হার্ডওয়্যার কি? হার্ডওয়্যার কাকে বলে? গাইডলাইন

hardware

আমরা যে যুগে এখন বাস করছি সে যুগকে বলা হয় বিজ্ঞানের যুগ। আর এই বিজ্ঞানের যুগের সবচেয়ে বড় আশির্বাদ হচ্ছে কম্পিউটার। কম্পিউটার আমরা মোটামুটি সবাই চিনি, তবে যখন কেউ বলে হার্ডওয়্যার তখন আমরা চিন্তিত হয়ে পড়ি। মনে প্রশ্ন জাগে হার্ডওয়্যার কি? হার্ডওয়্যার কাকে বলে? সেসব প্রশ্নের উত্তর নিয়েই আজকের লেখা। এই লেখাতে পাবেন হার্ডওয়্যার নিয়ে বিস্তারিত। তাহলে চলুন দেখে নেওয়া যাক হার্ডওয়্যার কি? বা হার্ডওয়্যার কাকে বলে?

হার্ডওয়্যার

কম্পিউটারে একসাথে কাজ করা বেশ কয়েকটি উপাদানকে বলা হয় হার্ডওয়্যার। অন্য কথায় যদি বলি এটাকে কখনও কখনও কম্পিউটারের সরঞ্জাম বা যন্ত্রপাতিও বলা হয়। এটি একটি সার্কিট বোর্ডের সাথে সবকিছুকে অন্তর্ভুক্ত করে যা একটি কম্পিউটার(পিসি) বা ল্যাপটপের মধ্যে কাজ করে। কম্পিউটার এর হার্ডওয়্যার কম্পিউটারের বিভিন্ন সরঞ্জাম দ্বারা গঠিত। এটি কম্পিউটার সফ্টওয়্যার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় যা প্রোগ্রাম নির্দেশাবলীর একটি সেট নিয়ে গঠিত। যা একটি কর্ম সম্পাদনের জন্য হার্ডওয়্যারের সাথে সহযোগিতা করে।

প্রকারভেদ

প্রতিটি কম্পিউটার সিস্টেমের জন্য প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী সিস্টেমের সাথে সংযুক্ত বেশ কয়েকটি হার্ডওয়্যার থাকে। কম্পিউটার হার্ডওয়্যারে কম্পিউটারের যান্ত্রিক উপাদান এবং ইলেকট্রনিক উপাদান থাকে। হার্ডওয়্যারকে প্রধানত ৪ ভাবে ভাগ করা হয়েছে যেমন-

  • ইনপুট হার্ডওয়্যার
  • আউটপুট হার্ডওয়্যার
  • সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট (সিপিউ)
  • স্টোরেজ

ইনপুট হার্ডওয়্যার

ইনপুট হার্ডওয়্যার এর সাহায্যে কম্পিউটারে ডেটা সরবরাহ করা হয়। এটি টেক্সট, ইমেজ, সাউন্ডের মতো ডেটা গ্রহন করে এবং বিভিন্ন ডিভাইস অথবা কম্পিউটারের মধ্যে ফাইল ট্রান্সফার করতে সাহায্য করে। বিভিন্ন ধরনের ইনপুট হার্ডওয়্যার রয়েছে তাদের মধ্যে কয়েকটি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলঃ-

কীবোর্ড

কীবোর্ড হল আরেক ধরনের কম্পিউটার হার্ডওয়্যার যা কম্পিউটারে ইনপুট ডিভাইস,কীবোর্ড প্রধানত কমান্ড দিতে ব্যবহৃত হয়। কীবোর্ড তারযুক্ত বা তার ছাড়াও হতে পারে। কম্পিউটারে কাজ করার জন্য কিবোর্ডে বর্ণমালা, সংখ্যা, বিশেষ অক্ষর এবং অন্যান্য বাটন রয়েছে। এটি ইনপুট  যা ব্যবহারকারীর কাছে ইনপুট বার্তা নেয় এবং কমান্ডগুলি প্রক্রিয়া করে বা মেনে চলে। ইউএসবি বা ব্লুটুথের মাধ্যমে কম্পিউটারের সাথে কীবোর্ড সংযুক্ত থাকে। একটি ল্যাপটপ কীবোর্ড ডেস্কটপ কীবোর্ডের চেয়ে কিছুটা ছোট এবং হালকা হয়। যাতে সহজে বহন করা যায়। স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেটগুলি অন-স্ক্রীন কীবোর্ড ব্যবহার করে বার্তা ইনপুট করে এবং কমান্ড গ্রহন  করে।

