চুল ঘন করার উপায়

চুল ঘন করার উপায় কী? স্টেপ বাই স্টেপ গাইডলাইন

প্রত্যেকে স্বাস্থ্যকর, ঘন এবং সুন্দর  চুল চায়। এই প্রচেষ্টায়, আপনি নিশ্চয় তেল থেকে শ্যাম্পু থেকে সিরাম এবং মাস্ক পর্যন্ত এক ডজনেরও বেশি চুলের যত্নের পণ্যগুলিতে বিনিয়োগ করেছেন। কিন্তু আপনি এখনও এমন কোন উপায় খুঁজে পাননি যা আসলে কার্যকর? কীভাবে চুল গজানো যায় এই প্রশ্ন বেশিরভাগ সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞ শুনতে শুনতে ক্লান্ত – কারণ এর সঠিক উত্তর নেই। চুল ঘন করতে আমাদের সাহায্য করবে এমন কিছু করতে (বা কিনতে!) আমরা সবসময় ইচ্ছুক। চলুন আজকে জেনে নেই চুল ঘন করার উপায়’সমূহঃ

ঘন চুল বলতে চুলের ঘনত্ব এবং চুলের ফলিকলের সংখ্যা বোঝায়। মোটা চুল বা ঘন চুল বলতে বোঝায় প্রতিটি চুলের পরিধি। সহজভাবে বলতে গেলে, আপনার পনিটেইলেই বলে দেয় আপনার চুল কত ঘন। মানুষের চুলের গড় পুরুত্ব ০.০০৩-০.০০৫ ইঞ্চি। এই মানদণ্ডের নীচে যে কোনও চুলকে পাতলা চুল হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং এর উপরের চুলকে ঘন চুল হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

চুল পড়ার কারণ

জীবনধারণের অভ্যাস, জেনেটিক্স বা উভয় কারণে আপনার অনবরত চুল পড়তে পারে। মাত্রারিক্ত চুল পড়ার কারণে পাতলা চুল হতে পারে। কিছু নির্দিষ্ট শারীরিক অবস্থার কারণেও আপনার চুল পাতলা হতে পারে। মাথার চুল পাতলা হতে আরম্ভ করার প্রধান কারণগুলি নিচে দেওয়া হলঃ

  • দেহের হরমোনের ভারসাম্যহীনতা দেখা দিলে। গর্ভাবস্থায় বহু মহিলার চুলের প্রকৃতি বদলে যায়। এমনকি যাঁরা পিসিওএসের সমস্যায় ভুগছেন তাদেরও মাথার চুল পাতলা হতে আরম্ভ করে।
  • বিভিন্ন হেয়ারকেয়ার প্রডাক্টের রাসায়নিক প্রতিক্রিয়াস্বরূপ আপনার মাথার চুল পাতলা হতে আরম্ভ করে।
  • থাইরয়েড গ্ল্যান্ড ওভার বা আন্ডারঅ্যাকটিভসমস্যা যদি হওয়ায় তা হলেও আপনার মাথায় চুল পাতলা হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
  • আপনি যদি অনেক বেশি স্ট্রেস নিয়ে থাকেন তাহলে দেখবেন আপনার প্রচুর পরিমাণে চুল পড়বে। 
  • আপনি যদি সঠিক মত সুষম খাবার না খান অর্থাৎ আপনার দেহ যদি ভিটামিন বি’ এবং ভিটামিন ডি জাতীয় পুষ্টি না পারে তাহলে আপনার চুলেরও সমস্যা দেখা দিবে। 

চুল ঘন করার উপায়

এই ব্লগ পোষ্টে আমরা চুল ঘন করার বিভিন্ন উপায় সম্পর্কে আলোচনা করবো, যদি আপনি এই উপয়াগুলা নিয়মিত সঠিকভাবে পালন করেন, তাহলে আমাদের বিশ্বাস আপনি কিছুদিনের মধ্যেই ফল পেতে শুরু করবেন। নিচে যেসব উপায়ে চুল ঘন করবেন তার একটা সংক্ষিপ্ত লিস্ট দেওয়া হলো, যা এই পরের অনুচ্ছেদে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

  • পণ্য
  • তেল
  • চুলের মাস্ক
  • ভেষজ
  • ডায়েটঃ
  • স্পা/সেলুন চিকিৎসা
  • প্রেসক্রিপশন ওষুধ এবং চিকিৎসা।

