লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা

লেবু উপকারিতা কি? জেনে নিন লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা

খাবারে লেবু একটি স্বাদযুক্ত উপাদান হিসাবে ব্যবহৃত হয়। লেবুর রস ওষুধ তৈরিতেও ব্যবহৃত হয়। সাধারণ ঠান্ডা, ভিটামিন সি -এর ঘাটতি (স্কার্ভি), স্কিনকেয়ার, মর্নিং সিকনেস এবং আরও অনেক ধরনের রোগের ঔষধ হিসেবে লেবু ব্যবহার করা হয়ে থাকে। লেবুর রসে প্রায়  সাইট্রিক অ্যাসিডের মাত্রা ৫ শতাংশ বা তার বেশি হয়ে থাকে। যা ভিটামিন সি এর ঘাটতি পুরনে সহায়তা করে থাকে।  এটি স্পেন এবং উত্তর আফ্রিকায় ১০০০ এবং ১২০০ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে প্রথম প্রবর্তিত হয়েছিল। সর্ব প্রথম ফিলিস্তিনে এটি দেখা গিয়েছিল। ১৪৯৪ সালের দিকে প্রথম বারের মত লেবু ফল চাষ করা হয়েছিল। মূলত সর্ব প্রথম ইংল্যান্ডে পাঠানো হয়েছিল। এটি গুল্ম বা একটি ছোট গাছ যা ৩-৬ মিটার (১২-২০ ফুট) উঁচু হয়ে থাকে। এটি গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং উপ -ক্রান্তীয় দেশে সীমিত পরিমাণে জন্মে।

Table of Contents

লেবুর উপকারিতা

লেবুতে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকার কারনে আমাদের শরীরএ কোষ এর ক্ষতি রোধ করতে সাহায্য করে। লেবুর পুষ্টিগুন রোগ প্রতিরোধে এবং সুস্থতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করতে পারে। এখানে লেবু খাওয়ার কিছু উপকারিতা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়

  • ২০১২ সালের একটি গবেষণায় থেকে দেখা গেছে, সাইট্রাস ফল মহিলাদের ক্ষেত্রে স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। ১৪ বছরেরও বেশি সময় ধরে প্রায় ৭০,০০০ তথ্যের একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে যারা সবচেয়ে বেশি সাইট্রাস ফল খেয়েছে তাদের মধ্যে স্ট্রোকের ঝুঁকি ১৯% কম ছিল।
  •  ২০১৯ সালের জনসংখ্যার একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে যারা নিয়মিত সাইট্রাস ধরনের খাবার গ্রহন করেছে তাদের ক্যান্সার এবং কার্ডিওভাসকুলার রোগ থেকে রক্ষা পেয়েছে।
লেবু
লেবু

ক্যান্সার প্রতিরোধ

  • লেবু এবং লেবুর রস অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভিটামিন সি এর চমৎকার উৎস।
  • অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট  কোষের ক্ষতি রোধ  করতে সক্ষম। যা আমাদের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। যাইহোক, তবে  কিভাবে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে তা অস্পষ্ট রয়ে গেছে।

হাঁপানি প্রতিরোধ

  • হাঁপানিতে আক্রান্ত ব্যক্তিরা যারা সর্দি -কাশিতে ভুগেন তারা যদি বেশি পরিমাণে ভিটামিন সি এবং অন্যান্য পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করেন তাহলে হাঁপানি সক্রমণ অনেক কম হবে বলে ধারণা করা যায়।
  • বিজ্ঞানিরা প্রমাণ পেয়েছেন যে ভিটামিন সি ব্রঙ্কিয়াল হাইপারসেনসিটিভিটিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদেরও উপকার করে থাকে।

শরীরে আয়রনের বৃদ্ধি

  • আয়রনের ঘাটতি রক্তাল্পতার একটি প্রধান কারণ। আয়রন সমৃদ্ধ খাবারের সাথে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার যুক্ত করা গেলে আয়রনের ঘাটতি থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।
  • ভিটামিন সি এর একটি উচ্চ পরিমাণে আয়রনের পরিপূরক গ্রহণকারী খাবার হিসেবে পরিচিত।  পালং শাক এর সাথে সামান্য লেবুর রস চেপে খেলে আয়রন এবং ভিটামিন সি উভয়ই গ্রহণ করা যায়।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি

