চুল সিল্কি করার উপায়

চুল সিল্কি করার উপায়, ১৫ দিনে দেখুন ম্যাজিক

সিল্কি চুল হল ঘন, কালো এবং ঝরঝরে চুল। আমাদের সবারই পছন্দ এই ধরনের চুল। আমাদের সবারই ইচ্ছা থাকে এই সিল্কি চুল পাওয়ার। সিল্কি চুল পেতে হলে চুলের অনেক যত্ন নিতে হয়। চুলের ভুল যত্ন, চুলে খারপ রাসায়নিক পদার্থ কিংবা কেমিক্যালের ব্যবহার, অনুকূল পরিবেশে থাকার কারণে আমদের সুন্দর চুল অনেক সময় হয় রুক্ষ। নারীদের সবচেয়ে পছন্দের জিনিস হচ্ছে এই  চুল। আর সেই চুল যদি হয় রুক্ষ তাহলে আমাদের কারো কাছেই এটি ভাল লাগে না। আজকের এই লেখাতে আমরা আলোচনা করবো চুল সিল্কি করার উপায় নিয়ে। তাহলে দেরী না করে চলুন দেখে নেই চুল সিল্কি করার উপায় কি কি।

চুল সিল্কি করার উপায়

সুস্থ চুল মানেই হলো ঘন, নরম এবং চকচকে চুল। সিল্কি চুল আমাদের সকলেরই প্রথম পছন্দ। যদি চুলের সঠিক যত্ন নেয়া না হয় তবে তা শুষ্ক এবং ভঙ্গুর হয়ে যেতে পারে। যখন চুল মাথার ত্বকে নিঃসৃত প্রাকৃতিক তেল থেকে আর্দ্রতা ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়, তখন তা শুষ্ক এবং রুক্ষ হয়ে যায়। নরম এবং সিল্কি চুল পেতে সঠিক জীবনধারা এবং চুলের জন্য আলাদা যত্ন নিতে হয়। সবার চুলের ধরন এক রকম নয়। তাই চুলের ধরন অনুযায়ী চুলের যত্ন নিতে হবে। চুলের ধরন অনুযায়ী শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার কিনতে হবে। কিভাবে চুলের যত্ন নিবে এবং চুল সিল্কি রাখতে হবে সে সম্পর্কে কিছু টিপস দেয়া হলো।

সিল্কি চুল
সিল্কি চুল

শ্যাম্পু

আপনি যদি চুল সিল্কি করার ঘরোয়া পদ্ধতির কথা চিন্তা করেন তাহলে প্রথমেই শ্যাম্পু ব্যবহারে সতর্ক হতে হবে। প্রতিদিন চুলে শ্যাম্পু করা যাবে না। প্রতিদিন চুলে শ্যাম্পু করলে চুল থেকে প্রয়োজনীয় তেল দূর হয়। তাই সপ্তাহে দুই থেকে তিন বার শ্যাম্পু করা উত্তম। আর চুল বেশি তৈলাক্ত হলে ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার করা যেতে পারে। 

কন্ডিশনার ব্যবহার

চুলের যত্নে সবসময় নিয়মিত কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে। কন্ডিশনার শুধুমাত্র চুলের গোঁড়ায় ব্যবহার করতে হবে, মাথার ত্বকে বা আশেপাশে নয়। এটি চুলের আদ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে। এটি সূর্যের আলো থেকে সুরক্ষাও প্রদান করে। তাই ৩ থেকে ৫ মিনিট চুলে কন্ডিশনার লাগিয়ে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলতে হবে। 

তেল ব্যবহার

সপ্তাহে অন্তত একবার তেল ম্যাসাজ করতে হবে। তেল ম্যাসাজ রক্ত সঞ্চালনকে উন্নত করে এবং ফলিকলগুলিতে ভালভাবে পুষ্টি যোগায়। তাই চুলে নিয়মিত তেল ব্যবহার করতে হবে। চুল যদি শুষ্ক  হয় তাহলে শ্যাম্পু করার ১ ঘন্টা আগে চুলে তেল দিতে হবে। সেটা হতে পারে, নারকেল তেল, জলপাই তেল, বাদাম তেল বা আরগান তেল, এর পাশাপাশি তেল দিয়ে মাথার তালু ম্যাসাজ করা যেতে পারে যা মাথার ত্বক এবং চুলের জন্য ভালো।  