১। পণ্য

বাজারে অনেক ধরনে পণ্য পাওয়া যায় যেসব পাতলা চুল ঘন করতে সহয়াতা করে, আপনার চুল যদি খুব বেশি পাতলা না হয়, কিং শুধু চুল পরা শুরু করে তাহলে নিচের পণ্যগুলা পাতলা চুল ঘন করতে আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

চুল ঘন করার উপায়
শ্যাম্পু দিয়ে হেয়ার ওয়াশ
শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার 

মোটা চুল চাইলে ঘন বা ভলিউমাইজিং শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার বেছে নিন। বিভিন্ন ধরণের চুলের জন্য নির্দিষ্ট পণ্য প্রয়োজন যা চুলের সঠিক চাহিদা পূরণ করে। কাটলার সেলুনের সিনিয়র স্টাইলিস্ট জেনি বাল্ডিং বলছেন, যাদের সূক্ষ্ম চুলের অধিকারী তারা যেন ভলিউম-বিল্ডিং শ্যাম্পু এবং রেডকেন হাই রাইজ ভলিউমের মতো কন্ডিশনার ব্যবহার করতে পারেন, যাতে পুরুত্ব বৃদ্ধি পায় এবং উজ্জ্বলতা আসে। এই পণ্যগুলিতে এমন উপাদান আছে যা আপনার চুলকে ঘন করবে।

তেল নিয়ন্ত্রণ উপাদানঃ সেবাম উৎপাদন সীমিত করার জন্য যাতে চুল না পড়ে।

পলিমারঃ চুল ফাইবারকে শক্ত করে।

স্টার্চ বা ট্যালকঃ ভলিউম উন্নত করতে।

সার্ফ্যাক্ট্যান্টসঃ কোন ময়লা অবশিষ্টাংশ না রেখে চুলকে পরিষ্কার করা।

এই পণ্যগুলি ব্যবহার করার আগে আপনি তিসি তেল, ভিটামিন ই, উদ্ভিদ এসেন্স, ফলের এসেন্স, জিংক এবং বায়োটিন এসব উপাদান আছে কিনা এসব বিষয় লক্ষ্য করে পণ্যগুলোকে কিনতে পারেন। কিন্তু মনে রাখবেন চুল ঘন করার ব্যাপারে সালফেটগুলি আপনার বন্ধু নয়। সালফেট মিশ্রিত শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার শক্তিশালী ক্লিনজার দিতে পারে যা স্বল্পমেয়াদে আপনার চুলকে নমনীয় এবং উজ্জ্বল করতে পারে কিন্তু এইসব উপাদান আপনার চুলের জন্য দীর্ঘ মেয়াদিতে ক্ষতিকর হয়ে ওঠে। সালফেট ত্বকে জ্বালাপোড়া করতে পারে, মাথার ত্বকের মাইক্রোবায়োমকে ব্যাহত করে প্রদাহ সৃষ্টি করতে পারে। এর ফলে আপনার চুল শুষ্ক রুক্ষ হয়ে উঠবে এবং চুল পড়া বেড়ে যাবে। ক্যালিফোর্নিয়ার সান্তা মনিকার ফ্রেমড সেলুনের স্টাইলিস্ট এবং সহ-মালিক অ্যান্ডি স্কারবোরো বলেন, “শ্যাম্পুতে সালফেট থেকে দূরে থাকা সবসময় একটি ভালো অপশন। এই আক্রমণাত্মক লেদারিং এজেন্টগুলি চুল  শুষ্ক করে ফেলতে পারে এবং চুল থেকে প্রাকৃতিক রঙ এবং প্রাকৃতিক তেল ছিনিয়ে নিয়ে চুলকে ভঙ্গুর করতে পারে।”

চুলের স্প্রে

আপনার চুলের জন্য ভলিউমাইজিং স্প্রে রয়েছে। আপনি আপনার ব্যক্তিগত পছন্দের উপর ভিত্তি করে এই ধরনের পণ্যগুলি বেছে নিতে পারেন যেমন কোন প্রকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ামুক্ত এবং সালফেট-মুক্ত। স্প্রে আপনার পাতলা চুলে টেক্সচার এবং ভলিউম দিয়ে চুলকে ঘন হতে সাহায্য করবে। তারা আর্দ্রতা রোধ করে। এর মধ্যে রয়েছে ভলিউমাইজিং উপাদান যেমনঃ পলিমার, প্যান্থেনল, ভিটামিন ই এবং আরো কিছু চুলের বৃদ্ধি সহায়ক উপাদান।