  • ভিটামিন সি এবং অন্যান্য অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাবারগুলি সাধারণ ঠান্ডা এবং ফ্লু সৃষ্টিকারী জীবাণুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে সাহায্য করে।
  • একটি পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ভিটামিন সি  সর্দি -কাশির প্রকোপ কমায় না, কিন্তু তারা ঠান্ডা স্থায়ী হওয়ার সময়কাল কমাতে সাহায্য করতে পারে।
  •  ভিটামিন সি এমন ব্যক্তিদের মধ্যেও শারীরিক সক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে যারা শারীরিক ভাবে অনেক দুর্বল। এক গ্লাস গরম পানিতে এক চামচ মধু দিয়ে এবং এর মধ্যে লেবু চেপে খেলে কাশি বা সর্দিতে আক্রান্ত ব্যক্তির জন্য স্বস্তিদায়ক পানীয় তৈরি হয়।

ওজন হ্রাস

  • ২০০৮ সালের একটি বিশ্বস্ত গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব ব্যাক্তি ১২ সপ্তাহ ধরে উচ্চ চর্বিযুক্ত খাবার গ্রহণ করছে তাদের তুলনামুলক ওজন অনেক বেড়ে গিয়েছে। আর যারা চর্বিযুক্ত খাবার খাচ্ছে কিন্তু তার সাথে লেবু গ্রহন করছে তাদের ওজন তুলনামুলক ভাবে অনেক কম।
  • ২০১৬ সালে বডি মাস ইনডেক্স এই সংস্থাটির একটি গবেষনায় ৮৪ জন কোরিয়ান মহিলাকে ৭ দিনের জন্য তাদের লেবু ডিটক্স ডায়েট অনুসরণ করতে বলা হয়েছিল। যারা এই ফল ডিটক্স ডায়েট অনুসরণ করেছেন তারা অন্যান্য ডায়েটের তুলনায় ইনসুলিন প্রতিরোধ, শরীরের চর্বি, বিএমআই, শরীরের ওজন এবং কোমর-নিতম্বের অনুপাতের উন্নতি হয়েছে।

আরো পড়ুনঃ ওজন কমানোর উপায়ঃ ওজন বা মেদ কমানোর ২০টি সাইন্টিফিক উপায়

রক্তচাপ

২০১৪ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে যে জাপানের মহিলারা যারা নিয়মিত হাঁটেন এবং প্রতিদিন এটি খান তাদের রক্তচাপ কম ছিল অন্যান্য দেশের মানুষ এর তুলনায়। লেবু রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে।

লেবু গাছ
লেবু গাছ

খোসার উপকারিতা

লেবু কেবল সুস্বাদু নয়, আপনার স্বাস্থ্য, ত্বক এবং চুলের জন্যও বিস্ময়কর কাজ করে। কিন্তু যদি আপনি রস বের করার পর লেবুর খোসা ফেলে দেওয়ার অভ্যাসে থাকে তাহলে এই অভ্যাস ত্যাগ করুন। আপনি কি জানেন লেবুর খোসায় লেবুর চেয়ে ৫ থেকে ১০ গুণ বেশি ভিটামিন রয়েছে?

লেবুর খোসায় রয়েছে ভিটামিন, খনিজ পদার্থ এবং ফাইবারের মতো ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম এবং ভিটামিন সি, যা আপনার শরীরকে পুষ্টি যোগায়। লেবুর খোসায় কিছু স্বাস্থ্যকর এনজাইম রয়েছে, যা আমাদের স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করতে সাহায্য করে। সুতরাং, লেবুর খোসা ফেলে দিয়ে, আপনি আপনার শরীরের একটি বড় ক্ষতি করছেন।

নীচে লেবুর খোসার কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপকারিতা এবং উপায়