কীবোর্ড
কীবোর্ডের নমুনা
ব্যবহার

নিম্নে কীবোর্ড এর ব্যবহার সম্পর্কের আলোচনা করা হলঃ-

  • কীবোর্ড প্রধানত টাইপ করার জন্য ব্যবহৃত হয়।
  • লেখা প্রবেশ করানোর জন্য কীবোর্ড ব্যবহার করা হয়।
  • কীবোর্ড কিছু ডিভাইস চালানোর জন্য ব্যবহৃত হয়।

মাউস

এটি একটি হ্যান্ড অপারেটর ইনপুট ডিভাইস যা স্ক্রিনে কিছু নির্দেশ করতে ব্যবহৃত হয়। মাউস তারযুক্ত বা তার ছাড়াও হতে পারে। যদি মাউস তারযুক্ত হয় তবে এটি সরাসরি CPU- র সাথে সংযুক্ত থাকে। মাউস স্ক্রিনে উপরে বা নিচে স্ক্রোল করতে লেজার ও বল ব্যবহার করা হয়। মাউস থেকে করা স্ক্রিনে কার্সার সরানোর জন্য সরাসরি কম্পিউটারে নির্দেশ পাঠায়।

মাউস
মাউসের নমুনা

ব্যবহার

নিম্নে মাউসের ব্যবহার সম্পর্কের আলোচনা করা হলঃ-

  •  মাউসের মাধ্যমে যে কোন ফাংশন/প্রোগ্রাম নির্বাচন বা সিলেক্ট করা যায়।
  • মাউস ফাংশন স্ক্রল করতে ব্যবহার করা হয়।
  • মাউসের মাধ্যমে একটি প্রোগ্রাম খুলা বা বন্ধ করা যায়।
  • অতিরিক্ত বোতাম ব্যবহার করে অন্যান্য ফাংশন সম্পাদন করা যায়।
  •  ল্যাপটপ এর ক্ষেত্রে মাউস হিসেবে টাচ প্যাড ব্যবহার করা হয়।
  • স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেট টাচস্ক্রিন ব্যবহার করা এবং ব্যবহারকারীর আঙুলটি মাউস হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

মাইক্রোফোন

মাইক্রোফোন একটি ইনপুট ডিভাইস যা ব্যবহারকারীদের তাদের কম্পিউটারে অডিও ইনপুট করতে সাহায্য করে।

মাইক্রোফোন হল একটি ট্রান্সডুসার যা যান্ত্রিক তরঙ্গ শক্তিকে বৈদ্যুতিক শক্তিতে রূপান্তর করে। অনেক ধরণের মাইক রয়েছে।

মাইক্রোফোন
মাইক্রোফোন
 ব্যবহার

নিম্নে মাইক্রোফোন এর ব্যবহার সম্পর্কে আলোচনা করা হলঃ-

  • ডিকটেশন, গান, এবং পডকাস্টের জন্য ভয়েস রেকর্ড করার জন্য ব্যবহার করা হয়
  • ভিডিও দেখার জন্য মাইক্রোফোন ব্যবহার করা হয়।
  • কম্পিউটার গেমিং এর জন্য ব্যবহার করা হয়
  • অনলাইন চ্যাটিং এর জন্য ব্যবহার করা হয়
  • বাদ্যযন্ত্র রেকর্ড করার জন্য ব্যবহার করা হয়
  • সাউন্ড রেকর্ড করার জন্য ব্যবহার করা হয়

বারকোড রিডার

বারকোড স্ক্যানার যা বারকোড রিডার নামেও পরিচিত। এটি একটি ইলেকট্রনিক ডিভাইস যা বারকোডে থাকা তথ্য ডিকোড করে এবং এই তথ্যটি ক্যাপচার করে। বারকোড রিডার কেবল বারকোডটিকে সংখ্যা অথবা অক্ষরে ক্যাপচার করে না এটি অনুবাদ করে সংখ্যা বা ক্যাপচাকে। এরপর এটি কম্পিউটারে পাঠায়। পরে সফটওয়্যার অ্যাপ্লিকেশন এর মাধ্যমে ডেটাকে সংরক্ষণ করতে পারে। । বারকোড স্ক্যানার একটি সিরিয়াল পোর্ট, কীবোর্ড পোর্ট, বা ওয়েজ নামক একটি ইন্টারফেস ডিভাইসের মাধ্যমে সংযুক্ত থাকে।