হেয়ার মাস্ক

চুলের যত্নে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হল হেয়ার মাস্ক। সপ্তাহে একবার হেয়ার মাস্ক এর ব্যবহার চুলে তেল ধরে রাখতে সাহায্য করতে পারে। গরম পানি দিয়ে চুল ধোয়া ঠিক হবে না,  হয় হালকা গরম জল বা ঠান্ডা জল দিয়ে ধুতে হবে। ঠান্ডা পানি দিয়ে কন্ডিশনার ধুতে হবে।

চুল সিল্কি করার উপায়
চুল সিল্কি করার উপায়

গরম তেল

গরম তেল চুলের জন্য ভালো। নারকেল তেল, অলিভ অয়েল বা ক্যাস্টর অয়েলের মতো যেকোনো তেল গরম করে কয়েক মিনিটের জন্য চুলে আলতো করে ম্যাসাজ করুন। এই অবস্থায় আপনার চুল ১০ মিনিট রেখে এবং শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

নিয়মিত ট্রিম

প্রতি ৬-৮ সপ্তাহে চুল ছাঁটা অত্যাবশ্যক। এটি চুলের শ্যাফ্টের আরও উপরে যাওয়া থেকে ক্ষতি প্রতিরোধ করে।

সরঞ্জামের ব্যবহার

সরঞ্জামের ব্যবহার সীমিত করতে হবে। স্টাইলিং সরঞ্জাম যেমন হেয়ার স্ট্রেইটনার, হট এয়ার হেয়ার ড্রায়ার, এগুলো চুলের প্রাকৃতিক শক্তি নষ্ট ফেলে এবং এগুলো ঘন ঘন ব্যবহার করলে চুলের ক্ষতি হতে পারে। এই ধরনের সরঞ্জাম মাঝে মাঝে ব্যবহার করতে হবে, ঘন ঘন ব্যবহার করা যাবে না। 

হেয়ার স্টাইল

বর্তমান যুগে চুলের অনেক নতুন ধরনের কাট বা স্টাইল বের হয়েছে। তবে এর মধ্যে কিছু নির্দিষ্ট চুলের স্টাইল রয়েছে এগুলো এড়িয়ে চলতে হবে। কিছু চুলের স্টাইল আমাদের চুলকে শক্তভাবে টানতে পারে, যেমন পনিটেল এবং টাইট হেয়ারব্যান্ডের ব্যবহার চুলের ক্ষতি করতে পারে। তাই চুল টানটান করে বেধে রাখা যাবে না। এই ধরনের স্টাইলগুলো পরিহার করতে হবে।

রোদ

চুলকে রোদ থেকে রক্ষা করতে হবে। বাইরে রোদে গেলে যত সম্ভব চুল বেঁধে রাখতে হবে। কেননা রোদের রশ্মি চুলের আদ্রতা নষ্ট করতে পারে। 

চুলের রং/রঞ্জক

চুলের রং বা রঞ্জক ব্যবহার কমাতে হবে বা একদমই ব্যবহার না করাই ভালো। কেননা এতে রাসায়নিক থাকে যা চুলের জন্য একদমই ভালো নয়। যদি ঘন ঘন এই সব রং ব্যবহার করা হয় তবে হেয়ার কালারিং বা পারমিং ট্রিটমেন্ট চুলের টেক্সচার ক্ষতি করতে পারে। 

খাদ্য তালিকাগত পরিবর্তন

  • ফ্যাটি মাছ এবং ফ্ল্যাক্সসিড তেলে পাওয়া ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।
  • আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে, যেমন বিটরুট, খেজুর, মটরশুটি, মসুর ডাল, পালং শাক, গুড়।
  • বায়োটিন সমৃদ্ধ খাবার যেমন ডিম, পালং শাক, বাদাম খেতে হবে।
  • সাইট্রাস ফল যেমন কমলা, ইন্ডিয়ান গুজবেরি (আমলা), চুন খেয়ে ভিটামিন সি ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে
  • সকালের প্রথম দিকে সূর্যের প্রাকৃতিক ভিটামিন ডি গ্রহন করতে হবে। 
  • ডিমের কুসুম, মাশরুম এবং মাছের মতো খাবার গ্রহন করতে হবে। 

