনডোর গেমস খেলতে পারবেন।
  • সুইমিংপুলঃ একটি বড় সুইমিংপুল রয়েছে। যেখান সাতার কেটে আনন্দ উপভোগ করতে পারবেন।
  • আরও বেশ কিছু সুবিধার মধ্যে রয়েছেঃ  আমরা যারা শরীরের ফিটনেস এর উপর সচেতন তাদের জন্য জীম করার ব্যবস্থা রয়েছে। সাঝের মায়া নামে একটি বড় ছাদ রয়েছে। যেখান বারবিকিউ পার্টি করার জন্য ব্যবস্থা রয়েছে। রিসোর্ট এর অতিথিদের পাহাড়ের চূড়ায় নিয়ে যাওয়ার জন্য গাইড এর ব্যবস্থা রয়েছে। পুরো রিসোর্টে একটি উচ্চ-গতির ইন্টারনেট ওয়াইফাই সংযোগ দেয়া রয়েছে। অতিথিদের নিয়ে ঘোরার জন্য পিকআপের ব্যবস্থা রয়েছে।
শুকতারা রিসোর্ট
ছবিঃ শুকতারা রিসোর্ট দুই বেডের রুম।

শুকতারা নেচার রিট্রিট রিসোর্ট বুকিং পদ্ধতি

এই রিসোর্টে বুকিং এর জন্য ৩/৪ সপ্তাহ আগে অগ্রিম বুকিং করার পরামর্শ দেওয়া হয় বা অনুরোধ করা হয়। অগ্রিম বুকিং এর জন্য মোট আপনাকে ৫০% টাকা আগে জমা দিতে হবে। বুকিং করার জন্য আপনি দুটি পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন। নিম্ন এই দুটি পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করা হলঃ 

১) প্রথমত বিকাশের মাধ্যমে বুক করতে পারবেন। পারসোনাল ক) ০১৭১১৭৬১৯৫০ খ) ০১৬১১৭৬১৯৫০

২) দ্বিতীয়ত ব্যাংক এর মাধ্যমে বুক করতে পারবেন। মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক (এমটিবি) শাহপরান শাখা, সিলেট-৩১০০। এ/সি শুকতারা নেচার রিট্রিট। টাকা পাঠানোর ব্যাংক নাম্বারঃ  ০৫৯০২১০০০১১০৩

বুকিং করার জন্য ফর্ম এর লিংকঃ শুকতারা নেচার রিট্রিট রিসোর্ট সিলেট।

শুকতারা রিসোর্ট এর বাথরুম
ছবিঃ শুকতারা রিসোর্ট এর বাথরুম

বুকিং বাতিলিকরন

আপনি যদি শুকতারা রিসোর্ট বুকিং করার পর কোন কারনে বুকিং বাতিল করতে চান তাহলে বাতিল করার জন্য চার্জ প্রযোজ্য হবে। নিম্নে বুকিং বাতিল নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলঃ 

  • বুকিং করার পর রিসোর্টে আসার ১ সপ্তাহ আগে যদি রিসোর্টে এর কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন অর্থাৎ বুকিং বাতিল করেন তাহলে ২৫% টাকা আপনার কাছ থেকে কেটে নেয়া হবে।
  • বুকিং করার পর রিসোর্টে আসার ৭২ ঘন্টা আগে যদি বুকিং বাতিল করেন তাহলে আপনার কাছ থেকে ৫০% টাকা কেটে নেয়া হবে।
  • বুকিং করার পর রিসোর্টে আসার ৭২ ঘন্টার পর যদি বুকিং বাতিল করেন তাহলে আপনার কাছ থেকে ১০০% টাকাই রেখে দেয়া হবে। কোন প্রকার টাকা আপনাকে ফেরত প্রদান করা হবে না।

শুকতারা রিসোর্ট এর রুম ভাড়াঃ

শুকতারা রিসোর্ট এর প্রতি রুম এর ভাড়া সর্বনিম্ন ২,৮০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৮,৫০০ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।

পাহাড়ী ভিওঃ শুকতারা রিসোর্ট
বাহিরের ভিও

হিল ভিউঃ

আপনি যদি আপনার রুম থেকে পাহাড়ের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে চান তাহলে এই রুমগুলো  ভাড়া করতে পারেন। 

১) রুমের নামঃ মাধবীলতা, করবী। 

রুমের ধরনঃ লার্জ স্যুট। রুমগুলো ডাবল অকুপেন্সি এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। 

ভাড়াঃ ৮,৫০০ টাকা (প্রতি রুম এর জন্য)।

রুমের নামঃ বরুন, পলাশ, নয়নতারা। 

রুমের ধরনঃ সেমী স্যুট। রুমগুলো ডাবল অকুপেন্সি এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। 

