ব্রণ কি? জেনে নিন মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করার উপায়

ব্রণ দূর করার উপায়

ত্বকের বিভিন্ন সমস্যার মধ্যে অন্যতম একটি সমস্যা হলো ব্রণ। বয়ঃসন্ধিকালের শুরুতে, বাইরের ধুলাবালির কারণে, অ্যালার্জি কিংবা হরমোনজনিত সমস্যায় অনেকের মুখেই ব্রণ দেখা দেয়। ব্রণকে ত্বকের সাধারণ সমস্যাগুলোর কাতারে ফেলা হলেও মুখের ছোট ছোট ব্রণগুলো মেয়েদের ত্বকের প্রধান তিনটা সমস্যার মধ্যে অন্যতম। ব্রণের ইতিহাস অনেক পুরোনো, গ্রীক চিকিৎসক অ্যারিস্টটল এবং হিপোক্রেটিস ব্রণ বর্ণনা করতে গ্রীক শব্দ “ionthoi” এবং “varus” ব্যবহার করেছেন বলে প্রমাণ আছে। এমনকি প্রাচীন মিশরের চিকিৎসকরাও ব্রণ নিয়ে চিন্তিত ছিলেন। যাইহোক, আজকের লেখায় আলোচনা করবো মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করার উপায় সম্পর্কে, যেগুলো সম্পর্কে জানলে সবাই বাড়িতে বসেই খুব সহজে এ ব্রণগুলোর প্রকোপ থেকে রেহাই পেতে পারবেন। 

ব্রণ কি এবং কেন হয়

মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করার উপায় সম্পর্কে জানার আগে চলুন শুরুতেই জেনে আসা যাক ব্রণ কি। বিশেষজ্ঞরা ব্রণকে ত্বকের ক্রোনিক সমস্যা বলে আখ্যায়িত করে থাকেন। ক্রোনিক সমস্যা হলো সেসব সমস্যা যেগুলো দীর্ঘস্থায়ী প্রকৃতির হয়। 


ব্রণ

ব্রণকে ইংরেজি ভাষায় একনি  (acne ) বলা হয়। মানুষের মুখে, গলায়, পিঠেসহ দেহের যেকোনো অংশেই ব্রণ হতে পারে। তবে সাধারণত মুখেই ব্রণ বেশি হয়। ব্রণ দেখতে যেমন ফুসকুড়ির মতো ছোট আকারের হয়, তেমন বড় বা মাঝারি ফোঁড়ার আকারেরও হতে পারে৷ ব্রণের ভেতরে অনেক সময় পুঁজও হয়। ব্রণ হলে সে স্থানে চুলকানি ও জ্বালাপোড়া করতে পারে, আবার অনেক সময় এগুলোর কিছুই হয়না। ব্রণের রং লালচে অথবা ত্বকের রংয়ের হয়। 

ব্রণ কি সেটি আরেকটু বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করছি। আমাদের সবার ত্বকে অসংখ্য ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ছিদ্র বিদ্যমান রয়েছে। এ ছিদ্রগুলোকে ইংরেজিতে পোরস এবং বাংলায় লোপকূপ বলা হয়। অনেক সময় বিভিন্ন কারণে যেমনঃ বাইরের ধুলাবালি, বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া, ত্বকে উৎপন্ন তেল বা মৃতকোষ দ্বারা এ লোপকূপগুলো বন্ধ হয়ে যায়। লোপকূপ বন্ধ হওয়ার প্রতিক্রিয়া হিসেবে সেসময় ত্বকে যে লালচে কিংবা ত্বকের রংয়ের ছোট-বড় ফুসকুড়িগুলো দেখা দেয় সেগুলোই মূলত ব্রণ।

এবার ত্বকে কিভাবে তেল উৎপন্ন হয় সেটি নিয়ে একটু বলা যাক। মানবদেহে সিবাসিয়াস নামের গ্রন্থি রয়েছে যা ত্বকের নিচে অবস্থান করে। এ বিশেষ গ্রন্থির কাজ হলো সিবাম নামের তেল উৎপন্ন করে ত্বককে মসৃণ রাখতে সহায়তা করা। তবে যদি কোন কারণে ত্বকে প্রয়োজনের চাইতে অধিক পরিমাণে সিবাম তৈরি হওয়া শুরু করে, তখন এর বিরূপ প্রতিক্রিয়া হিসেবে ত্বকে ছোট ছোট র‍্যাশ বা ফোঁড়া দেখা যায়। এটিকেও ডাক্তাররা ব্রণ বলে থাকেন। 