ক্যান্সার প্রতিরোধ

এটা আশ্চর্যজনক যে ক্যান্সারের প্রতিরোধ ও চিকিৎসায় লেবুর খোসা ব্যবহার করা হয়। এতে রয়েছে সালভেস্ট্রোল কিউ৪০ এবং লিমনিন, যা ক্যান্সার কোষের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাহায্য করে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে চায়ের মধ্যে লেবুর খোসা ব্যবহার করলে ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি রোধ করে। এছাড়াও লেবুর খোসা প্রকৃতিতে ক্ষারীয় হওয়ায় আমাদের শরীরের পিএইচ বজায় রাখতে সাহায্য করে। এই ফল এছাড়াও অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল, ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাকের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে। পিএইচ আমাদের সৌন্দর্য এবং ব্যক্তিগত যত্ন আরো সুন্দর করে তোলে। যখন সরাসরি ত্বকে প্রয়োগ করা হয়, লেবুর খোসা সানস্পটকে হালকা করতে পারে যা স্কিন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।

হাড়ের ক্ষয় প্রতিরোধে

লেবুর খোসায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি এবং ক্যালসিয়াম যার মধ্যে হাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নতিও  বজায় রাখতে সাহায্য করে। এটি প্রদাহজনক পলিআর্থারাইটিস, অস্টিওপোরোসিস এবং রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসের মতো হাড় সম্পর্কিত রোগ প্রতিরোধেও সহায়তা করে।

কোলেস্টেরল কমায়

লেবুর খোসায় পলিফেনল ফ্ল্যাভোনয়েডের উপস্থিতির কারণে এটি আমাদের শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা বজায় রাখতে সহায়ক। লেবুর খোসা  রক্তচাপ ঠিক রাখতে সাহায্য করে। এই সব ছাড়াও, লেবুর খোসা কোলেস্টেরলের মাত্রা বজায় রেখে স্ট্রোক এবং হার্ট অ্যাটাকের মতো হৃদরোগ প্রতিরোধেও সাহায্য করে।

হজমশক্তি বাড়ায়

লেবুর খোসা অন্ত্রের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করে এবং  হজম শক্তি বাড়িয়ে তুলে। ভিটামিন সি শরীরকে সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে।

লেবুর খোসা সংগ্রহ

লেবুর খোসাগুলো শুকিয়ে নিন এবং তারপর সেগুলোকে পুরোপুরি পিষে নিন। এখন আপনি এই পাউডারটি সংরক্ষণ করতে পারেন এবং বিভিন্ন কাজে বিভিন্ন ব্যবহারে লেবুর খোসা কাজে লাগাতে পারেন। আপনি চাইলে এটি আপনার ঘরে তৈরি অ্যান্টি-এজিং ফেসিয়াল টোনার হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ মেডিকেল টেস্টঃ জেনে নিন মেডিকেল টেস্টের যাবতীয় খুঁটিনাটি

লেবু দিয়ে ত্বকের যত্ন

প্রজন্মের পর প্রজন্ম লেবু আমাদের খাদ্যের সাথে সক্রিয়ভাবে রেসিপি হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। লেবুর খাবারের পাশাপাশি ত্বক এবং চুলের জন্য বেশ উপযোগী। লেবুর প্রতিটি অংশ যেমন-এর রস থেকে সজ্জা এবং খোসা থেকে সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য বিচক্ষণতার সাথে ব্যবহার করা যেতে পারে। লেবু আপনার টোনার বা ফেস প্যাক তৈরিতে লেবুর রস কাজে আসে। ত্বককে চাঙ্গা, এক্সফোলিয়েটিং, এবং ত্বককে হালকা করতে লেবু কাজ করে থাকে।  লেবুর রস যথাযথভাবে ব্যবহার করতে পারলে আপনার ত্বককে পুনরুজ্জীবিত করে তুলবে। তবে যদি ভুলভাবে ব্যবহার করা হয় তবে ত্বকের তীব্র প্রতিক্রিয়া হতে পারে যা অ্যালার্জি বা দাগের সৃষ্টি হতে পারে। ঝামেলামুক্ত স্কিনকেয়ারের জন্য লেবুর রসের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হবে কিনা ব্যবহার করার সময় সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত এবং এর সঠিক ব্যবহারের নির্দেশাবলী সম্পর্কে জানতে পড়ুন।