বারকোড রিডার
বারকোড রিডার দেখতে যেমন

ব্যবহার

নিম্নে বারকোড রিডার এর ব্যবহার সম্পর্কে আলোচনা করা হলঃ-

  • মোবাইল পেমেন্ট প্রসেসে বারকোড রিডার ব্যবহার করা হয়।
  • গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনায় বারকোড রিডার ব্যবহার করা হয়।
  • ইনভেন্টরি নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনায় বারকোড রিডার ব্যবহার করা হয়।
  • টিকিট যাচাই করতে বারকোড রিডার ব্যবহার করা হয়।
  • গেমিং শিল্পে বারকোড রিডার ব্যবহার করা হয়।
  • নিরাপদ যোগাযোগে বারকোড রিডার ব্যবহার করা হয়।

স্ক্যানার

একটি স্ক্যানার হল কম্পিউটার হার্ডওয়্যারের একটি অংশ যা প্রতিফলিত আলো ব্যবহার করে ছবি ক্যাপচার করে এবং সেগুলিকে একটি কম্পিউটার পড়তে এবং প্রদর্শন করতে পারে এমন ফাইলগুলিতে অনুবাদ করে। স্ক্যানার একটি ইনপুট ডিভাইস, যা ফটোকপি মেশিনের মতো কাজ করে। স্ক্যানার ছবিকে কালো-সাদা বা রঙে স্ক্যান করতে পারে। স্ক্যানার থেকে ছবি ধারণ করা হয় এবং যা পরে একটি ডিজিটাল আকারে রূপান্তরিত হয় যা ডিস্কে সংরক্ষণ করা হয়।

স্ক্যানার
স্ক্যানার

ব্যবহার

নিম্নে স্ক্যানার এর ব্যবহার সম্পর্কে আলোচনা করা হলঃ-

কপি করাঃ স্ক্যানারের জন্য একটি খুব সাধারণ  ব্যবহার হল কপি করা। স্ক্যানারের মাধ্যমে আপনি ফ্লায়ার, পোস্টার, ওয়ার্কশীট বা অনুরূপ ডকুমেন্টের একাধিক কপি ইত্যাদি খুব সহজেই তৈরি করতে পারবেন।

সংরক্ষণ করাঃ স্ক্যানারের আরেকটি জনপ্রিয় ব্যবহার হচ্ছে ডুকমেন্ট সংরক্ষন করা। আপনি স্ক্যানারের মাধ্যমে ডকুমেন্ট/ হার্ড কপি ইত্যাদি খুব সহজে সফট কপি হিসেবে ডিজিটাল ভাবে  সংরক্ষণ করতে পারবেন।

গবেষণাঃ স্ক্যানার গবেষণার উদ্দেশ্যেও ব্যবহার করা হয়ে থাকে। দীর্ঘমেয়াদী গবেষণা প্রকল্পগুলিতে স্ক্যানার ব্যবহার হয়ে থাকে। যদি কোন একটা গবেষণায় থাকা তথ্যগুলি পরবর্তী গবেষণার জন্য প্রয়োজনীয় হয় তবে এটি স্ক্যানার এর মাধ্যমে আগে থেকেই সংগ্রহ করে রাখা হয়।

ছবি শেয়ার করাঃ হার্ড কপি ছবি শেয়ার করতে স্ক্যানার ব্যবহার করা হয়। আমাদের পুরানো অনেক পারিবারিক ছবি থাকে তা কখনই ডিজিটালভাবে রেকর্ড করা হয়নি। স্ক্যানার এর মাধ্যমে আপনি এই ছবিগুলির ডিজিটাল কপি তৈরি করতে পারবেন যা ফেসবুকের মতো সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে পোস্ট করতে পারবেন খুব সহজ ভাবে। অথবা আপনি সরাসরি বন্ধু এবং পরিবারের কাছে ইমেল করে ছবিটি শেয়ার করতে পারবেন।

আউটপুট হার্ডওয়্যার

আউটপুট কম্পিউটার হার্ডওয়্যার কিছুটা ইনপুট কম্পিউটার হার্ডওয়্যারের মতোই। আউটপুট ডিভাইস হল কম্পিউটারের ইলেকট্রনিক যন্ত্রাংশ।  কম্পিউটারের আউটপুট সরঞ্জাম কম্পিউটার এর বিভিন্ন তথ্যকে পাঠযোগ্য আকারে রূপান্তরিত করে। আউটপুট সরঞ্জাম যেকোনো সিস্টেমের শেষ অংশ। টেক্সট, গ্রাফিক্স, অডিও বা ভিডিও হতে পারে।

বিভিন্ন ধরনের আউটপুট হার্ডওয়্যার রয়েছে তাদের মধ্যে কয়েকটি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলঃ-