অ্যালোভেরা

একটি ঘৃতকুমারী পাতা ফালি করে দুই টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে ব্লেন্ড করতে হবে। অ্যালোভেরা জেলে দুই টেবিল চামচ পানি যোগ করে ভালোভাবে মিশাতে হবে। এরপর তরলটি একটি স্প্রে বোতলে ঢেলে ভালো করে নেড়ে নিতে হবে। এরপর চুল ধুয়ে শুকানোর পরে অ্যালোভেরা দ্রবণ দিয়ে স্প্রে করতে হবে। সপ্তাহে ৩-৪ বার এই হেয়ার স্পে করতে হবে। অ্যালোভেরা হল প্রোটিওলাইটিক এনজাইম এর উৎস যা মাথার ত্বকে উপস্থিত ক্ষতিগ্রস্ত কোষগুলি সতেজ কর। এটি ফলিকল স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে এবং চুলের বৃদ্ধি বাড়িয়ে দেয়। এই উপাদানটি চুলের আর্দ্রতা বাড়াতে এবং চুলকে হাইড্রেট করতে সাহায্য করে এবং সারা দিন এটিকে কন্ডিশন রাখতে সাহায্য করে। রিলেটেডঃ এলোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা, এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা

এলোভেরার গাছ
এলোভেরার গাছ

নারকেল তেল/অলিভ অয়েল

নারকেল তেল/অলিভ অয়েল এর ২-৩ টেবিল চামচ (চুলের দৈর্ঘ্যের উপর নির্ভর করে) নিয়ে হাল্কা গরম করতে হবে। এরপর মাথার ত্বকে গরম তেল ১৫ মিনিট ধরে ম্যাসাজ করে ৩০ মিনিট এর মতো রেখে দিতে হবে। সেই সময় তোয়ালে দিয়ে চুল ঢেকে রাখতে হবে। এর পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে হবে। সপ্তাহে দুই থেকে তিন বার এটি করতে হবে। 

কারন গরম তেল ম্যাসাজ চুলের ফলিকলগুলিকে উদ্দীপিত করতে সাহায্য করে এবং চুলের বৃদ্ধি বাড়ায়। এটি চুলের জন্য একটি কার্যকর গভীর কন্ডিশনিং চিকিৎসা যা খুশকি এবং চুলকানির মতো সমস্যার বিরুদ্ধেও লড়াই করে। নারকেল তেল সমৃদ্ধ ট্রাইগ্লিসারাইড সামগ্রী পুষ্ট করতে সাহায্য করে। এটি চুলের খাদের গভীরে প্রবেশ করার ক্ষমতা রাখেঅলিভ অয়েল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ভিটামিন ই দিয়ে পরিপূর্ণ, যা চুলের ক্ষতি প্রতিরোধ করে। রিলেটেডঃ অলিভ অয়েল তেলের উপকারিতা ও অপকারিতা

দই

প্রথমে ১ কাপ দই এবং দুই টেবিল চামচ আমলা পাউডার একসাথে মিশিয়ে পেস্ট করতে হবে। এরপর এটি মাথার ত্বকে এবং চুলে লাগিয়ে ৩০ মিনিট এর মতো রেখে দিতে হবে। এর পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে হবে। সপ্তাহে দুই থেকে তিন বার এটি করতে হবে। 

কারন দইয়ে রয়েছে ভিটামিন বি৫ এবং ডি যা চুলের স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। এটি খুশকির মতো সমস্যাগুলির বিরুদ্ধে লড়াই করার সাথে সাথে চুলের শ্যাফ্টগুলিকে ভেতর থেকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। এই মাস্কের আমলা মাথার ত্বকে ভিটামিন সি বুস্ট করতে সাহায্য করে, চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