কথায় আছে, কারণ না জানলে কোনো সমস্যাই নাকি সমাধান করা যায়না। এ কথাটি ব্রণ দূর করার ক্ষেত্রেও সমানভাবে প্রযোজ্য। মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করার উপায় তখনই কাজে লাগাতে পারবেন যখন এই ব্রণ হওয়ার পেছনের কারণগুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন। 

আরো পড়ুনঃ মেছতা কি? মেছতা কেন হয়? মেছতা দূর করার উপায়

ব্রণ হওয়ার কারণ

মুখে ব্রণ হওয়ার অন্যতম কারণ হলো ধুলাবালি
মুখে ব্রণ হওয়ার অন্যতম কারণ হলো ধুলাবালি
  • মুখে ব্রণ হওয়ার অন্যতম কারণ হলো ধুলাবালি। বাইরের ধুলাবালি আমাদের ত্বকের পোরস বা লোপকূপগুলো বন্ধ করে দেয়। যা পরবর্তীতে ব্রণের সৃষ্টি করে। 
  • যদি প্রতিদিনের খাদ্যাভ্যাসে তেল-চর্বি-ভাজাপোড়া বা মশলাজাতীয় খাবার বেশি থাকে, তাহলে সেগুলো মুখে ছোট ছোট ব্রণের সৃষ্টি করে। 
  • অনিদ্রা মুখে ব্রণ হওয়ার অন্যতম কারণ। যদি রাতে  সময়মত না ঘুমানো হয় এবং অনেকক্ষণ জেগে থাকা হয়, তাহলে আমাদের ত্বকের যেটুকু বিশ্রাম প্রয়োজন তা পাওয়া সম্ভব হয়না। যে কারণে পরবর্তীতে মুখে ছোট ছোট ব্রণ দেখা দিতে পারে। 
  • স্ট্রেস কিংবা দুঃশ্চিন্তার কারণে মুখে ব্রণ হতে পারে। 
  • ত্বকের ধরণ বুঝে যদি স্কিনকেয়ার এবং কসমেটিকস ব্যবহার না করা হয়, তাহলে সে সময় মুখে ব্রণ ওঠে। এক্ষেত্রে ত্বক জ্বালাপোড়াও করে থাকে।
  • বিভিন্ন হরমোনজনিত সমস্যা ব্রণ ওঠার পেছনের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কারণ। 

মূলত এসব কারণেই মুখে ব্রণ হয়ে থাকে। এছাড়া অনেকেই জিনগতভাবেও ব্রণের সমস্যায় ভুগে থাকেন। তবে যে কারণেই ব্রণ হয়ে থাকুকনা কেন, এটি দূর করার উপায় সম্পর্কে সবাইকে জেনে রাখতে হবে। 

ব্রণ দূর করার উপায়

মুখে হওয়া ব্রণগুলো নিয়ে অনেকেই হতাশায় ভোগেন। তারা বিভিন্নভাবে চেষ্টা করেন এ ব্রণগুলোকে দূর করার। কিন্তু সঠিক উপায়ের খোঁজ না পাওয়ায় তাদের মুখ থেকে ব্রণের সংখ্যা তো কমেইনা, উল্টো মাঝেমধ্যে বেড়ে যায়। মুখে ছোট ছোট ব্রণ হলে ত্বকের স্বাভাবিক সৌন্দর্য কমে যায়, ত্বকে নিজের ইচ্ছামত কসমেটিকস ব্যবহার করা যায়না এবং নিজের আত্মবিশ্বাস কমে যায়। এসব কারণে এ ব্রণ দূর করা অত্যন্ত জরুরি। তাই চলুন এবার দেরি না করে জেনে আসি মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করার উপায় সম্পর্কে। 