মনিটর

মনিটর একটি আউটপুট হার্ডওয়্যার যা সরাসরি CPU- র সাথে সংযুক্ত থাকে। মনিটরকে টেলিভিশন সেটের সাথে তুলনা করা যেতে পারে কিন্তু পার্থক্য হল মনিটর দ্বারা প্রদর্শিত রেজোলিউশন এবং টেলিভিশন সেটের রেজোলিউশন তুলনায় অনেক উন্নত মানের। মনিটর একটি তারের মাধ্যমে সংযুক্ত থাকে। দুটি ধরনের কম্পিউটার মনিটর রয়েছে যা হল CRT এবং LCD। সিআরটি কম্পিউটারের পুরনো মডেল হিসেবে ব্যবহৃত হত। এলসিডি একটি আধুনিক কম্পিউটারে ব্যবহৃত হয় কারণ এটি পাতলা এবং হালকা এবং সিআরটি মনিটরের তুলনায় ব্যবহার করা সহজ। কম্পিউটারের ভিডিও কার্ডের মাধ্যমে মনিটর সংযুক্ত থাকে।

মনিটর
মনিটর
ব্যবহার

মুলত মনিটর ডিসপ্লে দেখার জন্য ব্যবহার করা হয়। তাছাড়াও এর মাধ্যমে ছবি, ভিডিও,গেম ইত্যাদি প্রদর্শন করতে ব্যবহৃত হয়।

প্রিন্টার

প্রিন্টার একটি আউটপুট হার্ডওয়্যার যা হার্ড কপি তৈরি করতে এবং যে কোন ডকুমেন্ট প্রিন্ট করতে ব্যবহৃত হয়। প্রিন্টার হল একটি সাধারণ কম্পিউটার পেরিফেরাল ডিভাইস যাকে ২ডি এবং ৩ডি প্রিন্টারে ভাগ করা যায়। ৩ডি প্রিন্টারগুলি কাগজে টেক্সট এবং গ্রাফিক্স প্রিন্ট করতে ব্যবহৃত হয় এবং ৩ডি প্রিন্টারগুলি ত্রিমাত্রিক ভৌত বস্তু তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়।

প্রিন্টার
প্রিন্টার
ব্যবহার
  • প্রিন্টার ব্যবসায়িক কার্ড তৈরিতে ব্যবহার করা হয়।
  •  পোস্টার তৈরিতে প্রিন্টার ব্যবহার করা হয়।
  • গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্টস কপি করতে প্রিন্টার ব্যবহার করা হয়।
  • বিভিন্ন ধরনের বই লিখতে যেমনঃ- টেক্টট বই,গল্পের বই, কমিকক্স বই ইত্যাদি বই এর কপি করতে প্রিন্টার ব্যবহার করা হয়।

স্পিকার

স্পিকার কম্পিউটারের সাথে সাউন্ড উৎপন্ন করতে ব্যবহৃত হয়, যা সবচেয়ে সাধারণ আউটপুট ডিভাইসগুলির মধ্যে একটি। কিছু স্পিকার যেকোনো ধরনের সাউন্ড সিস্টেমের সাথে সংযোগ স্থাপনের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। আবার কিছু কিছু কেবল কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত থাকে। কম্পিউটারের স্পিকারের সাহায্যে কম্পিউটারের সাউন্ড কার্ড একটি সিগন্যাল তৈরি করে যা শব্দ উৎপাদন করতে ব্যবহৃত হয়। সাউন্ড তৈরির প্রাথমিক উদ্দেশ্য হল শ্রোতার জন্য অডিও আউটপুট প্রদান করা। ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক তরঙ্গগুলিকে স্পিকারের মাধ্যমে শব্দ তরঙ্গে রূপান্তরিত করে। এরপর অডিও রিসিভার বা কম্পিউটারের মতো ডিভাইসগুলি স্পিকারে অডিও ইনপুট দেয়, যা এনালগ বা ডিজিটাল আকারে হতে পারে। এনালগ স্পিকারের কাজ হল কেবল এনালগ ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক তরঙ্গকে শব্দ তরঙ্গে পরিণত করা এই প্রসেসের মাধ্যমেই আমরা স্পিকারের মাধ্যমে শুনতে পাই।

স্পিকার
স্পিকার

ব্যবহার

মুলত স্পিকার শোনার জন্য শব্দ তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়। বাজারে আরও অনেক ধরনের স্পিকার পাওয়া যায় যা সাউন্ড উৎপাদনের জন্য কম্পিউটার বা অন্য কোনো ডিভাইসে সংযুক্ত করা যায়।