ভাড়াঃ ৭,৮০০ টাকা (প্রতি রুম এর জন্য)।

২) রুমের নামঃ জুঁই, কামিনী।

রুমের ধরনঃ ফ্যামিলি স্যুট। রুমগুলো ডাবল অকুপেন্সি এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। 

ভাড়াঃ ৭,৫০০ টাকা (প্রতি রুম এর জন্য)।

৩) রুমের নামঃ হিজল।

রুমের ধরনঃ স্ট্যান্ডার্ড স্যুট। রুমগুলো ডাবল অকুপেন্সি কিন্তু শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত নয়। 

ভাড়াঃ ৩,৫০০ টাকা (প্রতি রুম এর জন্য)।

ফরেস্ট ভিউঃ আপনি যদি আপনার রুমে থাকার সময়টা আশেপাশের জঙ্গল এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখার সাথে উপভোগ করতে চান তাহলে ফরেস্ট ভিউ এর রুমগুলো আপনার পছন্দ হবে আশা করা যায়।

৪) রুমের নামঃ জোনাকি, প্রজাপতি,শশী, বৈশাখী, গোধূলি এবং রবি।

রুমের ধরনঃ ডিলাক্স। রুমগুলো ট্রিপল অকুপেন্সি এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত।

ভাড়াঃ ৬,৫০০ টাকা (প্রতি রুম এর জন্য)।

৫) রুমের নামঃ উষা এবং আলো।

রুমের ধরনঃ সুপিরিয়র ডিলাক্স। রুমগুলো ডাবল অকুপেন্সি এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। 

ভাড়াঃ ৭,০০০ টাকা (প্রতি রুম এর জন্য)।

৬) রুমের নামঃ কুয়াশা এবং শিশির।

রুমের ধরনঃ ডিলাক্স। রুমগুলো ডাবল অকুপেন্সি এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। 

ভাড়াঃ ৫,৫০০ টাকা (প্রতি রুম এর জন্য)।

৭) রুমের নামঃ প্রভাত এবং পাখি।

রুমের ধরনঃ ইকোনোমি। রুমগুলো ডাবল অকুপেন্সি কিন্তু শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত নয়।

ভাড়াঃ ২,৮০০ টাকা (প্রতি রুম এর জন্য)।

সুইমিংপুল ভিউঃ

আপনি যদি রিসোর্টে এসে সাতার কাটতে আগ্রহী তাহলে আপনি সুইমিংপুল এর পাশে আপনার পছন্দের রুমটি ভাড়া করতে পারেন।

১) রুমের নামঃ ঝর্না। 

রুমের ধরনঃ স্টুডিও স্যুট। রুমগুলো ডাবল অকুপেন্সি এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। 

ভাড়াঃ ৯,০০০ টাকা (প্রতি রুম এর জন্য)।

শুকতারা রিসোর্টে যেভাবে যাবেন

শুকতারা নেচার রিট্রিট রিসোর্ট সিলেট শহরের কেন্দ্র থেকে ৭.৫ কিলোমিটার দূরে তামাবিল  এনটু হাইওয়ের কাছে অবস্থিত। আপনি যদি ঢাকার বাসিন্দা হয়ে থাকেন, তাহলে সবার আগে আপনি সিলেটে আসার উদ্দেশ্যে রওনা দিবেন। তারপর সিলেট থেকে বিভিন্ন মাধ্যমে এই রিসোর্টে চলে আসতে পারেন। নিম্নে সিলেট থেকে শুকতারা রিসোর্টে আসার বিভিন্ন মাধ্যম নিয়ে আলোচনা করা হলঃ 

১) বিমানের মাধ্যমেঃ আপনি চাইলে বিমানের মাধ্যমে এই রিসোর্টে চলে আসতে পারেন। ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সিলেট, এই বিমান বন্দর থেকে এই রিসোর্টে চলে আসতে পারবেন। রিসোর্টটি সিলেটের এই বিমানবন্দর থেকে ২০  কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। আপনার প্রায় ৪০ মিনিট সময় লাগবে বিমানে আসতে।            

২) রেলপথেঃ সিলেট রেলওয়ে স্টেশন থেকে শুকতারা রিসোর্ট এর দুরত্ব প্রায় ৭.৫ কিলোমিটার। রেলপথে এই রিসোর্টে আসতে প্রায় ৩০ মিনিট এর মত সময় লাগবে।