ডিম

১টি গোটা ডিম, ১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল আবং ১ টেবিল চামচ মধু একসাথে হালকা গরম করে ভালোভাবে মিশাতে হবে। এরপর এই মাস্কটি মাথার ত্বকে এবং চুলে লাগিয়ে ৩০ মিনিট এর মতো রেখে দিতে হবে। এর পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে হবে। সপ্তাহে এক থেকে দুই বার এটি করতে হবে। 

কারন ডিম হল  প্রচুর প্রোটিনের উৎসগুলির মধ্যে একটি। এটি চুলকে পুষ্টি এবং চকচকে দিতে সাহায্য করে এবং এর গঠন উন্নত করে। এটি চুলের ক্ষতি মেরামত করতে সাহায্য করে এবং নিস্তেজ চুলে জীবন যোগায়। এই হেয়ার মাস্কটি নিয়মিত ব্যবহার করলে চুল মজবুত ও কন্ডিশনে সাহায্য করব।

মেথি বীজ

১/৪  কাপ মেথি বীজ, ১ কাপ পানিতে ভিজিয়ে সারারাত রেখে দিতে হবে। এরপর এর পেস্ট করে মাথার ত্বকে এবং চুলে লাগিয়ে ৩০ মিনিট এর মতো রেখে দিতে হবে। এর পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে হবে। সপ্তাহে এক বার এটি করতে হবে।

কারন মেথির বীজ প্রোটিন, আয়রন, ভিটামিন সি, পটাসিয়াম এবং লেসিথিন সমৃদ্ধ। এটি প্রয়োজনীয় চুলের পুষ্টিগুলি চুলের ঘনত্ব এবং শক্তি বাড়াতে চুল পড়া, খুশকি, ক্ষতি এবং ধূসর হওয়া রোধ করতে একসাথে কাজ করে।

পেঁয়াজের রস

একটি বড় পেঁয়াজ থেকে রস নিয়ে তিন থেকে চার ফোটা ল্যাভেন্ডার এসেনশিয়াল অয়েল একসাথে মিশ্রিত করে আঙ্গুলের ডগা দিয়ে আলতোভাবে মাস্কটি মাথার ত্বকে এবং চুলে লাগিয়ে ১৫ মিনিট এর মতো রেখে দিতে হবে। এর পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে হবে। সপ্তাহে দুই বার এটি করতে হবে।

কারন পেঁয়াজের রস চুল পড়া রোধ করতে, চুলের বৃদ্ধি বাড়াতে এবং চুল পুনরায় গজাতে সাহায্য করে। এর উচ্চ সালফার রক্ত ​​সঞ্চালনকে উন্নত করতে সহায়তা করে, যাতে আরও ভাল পুষ্টি পাওয়া যায়। এটি বায়োটিন, ম্যাঙ্গানিজ, ফ্ল্যাভোনয়েডস, ভিটামিন সি, ফসফরাস, ফলিক অ্যাসিড এবং কপারের মতো পুষ্টির একটি সমৃদ্ধ উৎস যা চুলের স্বাস্থ্য পুনরুদ্ধার এবং উজ্জ্বল করতে সহায়তা করে।

আপেল সিডার ভিনেগার

এক টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনেগার এবং এক কাপ পানি ভালো করে মিশাতে হবে। এরপর চুল কন্ডিশনার করার পরে, এর মধ্যে পাতলা আপেল সাইডার ভিনেগার দিতে হবে। সপ্তাহে একবার এটি করতে হবে।

কারন এই ট্রিটমেন্টটি চুল থেকে ময়লা, তেল, গ্রাইম এবং জমাট থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে। এটি কঠোর রাসায়নিক ব্যবহার ছাড়াই চুলকে পরিষ্কার করে, এটিকে নরম বোধ করে এবং সিল্কি দেখায়।

সিল্কি চুল পেতে কার্যকরী শ্যাম্পু

চুলের যত্নে সবার আগে যে নামটি আসে সেটি হলো শ্যাম্পু। শ্যাম্পু্তে চুল পরিষ্কারের বিভিন্ন উপাদান থাকে যা চুলকে খুব সহজে সিল্কি করতে সাহায্য করে। তবে অবশ্যই শ্যাম্পু ব্যবহারের আগে ভালো শ্যাম্পু দেখে কিনতে হবে। বাজারে অনেক ধরনের শ্যাম্পু পাওয়া যায়, সব শ্যাম্পুই যে ভালো তা বলার সুযোগ নাই। এই সেকশনে আমরো আলোচনা করবো চুল সিল্কি করতে যেসব শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন তা নিয়ে।