সিপিউ

সিপিউকে(central processing unit) কম্পিউটারের ব্রেইন বলে আখ্যায়িত করা হয়। কম্পিউটারে যদি একবার ডেটা প্রবেশ করানো হয় তাহলে সেটি সিপিইউ দ্বারা কাজ করে। সিপিইউ নির্দিষ্ট প্রোগ্রাম নির্দেশনা নেয়ার পর সেগুলিকে ইনপুট ডেটাতে প্রয়োগ করে এবং ইনপুটটিকে আউটপুটে রূপান্তরিত করে। কম্পিউটারের সিপিইউ কম্পিউটারে চলমান হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার থেকে প্রাপ্ত সমস্ত নির্দেশনা পরিচালনা করে। উদাহরণস্বরূপ, সিপিইউ আপনার কম্পিউটারে একটি ওয়েব পেজ খুলতে এবং প্রদর্শন করার জন্য একটি ওয়েব ব্রাউজার ব্যবহার করার নির্দেশনা প্রক্রিয়া করে। সিপিইউ হলো কম্পিউটারের ভিতরে একটি চিপ।অনেক নতুন কম্পিউটার ব্যবহারকারী তাদের কম্পিউটারে ভুলভাবে ব্যবহার  করতে পারে। তাই কখনও কখনও সিপিইউ সেই ভুলকে সঠিক করতে পারে।

আরো পড়ুনঃ শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) কেন ভর্তি হবেন?

সিপিইউকে দুভাগে ভাগ করা হয়।

  • যুক্তিবিজ্ঞান ইউনিট
  • কন্ট্রোল ইউনিট

যুক্তিবিজ্ঞান ইউনিট

যুক্তিবিজ্ঞান ইউনিট প্রকৃত নির্দেশাবলী সম্পাদন করে। এটি জানে কিভাবে সংখ্যা যোগ বা গুণ করতে হয়, ডেটার তুলনা করতে হয়, অথবা বিভিন্ন অভ্যন্তরীণ ফরম্যাটে ডেটা রূপান্তর করতে হয়।

কন্ট্রোল ইউনিট

কন্ট্রোল ইউনিট নির্দেশাবলী যথাসময়ে, যথাযথ সময়ে প্রক্রিয়াকৃত করে এবং সঠিক ডেটার উপর কাজ করে তা নিশ্চিত করে।

সিপিইউ- র ধরন

সিপিইউ মাইক্রোচিপ প্রযুক্তির উপর ভিত্তি করে একটি ইলেকট্রনিক ডিভাইস, তাই একে প্রায়ই মাইক্রোপ্রসেসরও বলা হয়। এটি সত্যিই ইলেকট্রনিক্স শিল্পে অত্যাধুনিক যন্ত্র এর ১ বর্গ সেন্টিমিটারেরও কম দখলকারী একটি ক্ষুদ্র সিলিকন-ভিত্তিক চিপে কয়েক মিলিয়ন ট্রানজিস্টর উপাদান রয়েছে।  এই কারনে এর গতি এতই বেশি যে সেটি আমাদের আমাদের বোধগম্যতারও বাইরে। একটি সাধারণ সিপিইউ দশ সেকেন্ডে মানুষের দশ দশকের চেয়ে বেশি সংখ্যা মনে রাখতে সক্ষম। মজার ব্যাপার হলো এটি কিন্তু একটি হালকা বাল্বের চেয়ে কম শক্তি ব্যবহার করে। বাজারে অনেক রকমের CPU আছে। সর্বাধিক পরিচিত এবং ব্যবহার করা সিপিউ হলো ইন্টেল। যা আইবিএম-সামঞ্জস্যপূর্ণ ব্যক্তিগত কম্পিউটারের (পিসি) জন্য মাইক্রোপ্রসেসর তৈরি করে। ইন্টেল বিপুল সংখ্যক সিপিইউ তৈরি করেছে: পার্সোনাল কম্পিউটারে ব্যবহৃত প্রথম দিকের মডেলটি ছিল ৪০৮৮, তারপরে ৪০৮৬, ৪০২৮, ৩৮৬, ৪৮৬ এবং তার পরের মডেলগুলো হলো পেন্টিয়াম প্রসেসরের লাইন।

বৈশিষ্ট্য

সিপিউ এর কিছু বৈশিষ্ট্য নিয়ে আলোচনা করা হলোঃ-

  • CPU কে ​​কম্পিউটারের মস্তিষ্ক হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
  • সিপিইউ সব ধরনের ডাটা প্রসেসিং অপারেশন করে।
  • এটি ডেটা, মধ্যবর্তী ফলাফল এবং নির্দেশাবলী (প্রোগ্রাম) সঞ্চয় করে।
  • এটি কম্পিউটারের সকল যন্ত্রাংশ পরিচালনা করে।


সফটওয়্যার এবং হার্ডওয়্যার (Software and Hardware)