চুল ঘন করার উপায়
চুল স্প্রে করার নমুনা ফটো
সিরাম

ঘন চুল গজানোর জন্য আপনি সিরাম ব্যবহার করতে পারেন। সিরামে শক্তিশালী উপাদান রয়েছে যা আপনার চুলকে ঘন এবং মজবুত করে তুলতে পারে। ভলিউমাইজিং সিরামে সূর্যমুখীর নির্যাস, ভিটামিন ই, সিরামাইড এবং জোজোবা এবং বাদাম তেলের মতো উদ্ভিদের নির্যাস থাকে।

২। তেল

চুল ঘন করার উপায়’গুলোর মধ্যে তেল হল অন্যতম। অনেক তেল আছে যা আপনার চুল পড়া কমিয়ে চুল ঘন করতে সাহায্য করে, জেনে নিন সেই সব তেল সম্পর্কে যেগুলা পাতলা চুল ঘন করে।

ক্যাস্টর অয়েল

ক্যাস্টর অয়েল থেকে অনেক মানুষ তার দূরত্ব বজায় রাখে। কিন্তু আপনি কি জানেন ক্যাস্টর অয়েল আপনার চুল ঘন করতে পারে? হ্যাঁ, ক্যাস্টর অয়েল ভিটামিন ই এবং ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ। ভিটামিন ই যা চুলের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী একটি উপাদান। ক্যাস্টর অয়েল কোন প্রস্তুতি ছাড়াই চুলে লাগানো সহজ। সহজভাবে, মাথার তালু এবং চুলের উপর তেল ভালোভাবে ম্যসাজ করুন। ধুয়ে ফেলার আগে তেলটি প্রায় 30 মিনিটের জন্য মাথায় রেখে দিন। ক্যাস্টর অয়েল আরেকটি ঘরোয়া পদ্ধতি আপনি ব্যবহার করতে পারেন যে পদ্ধতি আপনার চুলকে ঘন করতে সাহায্য করবে। আপনি চুল ঘন করার কার্যকরী উপায়ের সন্ধান করেন, তাহলে অ্যালোভেরা এবং ক্যাস্টর অয়েলের এই জাদুকরী মিশ্রণটি ব্যবহার করে দেখুন। এই দুটি উপাদানই শুষ্ক চুলের জন্য অনেক উপকারি। অ্যালোভেরা চুলের সুপ্ত ফলিকলকে সক্রিয় করে, চুলের বৃদ্ধি বাড়ায়। এটিতে একটি প্রোটিওলাইটিক এনজাইম রয়েছে, সাথে দস্তা এবং তামার মতো খনিজ পদার্থ রয়েছে। অনেক ফ্যাশন উত্সাহীরা তাদের চুল এক সপ্তাহের মধ্যেই ঘন করতে চান। এই ক্ষেত্রে অ্যালোভেরা এবং ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহার করলে আপনি দ্রুত উপকার  পেতে পারেন। বিশেষ করে, ক্যাস্টর অয়েলের উপাদান ফ্যাটি এসিড এবং ভিটামিন ই চুলের দ্রুত বৃদ্ধিতে কাজ করে। তাছাড়া, এটি ঘনত্বের কারণে চুলের একটি আবরণ তৈরি হয়। এখন আপনি ভাবতে পারেন যে আপনি কিভাবে এটি ব্যবহার করবেন? আপনি প্রথমে এক কাপ অ্যালোভেরা জেলতে 2 টেবিল চামচ ক্যাস্টর অয়েল যোগ করবেন। অতিরিক্ত সুবিধার জন্য, আপনি চাইলে এক চামচ মেথি গুঁড়ো যোগ করতে পারেন। এই মিশ্রণটি চুলে লাগিয়ে ভালোভাবে ম্যাসাজ করুন। আপনি এটি সপ্তাহে একবার ব্যবহার করতে পারেন এবং অবশ্যই একরাত এটিকে রেখে পরের দিন ভালোভাবে মাথা ধুয়ে ফেলতে হবে।  