ত্বককে পুনরুজ্জীবিত করে

পরিবেশগত কারণ যেমন- ঘুমের অভাব এবং চাপের কারণে ত্বক অকাল বার্ধক্য এবং নিস্তেজতা অনুভব করতে পারে। লেবুর রসে রয়েছে ভিটামিন সি যা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং ত্বকের সজীবতা ও প্রাণশক্তি ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে।

ত্বক ঝকঝকে – সাইট্রিক অ্যাসিড সহ ভিটামিন সি, দাগ এবং কালো দাগ কমাতে সহায়তা করে। এটি হাঁটু এবং কনুইতে ত্বক উজ্জ্বল করতে সহায়তা করতে পারে।

এক্সফোলিয়েশন -মৃত ত্বক একটি শুষ্ক এবং নিস্তেজ চেহারা দেয়। লেবুতে থাকা সাইট্রিক অ্যাসিড আপনার ত্বকের মৃত কোষ ঝরাতে সাহায্য করে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়।

অ্যান্টি-এজিং প্রভাব – ভিটামিন সি-এর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ক্রিয়া এবং সাইট্রিক এসিডের এক্সফোলিয়েশন ত্বকের আর্দ্রতা, কোমলতা বজায় রাখতে সাহায্য করে এবং মুখের বলিরেখা রোধ করে।

লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা
লেবুর শরবত

লেবুর রসের ব্যবহার

নিম্নলিখিত পদ্ধতিতে লেবুর রস ব্যবহার করা যেতে পারে:

  • সরাসরি প্রয়োগের মাধ্যমে – ত্বক উজ্জ্বল এবং নরম করার জন্য আপনার শরীরের যে কোন স্থানে লেবুর রস লাগান। আপনি আপনার ত্বকের ব্ল্যাকহেডসগুলোকে লেবুর রস আলতো করে ঘষে ব্ল্যাকহেডস দূর করতে পারেন। রাতের বেলায় এটি ব্যবহার করে এবং সকালে ঠান্ডা পানিতে ধুয়ে ফেললে ব্ল্যাকহেডস শেষ পর্যন্ত আর থাকে নাহ, যদি আপনি আপনি এটি নিয়মিত ব্যবহার করতে পারেন। সেন্সেটিভ ত্বকের লোকদের দয়া করে এড়িয়ে চলুন!
  • ফেস প্যাক হিসেবে – শুষ্ক ত্বককে  ময়েশ্চারাইজ করার জন্য ২ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল, মধু এবং লেবু মিশিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করুন এবং এটি ত্বকের শুষ্ক অঞ্চলে প্রয়োগ করুন। এটি ১০ ​​মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপরে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। অ্যান্টি-রিংকেল ফেস প্যাকের জন্য মধু, লেবুর রসের ফোঁটা এবং বাদামের তেল মিশিয়ে মুখে লাগান ২০ মিনিট পর্যন্ত লাগিয়ে রাখুন। এটি শুকিয়ে গেলেধুয়ে ফেলুন।
  • টোনার হিসেবে – তৈলাক্ত ত্বকের জন্য লেবুর রস, পানি, হেজেল মিশ্রিত করুন, এবং তারপর এটি তুলো দিয়ে ত্বকে ঘষুন এবং ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
  • এক্সফোলিয়েটর হিসাবে – সাপ্তাহিক ভিত্তিতে একটি রুটিন অনুসরণ করুন; একটি কাটা লেবু চিনিতে ডুবিয়ে কয়েক মিনিটের জন্য আপনার মুখে ঘষুন। এটি আপনার ত্বককে এক্সফোলিয়েট করবে।

শরবতের উপকারিতা

লেবু একটি জনপ্রিয় ফল যা মানুষ খাদ্য স্বাদ যোগ করতে অল্প পরিমাণে ব্যবহার করে। এটিতে ভিটামিন সি’য়ের একটি ভাল উৎস। একট  গ্রাম  লেবু ৩০ মিলিগ্রাম  ভিটামিন সি সরবরাহ করতে পারে। লেবু ভিটামিন সি এবং ফ্ল্যাভোনয়েড একটি চমৎকার উৎস, যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উৎপন্ন করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বিনামূল্যে রডিক্যাল অপসারণ করতে সাহায্য করে যা শরীর থেকে কোষ ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।