সানসিল্ক

সানসিল্ক শ্যাম্পু বেশ পুষ্টিকর যা চুলকে নরম এবং মসৃণ করতে সাহায্য করে। এটি পাঁচটি প্রাকৃতিক তেল দিয়ে সমৃদ্ধ – আরগান তেল, বাবাসু তেল, ক্যামেলিয়া বীজ তেল, মিষ্টি বাদাম তেল এবং নারকেল তেল/ এটি এমনকি সবচেয়ে শুষ্ক এবং নিস্তেজ চুলকে নরম, মসৃণ এবং সিল্কি চুলে রূপান্তর করতে পারে। এটি চুলকে গভীরভাবে পুষ্ট করে, প্রাকৃতিক আর্দ্রতা ধরে রাখে। এতে প্রয়োজনীয় প্রাকৃতিক তেল রয়েছে। এটি চুল নরম এবং সিল্কি করে।

লরিয়াল প্যারিস

তিনটি ঐতিহ্যবাহী তেল এর সংমিস্ত্রনে তৈরি এটি। মূল থেকে ডগা পর্যন্ত সম্পূর্ণ পুষ্টি প্রদান করতে এর বিকল্প নেই। এটি চুল পড়া কমায়, চুলের গঠন উন্নত করে, চুল মসৃণ ও নরম করে, সাশ্রয়ী,চুল তৈলাক্ত করতে পারে।

গোদরেজ শ্যাম্পু

গোদরেজ হানি ময়েশ্চার শ্যাম্পুটি বিশেষভাবে মধু এবং পুষ্টিকর তেল দিয়ে তৈরি করা হয় যা চুলকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন দিয়ে সমৃদ্ধ করে। এই শ্যাম্পুতে দেওয়া মধু চুলের আর্দ্রতা ধরে রাখে এবং ক্ষতিগ্রস্থ ও শুষ্ক চুলে চমৎকার ময়েশ্চারাইজেশন সরবরাহ করে। এছাড়াও, জোজোবা, জলপাই এবং গমের জীবাণুর মিশ্রণ টেক্সচার উন্নত করে, মাথার ত্বকে পুষ্টি যোগায় এবং ক্ষতিগ্রস্ত চুল মেরামত করে।

প্যানটেন প্রো-ভি

প্যানটেন প্রো-ভি সিল্কি স্মুথ কেয়ার শ্যাম্পু শক্তিশালী এবং ঝলমলে চুল দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়। এই শ্যাম্পুটি প্রয়োজনীয় আর্দ্রতা আটকে রাখে এবং অতিরিক্ত আর্দ্রতা দূর করে, সারাদিন এবং যেকোনো আবহাওয়ায় আপনার চুলকে চকচকে রাখে। এটি মাথার ত্বক ভালোভাবে পরিষ্কার করে, চুলে উজ্জ্বলতা ও কোমলতা এনে দেয়, চুল পড়া কমায়, চুলের ক্ষতি নিয়ন্ত্রণ করে। 

শোয়ার্জকফ বোনাকিউর স্মুথ পারফেক্ট শ্যাম্পু

এলোমেলো এবং নিয়ন্ত্রণহীন চুল নিয়ে সমস্যায় থাকলে শোয়ার্জকফ বোনাকিউর স্মুথ পারফেক্ট শ্যাম্পু। এই শ্যাম্পু চুলকে ফ্রিজ-মুক্ত করে এবং কার্যকরভাবে মসৃণ করে। এটিতে থাকা অ্যামিনো কোষগুলি চুলের স্থিতিস্থাপকতা এবং শক্তি পুনরুদ্ধার করতে সহায়তা করে, এটি একটি স্বাস্থ্যকর এবং নরম গঠন দেয়। এটি নিয়ন্ত্রণহীন চুল মসৃণ করে, চকচক করে, চুলের গঠন উন্নত করে, চুলকে ভেতর থেকে মজবুত করে। তবে এটি একটু ব্যয়বহুল।