ক্যাস্টর অয়েল দিয়ে ঘন চুল ফিরে পাওয়ার লাইভ ভিডিও ব্লগ।

অলিভ অয়েল

অলিভ অয়েল আক্ষরিক অর্থে একটি জাদুর বোতল। ফিটনেস পাগলদের জন্য, অলিভ অয়েল তাদের ডায়েটের একটি মুখ্য উপাদান। যাইহোক, যদি আপনি আপনার চুল ঘন করার উপায় সম্পর্কে ভেবে থাকেন তাহলে এই শক্তিশালী যৌগটি এই গোপনীয়তাটিও রাখে। অলিভ অয়েল ওমেগা 3 অ্যাসিড এবং অন্যান্য পুষ্টি সমৃদ্ধ যা চুলের স্বাস্থ্য সহ সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয়। অলিভ অয়েলে থাকা ফ্যাটি অ্যাসিড (মনোস্যাচুরেটেড) চুলের ডগা এবং শিকড়কে শক্তিশালী করে। এটি খুশকি দূর করতেও সাহায্য করে এবং এর ফলে চুল পড়া কমে যায়। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, এটি আপনার মাথার ত্বককে আর্দ্র রাখে। তাই যদি আপনি আপনার চুল ঘন করার জন্য একটি দ্রুত উপায় খুঁজছেন, তাহলে মাথার তালুতে অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে ভুলবেন না। অলিভ অয়েল ব্যবহার করতেঃ শরীরের তাপমাত্রা অনুযায়ী তেলটি গরম নিন। মাথার তালু এবং চুলে বিশেষ করে মাথার শুষ্ক জায়গায় গরম তেলগুলো ভালোভাবে ম্যাসাজ করুন। মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করার ফলে এটি আপনার রক্ত ​​সঞ্চালনকে ঠিক রাখবে। এই প্রক্রিয়ায়, আপনার চুলের ফলিকল ঘন হবে। তেলটি প্রায় ৩০ থেকে ৪৫ মিনিটের জন্য মাথায় দিয়ে রাখুন। হালকা শ্যাম্পু দিয়ে মাথা ধুয়ে ফেলুন। এটি আপনার চুলকে মসৃণ, চকচকে এবং ঘন করে তুলবে। কিছু লোক অলিভ অয়েলের সাথে মধু যুক্ত করে ব্যবহার করার পরামর্শ দেন। এই পদ্ধতিতে আপনি অলিভ অয়েল এর সাথে 2 চামচ মধু যুক্ত করে ভালোভাবে মাথায় মেসেজ করে এক রাতের জন্য রেখে দেবেন। পরেরদিন ভালোভাবে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

নারকেল তেল

আপনি নিশ্চয়ই শুনেছেন যে নারকেল তেল পাতলা চুলের জন্য সবচেয়ে বেশি সুপারিশকৃত প্রাকৃতিক প্রতিকারের একটি উপায়। আপনি যদি প্রাকৃতিকভাবে আপনার চুল ঘন করতে চান, তাহলে নারকেল তেল ব্যবহার করে দেখতে পারেন। আপনি হয়তো ভাবছেন কিভাবে নারকেল তেল আপনার চুল ঘন এবং স্বাস্থ্যকর করে তুলতে পারে। এতে রয়েছে ফ্যাটি অ্যাসিডের যা আপনার চুলের অবস্থার উন্নতি করে। এছাড়া নারকেল তেল ফলিকলসকে হাইড্রেটেড রাখে, শুষ্কতা ও খুশকি দূর করে। যার ফলে, এটি চুলের ক্ষতিকে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে হ্রাস করে। এতে ইউভি ফিল্টার রয়েছে যা আপনার চুলকে সূর্যের রশ্মি দ্বারা সৃষ্ট ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে। আপনি  আপনার গোসলের পূর্বে 2 টেবিল চামচ  নারকেল তেল মাথার চুলে এবং স্ক্যাল্পে ভালোভাবে ম্যাসাজ করে নিবেন। মনে রাখবেন যখন আপনার চুল ভেজা হয়, তখন এটি সবচেয়ে ভঙ্গুর হয়ে থাকে। এমনকি তেলটি যাতে ঠিকমতো চুলে কাজ করে সেজন্য আপনি এটি আগের রাতে বা গোসল করার কয়েক ঘন্টা পূর্বে দিলে বেশি ভালো ফল পাবেন। বিকল্পভাবে, আপনি উষ্ণ নারকেল তেল আপনার মাথার ত্বকে ব্যবহার করতে পারেন। উষ্ণ তেল দিয়ে মাথা ভালোভাবে ম্যাসাজ করুন এরপরে 15 মিনিটের জন্য একটি তয়লা দিয়ে মাথা ঢেকে রাখুন। উষ্ণ তেল আপনার চুলের গোড়া মজবুত এবং চুলকে শক্তিশালী করে তোলে। যার ফলে আপনার চুল পড়া অনেকাংশে কমে যাবে। 