১। ব্রণ দূর করতে বরফের ব্যবহার অত্যন্ত কার্যকর। বরফ এমন একটি উপাদান যেটি আমাদের সবার বাড়ির ফ্রিজেই থাকে। বরফ আমাদের ত্বকের ন্যাচারাল সুদিং এলিমেন্ট হিসেবে কাজ করে। মুখে ব্রণ হলে সে স্থানে বরফ দিয়ে হালকা করে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করলে সেখানকার ত্বকের রক্তনালি সংকুচিত হয়ে যায়, যা ব্রণের আকৃতি ছোট করে ব্রণ দূর করতে সহায়তা করে। 

২। মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করার উপায় নিয়ে বলতে গেলে নিমপাতার ব্যাপারে না বললেই নয়। নিমপাতা আমাদের ত্বকে বিদ্যমান যাবতীয় ব্যাকটেরিয়া ও অন্যান্য জীবাণুর দূর করে। তাই ব্রণের স্থানে নিমপাতার সাথে চন্দনগুঁড়ার মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে মিনিট দশেক রেখে ধুয়ে ফেললে অল্প সময়ের মধ্যেই উপকার পাওয়া সম্ভব হবে৷ 

৩। অ্যালোভেরা জেল মুখের ব্রণ কমাতে ইতিবাচক ভূমিকা রাখে। তাই মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করতে বেছে নিতে পারেন ভালো ব্র‍্যান্ডের কোনো অ্যালোভেরা জেল। তবে অনেকের অ্যালোভেরাতে অ্যালার্জি থাকে। তাই এটি ব্যবহারের পূর্বে ত্বকে প্যাচ টেস্ট করে নিতে ভুলবেননা। 

৪। কাঁচা হলুদ প্রাচীনকাল থেকেই ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা মোকাবেলায় ব্যবহার হয়ে আসছে। ব্রণের সমস্যা দূর করতেও কাঁচা হলুদের জুড়ি মেলা ভার। কাঁচা হলুদ বেটে ব্রণের স্থানে কিছক্ষণ রেখে শুকানোর পরে ধুয়ে ফেলুন, নিশ্চিতভাবে উপকার পাবেন। তবে ভুলেও রান্নার জন্য যে হলুদ ব্যবহার করা হয় সেটি ব্যবহার করতে যাবেননা, এতে হিতে বিপরীত হতে পারে। 

কাঁচা হলুদ
কাঁচা হলুদ

৫। যদি লেবুর রসে কোনোরকম অ্যালার্জি না থাকে, তাহলে ব্রণ দূর করতে পাতিলেবুর রস ত্বকে ব্যবহার করতে পারেন। লেবুর রস মুখের ছোট ছোট ব্রণ দ্রুত কমায়। তবে, এক্ষেত্রে লেবুর রস দশ মিনিটের বেশি ত্বকে রাখবেন না এবং লেবুর রস ব্যবহারের পরপর রোদে যাবেন না। 

৬। মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করার উপায় হিসেবে ত্বকে দুইভাবে পুদিনাপাতা ব্যবহার করতে পারেন। যেমনঃ পুদিনাপাতা বেটে সেটিকে বাড়িতে থাকা বরফের কিউব বানানোর ডাইসে রেখে ডিপফ্রিজে রেখে দিতে পারেন এবং কয়েকঘন্টা পর ত্বকে ম্যাসাজ করে দশ মিনিট রেখে তারপর মুখ ধুয়ে নিতে পারেন। এছাড়াও পুদিনা পাতা বেটে সেই পেস্টও ব্রণের স্থানে ব্যবহার করতে পারেন। 

৭। মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করতে প্রচুর পানি পান করুন৷ পানি কম পান করলে ত্বকে ময়েশ্চারের অভাব হয়, যেকারণে ব্রণ দেখা দেয়। তাই প্রতিদিন অন্তত কয়েক লিটার পানি পান করার চেষ্টা করুন, দেখবেন ধীরে ধীরে ব্রণের সংক্রমণ কমতে শুরু করবে। 

৮। ত্বক সবসময় পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করুন। যেহেতু ধুলাবালি ত্বকে ব্রণের আক্রমণ বহুগুণে বাড়িয়ে দিতে সক্ষম, তাই ধুলাবালি থেকে ত্বককে রক্ষা করতে প্রয়োজন বাড়তি সতর্কতা। প্রতিবার বাইরে থেকে আসার পর একটি ভালো ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। তারপর টোনার ব্যবহার করুন। এতে করে ত্বকে কোনোপ্রকার ধুলাবালি জমতে পারবেনা। 