৩)  বাসেঃ ইন্টারসিটি, হুমায়ুন চত্তর বাস টার্মিনাল থেকে শুকতারা রিসোর্ট প্রায় ৮ কি.মি দূরে অবস্থিত। বাসের মাধ্যমে এই রিসোর্টে আসতে  প্রায় ২৫ মিনিট সময় লাগবে। রাত ৮টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত বাসগুলো শুকতারা থেকে প্রায় ৬.৫ কিলোমিটার দূরে সুবহানী ঘাট এলাকায়  যাত্রী নামায়। আপনি বাসে করেও রিসোর্টে চলে আসতে পারেন।

শুকতার রিসোর্ট এর খাবার ব্যবস্থাঃ

এই রিসোর্টে বিভিন্ন ধরনের রেস্টুরেন্ট রয়েছে। মশলাদার এবং সুস্বাদু খাবারের জন্য শুকতারা রিসোর্ট এর এই রেস্টুরেন্টগুলো বেশ জনপ্রিয়। তারা খাবারের গুনগতমান এবং  ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে সচেষ্ট। এখানে খাবার তাজা উপাদান দিয়ে প্রস্তুত করা হয় এবং আশেপাশের এলাকায় উৎপাদিত পণ্য স্থানীয় বাজার থেকে সংগ্রহ করা হয়। এইখানে বিভিন্ন ধরনের বাংলাদেশি খাবার সহকারে মুঘলাই, কন্টিনেন্টা, ইটালিয়ান এবং চাইনিজ খাবারের সুব্যবস্থা রয়েছে। তবে খাবারের মেনু মৌসুম ভিত্তিক পরিবর্তিত হয়। এই সব রেস্টুরেন্ট গুলোতে অতিথিদের স্বাদ এবং স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে খাবার প্রস্তুত করা হয়। যার ফলে রেস্টুরেন্টের শেফ একটি পুষ্টিকর খাবার সরবরাহ করার সব সময় চেষ্টা করে থাকে। তাছাড়া অতিথিরা সিলেট, চট্টগ্রাম এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন উপজাতির প্রাচীন শৈলীতে তৈরি দেশীয় খাবারের স্বাদ গ্রহণ করতে পারবেন।

খাবারের সময়ঃ 

সকালের নাস্তাঃ সকাল ৮টা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত।

দুপুরের খাবারঃ দুপুর ১২.৩০ থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত।

রাতের খাবারঃ সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত।

রাতে শুকতারা রিসোর্ট
রাতে শুকতারা রিসোর্ট

কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্যঃ

  • প্রতিটি রুমে প্রাপ্ত বয়স্ক ২ জন করে থাকতে পারবেন। কিন্তু কোন শিশুর বয়স যদি ৮ বছর এর নিচে হয় তাহলে রুমে ২ জন প্রাপ্ত বয়স্ক ১ জন শিশু থাকতে পারবেন। সর্বমোট ৩ জন।
  •  অতিথিরা রিসোর্টে আসার পর সকালে নাস্তা বুফেটে করতে পারবেন সম্পুর্ন ফ্রিতে।
  • অতিরিক্ত ব্যাক্তি অথবা বেড এর জন্য কিছু পরিমান টাকা দিতে হবে। যেমনঃ হিল ভিউ এবং পুল ভিউ এর রুম গুলোতে অতিরিক্ত ব্যাক্তি/বেড এর জন্য আপনাকে ১,৫০০ টাকা প্রদান করতে হবে। ফরেস্ট ভিউ এর রুম গুলোতে অতিরিক্ত ব্যাক্তি/বেড এর জন্য আপনাকে ১,২০০ টাকা প্রদান করতে হবে। তবে কোন শিশুর বয়স যদি ৪ বছর এর নিচে হয় তাহলে তার জন্য অতিরিক্ত টাকা চার্জ করা হবে না

যেভাবে যোগাযোগ করবেন

দুটি মাধ্যমে শুকতারা রিসোর্টে যোগাযোগ করতে পারবেন। ইমেইল এবং ফোনের মাধ্যমে।

ইমেইলঃ

১) [email protected]

২) [email protected]  

মোবাইল নাম্বারঃ

১) ০১৭৬৪৫৪৩৫৩৫

২) ০১৭৪৫৫০০৭৬৬

৩) ০১৭২১২৫৮৬৩৮

টেলিফোন নাম্বারঃ

১) ০৮২১২৮৭০২৭৯

২) ০৮২১২৮৭০২৮১

শুকতারা নেচার রিট্রিট রিসোর্ট এর ঠিকানা।

শুকতারা নেচার রিট্রিট,

উদ্দিন হিল, শাহপরান উপ শহর,

খাদিমনগর, সিলেট, বাংলাদেশ।

যাবতীয় সুত্রঃ শুকতারা নেচার রিট্রিট রিসোর্ট

Author

Leave a Comment

Your email address will not be published.

You cannot copy content of this page