লেবুর দ্বিপদী নাম হল Citrus limon এবং এর বৈজ্ঞানিক নাম Citrus C.limon ।

আজকে আমরা ৫ প্রকারের লেবুর শরবত ও এর রেসিপি নিয়ে আলোচনা করব।

আদা পুদিনার লেবুর শরবত

প্রথমে একটি ব্লেন্ডার জগে পরিমাণ মত এক কাপ নরমাল পানি দিতে হবে। সাথে ১ চা চামচ আদা কুঁচি দিতে হবে। পুদিনা পাতা ১০-১২ টা। লেবর রস ২ টেবিল চামচ পরিমাণ। চিনি দিতে হবে তিন টেবিল চামচ পরিমাণ। ১ চা চামচ বিট লবন এবং সামান্য একটু নরমাল লবন। এরপর সব একসাথে ব্লেন্ড করত হবে। তারপরই পান করার জন্য প্রস্তুত হয়ে গেল আদা পুদিনার লেবুর শরবত।

শসা লেবুর শরবত

প্রথমে একটি শসা নিতে হবে। তারপর এর ছোট ছোট কিউব টুকরো করে কেটে সাথে এক কাপ পরিমাণ নরমাল পানি নিয়ে ব্লেন্ড করতে হবে। ব্লেন্ড করা হয়ে গেলে সম্পূর্ণ সসার রসটুকু ছেঁকে নিয়ে একটি গ্লাসে ঢেলে নিতে হবে। এর পর এর সাথে হাফ কাপ পরিমাণ নরমাল পানি যোগ করতে হবে। সাথে দিতে হবে ৩ টেবিল চামচ পরিমাণ চিনি আর দেড় টেবিল চামচ পরিমাণ লেবুর রস।  সবশেষে মিশাতে হবে ১ চা চামচ বিট লবন এবং সামান্য একটু নরমাল লবন। এরপর একটা চামচ দিয়ে সব উপকরন মিশালে হয়ে যাবে শসা লেবুর শরবত। এই শরবতটি অনেক উপকারি। বাসায় চেস্টা করে দেখতে পারেন।

রূহ-আফজা লেবুর শরবত

প্রথমে একটি গ্লাসে পরিমাণ পানিতে দেড় কাপ নরমাল পানি নিতে হবে। সাথে ৩ চা  চামচ পরিমাণ চিনি, দেড় টেবিল চামচ পরিমাণ লেবুর রস, এক চা চামচ পরিমাণ রূহ আফজা, আর সেই সাথে সামান্য কিছু পরিমাণ খাবার লবন দিতে হবে। এরপর একটা চামচ দিয়ে সব উপকরন মিশালে হয়ে যাবে রূহ-আফজা লেবুর শরবত।

ট্যাং লেবুর শরবত

প্রথমে একটি গ্লাসেপরিমাণ মত দেড় কাপ নরমাল পানি নিতে হবে। এর পর এর সাথে ৩  চামচ পরিমাণ চিনি,  দেড় টেবিল চামচ পরিমাণ লেবুর রস, এক টেবিল চামচ পরিমাণ ট্যাং পাউডার, আর সেই সাথে সামান্য পরিমাণ খাবার লবন মিশাতে হবে। এরপর একটা চামচ দিয়ে সব উপকরন মিশালে হয়ে যাবে ট্যাং লেবুর শরবত।

ইসুবগুলের লেবুর শরবত

প্রথমে একটি গ্লাসে পরিমাণ দেড় কাপ নরমাল পানি নিতে হবে। এর পর এর সাথে ৩ চা চামচ পরিমাণ চিনি,  এক চা চামচ পরিমাণ ইসুবগুল, দেড় টেবিল চামচ পরিমাণ লেবুর রস, আর সেই সাথে সামান্য পরিমাণ খাবার লবন মিশাতে হবে। এরপর একটা চামচ দিয়ে সব উপকরন মিশালে হয়ে যাবে ইসুবগুলের লেবুর শরবত।