৯। সূর্যের মধ্যে থাকা অতিবেগুনী রশ্মি আমাদের ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। সূর্যের আলোর নিচে বেশিক্ষণ থাকার ফলে অনেকের মুখে ছোট ছোট ব্রণ দেখা দেয়৷ এ সমস্যা থেকে বাঁচতে বাইরে যাওয়ার পনেরো মিনিট আগে মুখে ভালো ব্র‍্যান্ডের একটি সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন৷ এতে করে বাইরে যাওয়ার পর ত্বক সুরক্ষিত থাকবে এবং ব্রণ হওয়ার সম্ভাবনাও কমে যাবে। 

১০। নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন করুন। অতিরিক্ত তেলে ভাজা খাবার, মশলাযুক্ত খাবার এবং জাংকফুড পরিহার করুন৷ প্রচুর পরিমাণে ফলমূল এবং শাকসবজি খাওয়ার অভ্যাস করুন। রাতে অতিরিক্ত জেগে না জেগে তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে যাওয়ার অভ্যাস করুন। এই ছোট ছোট অভ্যাসগুলো মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করার উপায় হিসেবে খুব কার্যকরী। সবসময় মনে রাখবেন, নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন শুধু ব্রণ দূর করতেই নয়, গোটা দেহকে সুস্থ রাখতে সহায়তা করে।

ব্রণের নমুনা
ব্রণের নমুনা

ব্রণের সমস্যা এড়াতে কিছু বিষয় অবশ্যই মনে রাখবেন 

১। মুখে ব্রণ হলে সেগুলো কখনোই খোঁচাখুঁচি করতে যাবেন না, কেননা খোঁচাখুঁচি করলে ব্রণের সংক্রমণ আরো বেড়ে যায়।  

২। যারা কসমেটিকস ব্যবহার করেন, তারা ডেট এক্সপায়ার্ড হয়ে যাওয়া কসমেটিকস ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন৷ 

৩। মুখে ব্রণ থাকা অবস্থায় ত্বকে কোনো নতুন কসমেটিকস বা স্কিনকেয়ার প্রোডাক্ট ব্যবহার করবেননা। কেননা, ব্রণ থাকলে ত্বক অন্য সময়ের তুলনায় সংবেদনশীল হয়ে থাকে। তাই ত্বকে নতুন কিছু ব্যবহার না করাই ভালো। 

৪। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ত্বকে কোনোপ্রকার মলম ব্যবহার করবেননা। 

৫। ত্বকের অবস্থার যদি উন্নতি না হয়, তাহলে দেরি না করে ডাক্তারের পরামর্শ নিন৷ 

এটুকুই ছিলো ব্রণ কি এবং মুখের ছোট ছোট ব্রণ দূর করার উপায় সম্পর্কে আজকের আলোচনা। আশা করি ব্রণ দূর করার উপায় নিয়ে আজকের পর থেকে আর কাউকে ভাবতে হবেনা। তবে একটি বিষয় মনে রাখবেন, ব্রণের সমস্যা কখনোই একরাতের মধ্যে ঠিক হয়ে যায়না৷ ত্বকের এই সমস্যাটি পুরোপুরি ঠিক হতে সময় লাগে। তাই মুখে ছোট ছোট ব্রণ দেখা দিলে ধৈর্য্য ধরে উপরে উল্লিখিত উপায়গুলো অনুসরণ করতে থাকুন৷ দেখবেন, খুব শীঘ্রই আশানুরূপ ফলাফল পাবেন। 

বিঃদ্রঃ এই ব্লগের প্রত্যেকটা ব্লগ পোস্ট Sylhetism ব্লগের নিজস্ব ডিজিটাল সম্পদ। কেউ ব্লগের কোন পোস্ট কিংবা আংশিক অংশ ব্লগের কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কপি পেস্ট করে অন্য কোথাও প্রকাশ করলে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা করার অধিকার রাখে। এবং অবশ্যই কপিরাইট ক্লাইম করে যে মাধ্যমে এই ব্লগের পোস্ট প্রকাশ করা হবে সেখানেও অভিযোগ সাবমিট করা হবে।

ধন্যবাদ, ব্লগ কর্তৃপক্ষ।

Author

Leave a Comment

Your email address will not be published.

You cannot copy content of this page