স্টোরেজ

সহজ করে বললে স্টোরেজের প্রধান কাজ হচ্ছে কোন ডাটা বা ফাইল কে  সংগ্রহ  করে রাখা। স্টোরেজকে মেমরি বললেও ভুল হবে না। স্টোরেজ হচ্ছে একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে কম্পিউটিং প্রযুক্তির মাধ্যমে একটি ডেটা স্টোরেজ ডিভাইসের মধ্যে ডিজিটাল ডেটা সংরক্ষণ করা হয়। স্টোরেজ হল একটি প্রক্রিয়া যা কম্পিউটারকে সাময়িক বা স্থায়ীভাবে ডেটা ধরে রাখতে সহায়তা করে। স্টোরেজকে কম্পিউটার ডেটা স্টোরেজ বা ইলেকট্রনিক ডেটা স্টোরেজও বলা যেতে পারে।নিম্নে আমরা এখানে ৩ টি স্টোরেজ নিয়ে আলোচনা করব। যেমনঃ-

  • র‍্যাম।
  • রোম।
  • ডিস্ক ড্রাইভ।

র‍্যাম(RAM)

র‍্যাম এর পুরো অর্থ হচ্ছে র‍্যান্ডম অ্যাক্সেস মেমরি (Random-access memory)। র‍্যামের মধ্যে রয়েছে স্ট্যান্ডার্ড সার্কিট-ইনক্রিপ্টড সিলিকন মাইক্রোচিপস রয়েছে  যা লক্ষ লক্ষ ক্ষুদ্র ট্রানজিস্টর ধারণ করে থাকে। একটি RAM চিপ সহজেই শত শত মেগাবাইট, মিলিয়ন মিলিয়ন অক্ষর ধারণ করতে পারে। মাদারবোর্ডে র‍্যামের জন্য আলাদা আলাদা  স্লট থাকে যার মাধ্যমে র‍্যাম আটকে থাকে।

ব্যবহার

এক কথায় তথ্য সংরক্ষণের জন্য র‍্যাম ব্যবহার করা হয়। এর মানে হল যে প্রোগ্রাম খোলা, বিভিন্ন প্রক্রিয়া চালানো, বা একসাথে একাধিক ফাইল অ্যাক্সেস করা ইত্যাদি  র‍্যাম এর মাধ্যমেই করা হয়ে থাকে। বিশেষ করে জটিল প্রোগ্রাম যেমন গেমস বা ডিজাইন সফটওয়্যার ভালভাবে রান করতে র‍্যাম ব্যবহার করা হয়।

র‍্যাম এর গুরুত্ব

কম্পিউটারএ র‍্যাম হল আপনার সিস্টেমের একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। র‍্যাম অ্যাপ্লিকেশনগুলিকে একটি স্বল্পমেয়াদী ভিত্তিতে ডেটা সংরক্ষণ এবং অ্যাক্সেস করার ব্যবস্থা করে দেয়। এটি আপনার কম্পিউটার সক্রিয়ভাবে ব্যবহার করতে সাহায্য করে। আপনি যেই তথ্যগুলোকে সংরক্ষণ করতে চান সেইগুলোকে র‍্যাম সংরক্ষণ করে থাকে।

রোম(ROM)

কম্পিউটারে রোম একটি অপরিহার্য উপাদান।  রোমে ইলেকট্রনিক মেমরি মাইক্রোচিপ থাকে যার মাধ্যমে র‍্যাম এর বিপরীতে বিদ্যুৎ বন্ধ হয়ে গেলে এটি এর বিষয়বস্তু হারায় না। এর ফাংশনও র‍্যামের থেকে অনেক আলাদা। যেহেতু রমের বিষয়বস্তু পরিবর্তন করা কঠিন বা অসম্ভব। তাই এটি সাধারণত প্রোগ্রাম নির্দেশাবলী ধারণ করতে ব্যবহৃত হয় যা কম্পিউটারের জীবদ্দশায় পরিবর্তনের কোন সম্ভাবনা নেই। রোমের প্রধান কাজ হল বুট প্রোগ্রামকে সঞ্চয় করা। রোমে চিপগুলি এমন অনেক ডিভাইসে পাওয়া যায় যার মধ্যে এমন প্রোগ্রাম রয়েছে যা উল্লেখযোগ্য সময়ের মধ্যে পরিবর্তিত হওয়ার সম্ভাবনা নেই, যেমন- ভিডিও রেকর্ডার বা পকেট ক্যালকুলেটর।