চুল সিল্কি করার উপায়
চুল সিল্কি করার উপায়

ওয়াও আপেল সিডার ভিনেগার শ্যাম্পু

এটি হল একটি জৈব শ্যাম্পু যা খাঁটি হিমালয় আপেল থেকে নেওয়া প্রাকৃতিক অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার দিয়ে সমৃদ্ধ। এই শ্যাম্পু মাথার ত্বকের সমস্ত অবশিষ্টাংশ পরিষ্কার করে এবং নিস্তেজ এবং রুক্ষ চুলকে মসৃণ করে। আপেল সিডার ভিনেগার তার নিরাময় বৈশিষ্ট্যের জন্য পরিচিত। এটি চুলের বৃদ্ধি তৈরি করে এবং ফলিকলগুলিকে আটকে থাকা সমস্ত ছত্রাক এবং ব্যাকটেরিয়া পরিষ্কার করতে সহায়তা করে। এটি চুলের ক্ষতি এবং বিভক্ত প্রান্ত প্রতিরোধ করে, পিএইচ মাত্রা ভারসাম্য সাহায্য করে, চুলের বৃদ্ধি বৃদ্ধি করে, আর্দ্রতা ধরে রাখে, খুশকি এবং মাথার চুলকানি কমায়, এটি সালফেট এবং প্যারাবেন মুক্ত। রিলেটেডঃ  আপেল সিডার ভিনেগার এর উপকারিতা ও অপকারিতা

ম্যাট্রিক্স বায়োলেজ শ্যাম্পু

এই শ্যাম্পু জল-প্রতিরোধী ক্যামেলিয়া ফুলের সাথে মিশ্রিত, ম্যাট্রিক্স বায়োলেজ স্মুথপ্রুফ শ্যাম্পু হল ফ্রিজি এবং নিয়ন্ত্রণহীন চুলের জন্য উপযুক্ত শ্যাম্পু। এই শ্যাম্পুটি ফ্রিজ-মুক্ত চুল সরবরাহ করার পাশাপাশি মসৃণ এজেন্ট হিসাবে কাজ করে। এই শ্যাম্পু চুলকে পালিশ করে এবং একটি প্রতিরক্ষামূলক স্তর তৈরি করে। এটি ফলিকলগুলির উপর একটি প্রতিরক্ষামূলক স্তর তৈরি করে এবং চুল গভীরভাবে মসৃণ করে। 

বায়োটিক বায়ো হেনা লিফ ফ্রেশ টেক্সচার শ্যাম্পু

বায়োটিক বায়ো হেনা লিফ ফ্রেশ টেক্সচার শ্যাম্পু সরাসরি প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে তৈরি। মেহেদি পাতা, সাবান বাদাম, ব্রাহ্মী, লিকোরিস রুট এবং আম বিজের শক্তিশালী অথচ সূক্ষ্ম সমন্বয়ের সাথে, এই শ্যাম্পু নিঃসন্দেহে চুলে বিস্ময়কর কাজ করবে। এই অত্যাবশ্যকীয় ভেষজ বৈশিষ্ট্যগুলি চুলকে গভীরভাবে পুষ্ট করবে এবং কন্ডিশন করবে। এটি চুলকে  চকচকে করে।সিল্কি চুলের জন্য ভালো মানের শ্যাম্পুর বিকল্প নেই। তাই শ্যাম্পু কেনার সময় যে বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হবে। বাজারে অনেক ধরনের নকল শ্যাম্পু রয়েছে।  যা আপনার চুলকে ব্যাপক ক্ষতি করতে পারে। তাই ভাল স্টোর থেকে আপনার চুল অনুযায়ী পছন্দের শ্যাম্পু ক্রয় করুন।

চুলের ধরন

যেকোনো শ্যাম্পু কেনার আগে আপনার চুলের ধরন বুঝা জরুরি। বিভিন্ন শ্যাম্পুগুলি বিভিন্ন ধরণের চুলের জন্য তৈরি। যদি কোঁকড়া এবং মোটা চুল থাকে, তাহলে এমন শ্যাম্পু বেছে নিতে হবে যা চুলকে মসৃণ করে এবং কোঁকড়া কম করে। পাতলা এবং নিস্তেজ চুলের জন্য, একটি শক্তিশালী শ্যাম্পু বেছে নিতে হবে যা চুলের ভলিউম যোগ করে।