লেবুর শরবত আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী। এটি আমাদের শরীরে সাইট্রিক এসিডের যোগান দেয়। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এক গ্লাস লেবুর রস শরীরের জন্য খুবই উপকারী।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় কি খাবেন? কি কি খাবেন না? জেনে নিন গর্ভাবস্থায় ১০ মাস গর্ভবতী মায়ের খাবার।

লেবুর অপকারিতা

লেবু একটি নিরাপদ খাদ্য। তবে লেবুর অনেক উপকারের এবং গুনাগুনের পাশাপাশি এর কিছু ক্ষতিকর দিকও রয়েছে। নিম্নে লেবুর ক্ষতিকর দিক গুলো  নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

আপনার মুখে লেবু ব্যবহারের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া এবং সতর্কতা

লেবু ত্বকের উপকারের চেয়ে অপকার হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি থাকে। যা হোম স্কিনকেয়ারের জন্য এটি একটি ঝুঁকিপূর্ণ।  আপনার যদি সংবেদনশীল ত্বক থাকে বা আপনি লেবু লাগানোর পরে সূর্যের দিকে মুখ দিয়ে রাখেন তাহলে আপনার স্কিনের অনেক ক্ষতি হতে পারে।


6 Scary Side Effects of Lemon Water

চামড়া জ্বালা

লেবু অত্যন্ত অম্লীয়, যা আপনার ত্বকে জ্বালাপোড়া করতে পারে। আপনার  ত্বক যদি সেনসেটিভ হয় তাহলে  ত্বকে লেবু ব্যবহারে আপনার চামড়া জালা পোড়া করতে পারে। যাদের ত্বক সেনসেটিভ বা  সংবেদনশীল এই সমস্ত লোকদের  ত্বক লেবুর প্রয়োগ থেকে দূরে থাকা উচিত।

রোদে পোড়া

সাইট্রাস ফলগুলি প্রয়োগ করা আপনার ত্বক রোদে পোড়ার ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে। সরাসরি সূর্যের আলোতে বাইরে যাওয়ার আগে কখনও লেবু লাগাবেন না ত্বকে।

হাড় ক্ষয়

কিছু গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত লেবুর রস আমাদের শরীরের হাড় ক্ষয়েও ভূমিকা রাখে। লেবু ধীরে ধীরে হাড়ের জয়ন্টগুল রস বা তেল শোষণ করে ফেলে, যার ফলে হাড় ক্ষয় হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

প্রতিদিন লেবু খাওয়ার অসুবিধা

লেবু খুবই উপকারী এবং খুব কম ক্ষেত্রেই এটি আমাদের শরীরে ক্ষতি করে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, লেবুর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি খুব বেশি লেবুর রস থাকার কারণে ঘটে। এখানে প্রতিদিন লেবুর রস পান করার কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে

দাঁতের ক্ষতি

গরম পানিতে লেবুর রস যোগ করে ব্যবহার করা খানিকটা ক্ষতিকর। এর কারণ হল লেবু অত্যন্ত অম্লীয় এবং ঘন ঘন ব্যবহার আপনার দাঁতের এনামেল ক্ষয় করতে পারে। অতএব, দীর্ঘদিন ধরে প্রতিদিন লেবুর পানি পান করা খুব একটা ভালো নয়। আপনার দাঁতের ক্ষতি হতে পারে।

ঘন ঘন প্রস্রাব এবং পানিশূন্যতা

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, আপনার পানিতে প্রচুর পরিমাণে লেবুর রস যোগ করা হলে মূত্রবর্ধক প্রভাব ফেলতে পারে। যাইহোক, খুব কম ক্ষেত্রেই লেবুর রস আপনার মূত্রবর্ধক প্রভাব তৈরি করবে। গবেষণা অনুযায়ী, লেবুর রসে অ্যাসকরবিক এসিড বা ভিটামিন সি বেশি। যার কারনে আপনার ঘন ঘন  প্রস্রাব হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । অতিরিক্ত লেবু গ্রহণ কিডনিতে প্রস্রাব উত্পাদনে উৎসাহিত করে, তারপর আপনার শরীরকে অতিরিক্ত লবণ এবং তরল থেকে দ্রুত মুক্তি পেতে ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়াতে উৎসাহিত করে।