ব্যবহার

নিম্নে রোমের এর ব্যবহার সম্পর্কে আলোচনা করা হলঃ-

  • র‍্যাম এর মতই এটিও ডেটা সংরক্ষণের জন্য ব্যবহৃত হয়। র‍্যামের সাথে পার্থক্য হলো রোম এর ডাটা কম্পিউটার হঠাৎ বন্ধ হয়ে গেলেও ডিলিট হয় না।
  • রোম সফটওয়্যার ইনফরমেশন সংরক্ষণ করতে ব্যবহৃত হয়।
  • কম্পিউটারের ফার্মওয়্যার সফটওয়্যার আপডেট করতেও রম ব্যবহার করা হয়।
  • রোম ইলেকট্রনিক ডিভাইস যেমন কিপ্যাড মোবাইল ফোন, বাচ্চাদের হাতে খেলা, ভিসিআর, ডিভিডি এবং ডিজিটাল ঘড়িতেও ব্যবহৃত হয়।
  • রোম স্মার্ট টেলিভিশন, ওয়াশিং মেশিন, মাইক্রোওয়েভ, ইন্ডাকশন চুলা এবং টিভি রিমোটের মতো হোম অ্যাপ্লায়েন্সেসেও ব্যবহৃত হয়।
  • রোম অটোমোবাইল শিল্পে যেমন ডিজিটাল স্পিড মিটার ব্যবহার করা হয়।
  • মনিটর, কীবোর্ড, মাউস, প্রিন্টার, স্ক্যানার, প্লটার, ক্যালকুলেটর এবং ফ্যাক্স মেশিনের মতো অনেক ইলেকট্রনিক ডিভাইসে রম ব্যবহার করা হয়।

রোমের গুরুত্ব

রোম এর মূল উদ্দেশ্য হল কম্পিউটার চালু করার জন্য প্রয়োজনীয় কমান্ডগুলো সংরক্ষণ করা। যাতে কম্পিউটার সিস্টেম চালু করা যায়।রমের আরেকটি প্রধান উদ্দেশ্য হলো কম্পিউটারের ফার্মওয়্যার সফটওয়্যার আপডেট করা।

হার্ড ড্রাইভ

হার্ড ড্রাইভকে (Hard Drive) সেকেন্ডারি স্টোরেজ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। হার্ড ড্রাইভ একটি স্টোরেজ ডিভাইস যা স্থায়ী এবং অস্থায়ী ডেটা সংরক্ষণ করে থাকে। হার্ড ড্রাইভ বাহ্যিক বা অভ্যন্তরীণ দুটোই হতে পারে। হার্ড ড্রাইভে সংরক্ষিত সবকিছু তার ফাইলের আকার অনুযায়ী পরিমাপ করা হয়। একটি হার্ড ড্রাইভ মেগাবাইট (এমবি), গিগাবাইট (জিবি) এবং টেরাবাইট (টিবি) এর পরিপ্রেক্ষিতে ডিজিটাল ফাইলের আকার নির্ধারণ করে।

প্রধানত দুটি ভিন্ন ধরণের হার্ড ড্রাইভ রয়েছে। যেমনঃ-

১) হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ (HDD)

২)সলিড-স্টেট ড্রাইভ (SSD)

  •  হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ (HDD): হার্ডডিস্ক এর ড্রাইভগুলি স্পিনিং ম্যাগনেটিক ডিস্কের উপর বাইনারি ডেটা লেখার মাধ্যমে কাজ করে। যাকে বলা হয় প্লেটার যা উচ্চ গতিতে ঘোরে এর মাধ্যমে এটি ডাটা সংগ্রহ করে।
  • সলিড-স্টেট ড্রাইভ (SSD): এটি বর্তমানে আধুনিক স্টোরেজ হিসেবে পরিচিত। এর ডাটা সংরক্ষণ পদ্ধতিটি খুব সহজ। এটি স্ট্যাটিক ফ্ল্যাশ মেমরি চিপ ব্যবহার করে ডেটা সঞ্চয় করে।

ব্যবহার

নিম্নে হার্ড ড্রাইভ এর ব্যবহার সম্পর্কে আলোচনা করা হলঃ-

  • হার্ড ড্রাইভ এর মূল কাজ হলো  ডিজিটাল ডেটাগুলোকে সংরক্ষণ করা।
  • আপনার  ছবি, সঙ্গীত, ভিডিও, প্রোগ্রাম, অ্যাপ্লিকেশন,, এবং অপারেটিং সিস্টেম একটি হার্ড ড্রাইভে সংরক্ষিত থাকে।