চুল সিল্কি করতে ডিমের হেয়ার প্যাক | চুল সিল্কি করার ঘরোয়া পদ্ধতি | সিল্কি চুলের|

উপাদান

সফটেনিং শ্যাম্পুতে চুলের ময়েশ্চারাইজিং উপাদান থাকা উচিত। কোকো মাখন, শিয়া মাখন, বাদাম তেল, আর্গান তেল, কেরাটিন এবং প্রোটিনের মতো উপাদানগুলি থাকা উচিত।

প্যারাবেন, সালফেট এবং অ্যালকোহল এড়িয়ে চলুন কারণ এগুলি আপনার চুল থেকে প্রাকৃতিক তেল সরিয়ে ফেলতে পারে এবং এটিকে শুষ্ক ও নিস্তেজ করে তুলতে পারে।

আরো পড়ুনঃ  চুল ঘন করার বিভিন্ন পদ্ধতি।

অম্লতা

যেকোনো শ্যাম্পুর পি এইচ  মান অত্যাবশ্যক। চুল এবং মাথার ত্বকের আদর্শ পিএইচ স্তর ৫.৫।  অতএব, এমন শ্যাম্পু নির্বাচন করতে হবে যা এটি বজায় রাখতে সহায়তা করে। পিএইচ যত কম হবে, পণ্য তত ভালো হবে কারণ এটি চকচকে, নরম এবং মসৃণ রেখে চুলের স্বাস্থ্য বজায় রাখে। উচ্চ পি এইচ  লেভেল চুল পড়া এবং ভেঙ্গে যেতে পারে এবং চুলের কিউটিকলকে দুর্বল করে দিতে পারে।

আমরা প্রতিদিন সবাই বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকি। যার ফলে আমাদের চুলের যত্ন নেয়া হয় না। মহিলারা তাও কিছুটা নিলেও পুরুষদের টা একবারেই নেয়া হয় না। অথচ চুল আমাদের শরীরের একটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। তাই আমাদের সকলের উচিত চুলের যথাযথ যত্ন নেয়া। তাই আমরা সকলেই আমাদের কাজের ব্যস্ততার ফাকে কিছু সময় বের করে উপরের পদ্ধতি অনুসারে আমাদের চুলের যত্ন নেয়া উচিত। চুল সিল্কি করার উপায় নিয়ে লেখাটা আপনাদের ভালো লাগলে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

বিঃদ্রঃ  এই ব্লগের প্রত্যেকটা ব্লগ পোস্ট Sylhetism ব্লগের নিজস্ব ডিজিটাল সম্পদ। কেউ ব্লগের কোন পোস্ট কিংবা আংশিক অংশ ব্লগের কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কপি পেস্ট করে অন্য কোথাও প্রকাশ করলে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা করার অধিকার রাখে। এবং অবশ্যই কপিরাইট ক্লাইম করে যে মাধ্যমে এই ব্লগের পোস্ট প্রকাশ করা হবে সেখানেও কমপ্লেইন করা হবে।

এই ব্লগের কোন লেখায় তথ্যগত কোন ভুল থাকলে আমাদের Contact পেইজে সরাসরি যোগাযোগ করুণ, আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তথ্য যাচাই করে লেখা আপডেট করে দিবো।

এই ব্লগের কোন স্বাস্থ বিষয়ক পোস্টের পরামর্শ নিজের বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করার আগে অবশ্যই বিশেষজ্ঞদের মতামত নিবেন, আমরা স্বাস্থ বিষয়ে কোন বিশেষজ্ঞ না, আমাদের উদ্দেশ্য ও লক্ষ হচ্ছে সঠিক তথ্য পরিবেশন করা। সুতারাং কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার দায়ভার অবশ্যই আমরা নিবো না।

ধন্যবাদ, ব্লগ কর্তৃপক্ষ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

You cannot copy content of this page