এটা আপনার পেট খারাপ করতে পারে

অন্য সব কিছুর মতো, অত্যধিক লেবুর রস ক্ষতিকর। যদিও গবেষণায় নিশ্চিত হওয়া যায়নি যে লেবুর অম্লীয় প্রকৃতি পেট-সংক্রান্ত জটিলতা লেবুর  মাধ্যমেই হয় কিনা। তবে অতিরিক্ত পরিমানে লেবুর রস গ্রহন করবেন নাহ।

আয়রন কন্টেন্ট বাড়াতে পারে

লেবু ভিটামিন সি সমৃদ্ধ যা শরীরে নন-হেম আয়রন অনেক বেশি মাত্রায় বৃদ্ধি করার জন্য  দায়ী। যদি আপনি লেবু অতিমাত্রায় গ্রহণ করেন তাহলে আপনার শরীরে আয়রনের মাত্রা বেড়ে যাবে। লেবু নেওয়ার সময় আপনার আরো সতর্ক হতে হবে। গবেষণা অনুযায়ী, শরীরে অতিরিক্ত আয়রন আপনার অঙ্গগুলির ক্ষতি করতে পারে।

লেবুর প্রয়োজনীতা

কেনাকাটা করার সময় অন্যান্য ফলের তুলনায় এটি একটি ক্ষুদ্রতম ফল। ক্ষুদ্রতম ফল হওয়া সত্তেও এর গুনাগুন অন্যান্য ফলের তুলনায় অনেক বেশি। যা বেশিরভাগ লোকেরা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ মনে করে না বা এর গুনাগুন সম্পর্কে জানে না। যখন লেবুর কথা আসে তখন আমাদের মনের মধ্যে প্রথম জিনিসটি আসে সেটি হচ্ছে  ভিটামিন সি। আমরা জানি শুধু ভিটামিন সি রয়েছে এর মধ্যে। কিন্তু আরও অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে যা বেশিরভাগ মানুষই জানেন না। ভিটামিন সি বৃদ্ধির পাশাপাশি এটিতে ফাইবার, ক্যালসিয়াম, থায়ামিন, প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড, ফোলেট, ম্যাগনেসিয়াম এর গুণ রয়েছে। তাই প্রতিদিন কমপক্ষে একটি করে লেবু খাওয়া দরকার!

বিঃদ্রঃ  এই ব্লগের প্রত্যেকটা ব্লগ পোস্ট Sylhetism ব্লগের নিজস্ব ডিজিটাল সম্পদ। কেউ ব্লগের কোন পোস্ট কিংবা আংশিক অংশ ব্লগের কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কপি পেস্ট করে অন্য কোথাও প্রকাশ করলে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা করার অধিকার রাখে। এবং অবশ্যই কপিরাইট ক্লাইম করে যে মাধ্যমে এই ব্লগের পোস্ট প্রকাশ করা হবে সেখানেও কমপ্লেইন করা হবে।

এই ব্লগের কোন লেখায় তথ্যগত কোন ভুল থাকলে আমাদের Contact পেইজে সরাসরি যোগাযোগ করুন, আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তথ্য যাচাই করে লেখা আপডেট করে দিবো।

এই ব্লগের কোন স্বাস্থ বিষয়ক পোস্টের পরামর্শ নিজের বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করার আগে অবশ্যই বিশেষজ্ঞদের মতামত নিবেন, আমরা স্বাস্থ বিষয়ে কোন বিশেষজ্ঞ না, আমাদের উদ্দেশ্য ও লক্ষ হচ্ছে সঠিক তথ্য পরিবেশন করা। সুতারাং কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার দায়ভার অবশ্যই আমরা নিবো না।

ধন্যবাদ, ব্লগ কর্তৃপক্ষ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

You cannot copy content of this page