হার্ড ড্রাইভ এর গুরুত্ব

হার্ড ড্রাইভ কম্পিউটারের খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। হার্ড ড্রাইভ হল যেখানে একটি কম্পিউটিং ডিভাইস দীর্ঘমেয়াদী ডেটাকে সংরক্ষণ করা। শুধু আপনার সংরক্ষণ করা ডেটা গুলি নয়, অপারেটিং সিস্টেমের জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত কোড, ফ্রেমওয়ার্ক ব্রাউজারগুলি ইন্টারনেট অ্যাক্সেস করার যাবতীয় তথ্য হার্ড ড্রাইভ সংগ্রহ করে থাকে। প্রতিটি হার্ড ড্রাইভের একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ জায়গা থাকে। সেই স্থানটির কিছু স্বয়ংক্রিয়ভাবে এবং ব্যাকআপ ইনস্টলেশন দ্বারা ব্যবহার করা হয়।

হার্ডওয়্যারের যত্ন

এই যুগে এসে প্রযুক্তির প্রভাব অস্বীকার করা খুবই কঠিন। আমরা এমন এক যুগে বাস করছি যেখানে পুরো পৃথিবীটা কম্পিউটারাইজড। মানবজাতি যে সমস্ত প্রযুক্তিগত অগ্রগতি অর্জন করেছে তার মধ্যে কম্পিউটার একটি। কেউই অস্বীকার করতে পারে না যে কম্পিউটার আমাদের জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। তাই কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার গুলোকে যত্ন নেয়া  অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

সহজভাবে যদি বলি আপনি কম্পিউটারের হার্ডওয়্যারের যত্ন নিতে জানেন এবং কম্পিউটারের জন্য প্রতিটি কাজ বুঝতে পারেন  তাহলে তাহলে কম্পিউটারে কোন সমস্যা হলে তা আপনার জন্য বুঝতে সহজ হবে। তাই বেসিক কম্পিউটারের সমস্যা সমাধানের বিষয়ে জ্ঞানী হওয়ার জন্য আপনাকে কম্পিউটার হার্ডওয়্যার সম্পর্কে জ্ঞানী হতে হবে বা ধারণা থাকতে হবে। উদাহরণসরুপ, আপনি যদি আপনার কম্পিউটারটিকে আপগ্রেড করতে চান তাহলে আপনার কম্পিউটার এর বর্তমান হার্ডওয়্যার সম্পর্ক জেনে নিতে হবে। সেই অনুযায়ী আপনার কম্পিউটারকে আপগ্রেড করতে হবে।  তা না হলে আপনার কম্পিউটার সঠিক ভাবে কাজ করবে না।

পরিশেষে

একটি কম্পিউটারকে যদি দীর্ঘদিন কোন যত্ন করা না হয় তাহলে সেখানে ধুলো এবং ধ্বংসাবশেষ জমা হতে পারে। যার ফলে হার্ডওয়্যারগুলি কর্মক্ষমতা হারাতে পারে। এতে আপনার কম্পিউটার অনেক স্লো কাজ করতে পারে। তাই আপনাকে বছরে একবার হলেও কম্পিউটার সার্ভিসিং করাতে হবে যাতে সরঞ্জাম গুলো ভাল থাকে। যদি আপনি কম্পিউটারকে অ্যান্টিভাইরাস আপডেট না দেন তবে আপনার কম্পিউটার ভাইরাস বা ম্যালওয়ার দ্বারা সংক্রমিত হতে পারে। তাই আপনাকে অ্যান্টিভাইরাস আপডেট করতে হবে। তাহলে আপনার কম্পিউটার এর ইনপুট হার্ডওয়্যারগুলি ভাল থাকবে। আপনাকে চেষ্টা করতে হবে সব সময় পরিস্কার রাখা হার্ডওয়্যারগুলোকে। আপনি অনেক টাকা দিয়ে কম্পিউটার টাকা কিনতে পারেন কিন্তু নিয়মিত পিসির হার্ডওয়্যার ক্ষণাবেক্ষণ ছাড়া আপনি আপনার কম্পিউটারের ভাল পারফরমেন্স কখনই পাবেন না।

বিঃদ্রঃ এই ব্লগের প্রত্যেকটা ব্লগ পোস্ট Sylhetism ব্লগের নিজস্ব ডিজিটাল সম্পদ। কেউ ব্লগের কোন পোস্ট কিংবা আংশিক অংশ ব্লগের কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কপি পেস্ট করে অন্য কোথাও প্রকাশ করলে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা করার অধিকার রাখে। এবং অবশ্যই কপিরাইট ক্লাইম করে যে মাধ্যমে এই ব্লগের পোস্ট প্রকাশ করা হবে সেখানেও অভিযোগ সাবমিট করা হবে।

Author

Leave a Comment

Your email address will not be published.

You cannot copy content of this page