চুল ঘন করার প্রাকৃতিক উপায়

অ্যাভোকাডো এবং নারকেল তেল

নারকেল তেলের সাথে অ্যাভোকাডো ব্যবহার করলে আপনার চুল ঘন ও লম্বা হতে পারে। আপনি যদি পুরুষদের ঘন চুল পাওয়ার উপায় খুঁজছেন, তাহলে আপনাকে এই সমাধানটি ব্যবহার করতে পারেন। অ্যাভোকাডোতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, খনিজ এবং চর্বিযুক্ত উপাদান। এই জন্য আপনাকে তেল আকারে অ্যাভোকাডো ব্যবহার করতে হবে। আপনি আপনার চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত গরম নারকেল তেল দিয়ে ম্যাসাজ করতে পারেন, এরপরে অ্যাভোকাডোকে পেস্টে পরিণত করুন এবং এটি কেবল চুলের আগাতে ম্যাসাজ করুন। ঘন চুল পেতে ৩০ মিনিট পরে চুল ধুয়ে ফেলুন। সেরা ফলাফলের জন্য সপ্তাহে একবার এটি পুনরাবৃত্তি করুন।

কুমড়োর বীজের তেল

আপনার চুল ঘন করার সবথেকে ভালো উপায় হল কুমড়োর বীজের তেল ব্যবহার করা। এটি একটি অপেক্ষাকৃত কমপরিচিত সমাধান যা আপনাকে প্রাকৃতিকভাবে লম্বা ও ঘন চুল গজাতে সাহায্য করতে পারে। কুমড়োর বীজে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, কিছু স্বাস্থ্যকর অ্যাসিড, অ্যামিনো ফ্যাট এবং ভিটামিন। এটি আপনার মাথার ত্বক এবং চুল ময়শ্চারাইজড রেখে কোষের স্বাভাবিক গঠন বজায় রাখা নিশ্চিত করে। এই তেল ব্যবহার করে চুল পড়াও উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কমে যায়। আপনি সরাসরি আপনার মাথার ত্বকে কুমড়োর বীজের তেল লাগাতে পারেন। এছাড়া, কেউ এটা পরিপূরক আকারে বা সরাসরি সেবন করতে পারে। এই তেল দিনে তিনবার এক চা চামচ করে পান করুন। এতে এক মাসে ঘন এবং শক্ত চুল পেতে পারেন। 

৩। চুলের মাস্ক

চুল ঘন করার আরেকটি অন্যতম উপায় হল চুলের মাক্স ব্যবহার করা, বিভিন্ন ধরনে মাক্স আছে সেসব নিচে তুলে ধরা হচ্ছে।

ডিমের মাস্ক

আপনি যদি আপনার ডায়েট সম্পর্কে সতর্ক থাকেন, তাহলে আপনাকে অবশ্যই ডিম খেতে হবে, কারণ তারা উচ্চ মাত্রায় প্রোটিন সমৃদ্ধ। তেমনিভাবে যখন আপনি অল্প সময়ের মধ্যে প্রাকৃতিকভাবে ঘন চুল পেতে চান, তাহলে আপনার চুলকেও পুষ্টির ভাগ করে নিতে দিন। এটি আপনার জন্য একটি বিস্ময় হতে পারে। ডিম ভিটামিন এ এবং ডি এর মতো পুষ্টি, যেমন ফোলেট এবং বায়োটিনের মতো প্রোটিন দিয়ে পূর্ণ। মাথার ত্বক এবং চুলের শিকড় শক্তিশালী করার জন্য এটি আপনি আপনার চুলে লাগাতে পারেন। একটি ডিম মাস্ক ব্যবহার করতেঃ 1 বা 2 ডিম একসাথে বিট করুন। মাথার ত্বকে এবং চুলে ডিমটি লাগিয়ে প্রায় 30 মিনিটের জন্য রেখে দিন। উষ্ণ জল এবং হালকা শ্যাম্পু দিয়ে চুল ভাল করে ধুয়ে নিন। অন্যভাবে ডিম তেল এবং জল দিয়ে মিশ্রণ বানিয়ে ব্যবহার করতে পারেন। এই পদ্ধতি ব্যবহার করতেঃ ২টি ডিমের কুসুম, 1 টেবিল চামচ অলিভ ওয়েল এবং 2 টেবিল চামচ পানি ভালোভাবে মিশান। মিশ্রণটি মাথার তালুতে এবং শুষ্ক চুলে লাগিয়ে 15 মিনিটের জন্য রেখে দিন। এরপরে গরম জল এবং হালকা শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। কয়েক সপ্তাহের জন্য সপ্তাহে একবার বা দুবার ডিমের এই মাস্ক ব্যবহার করলে এটি চুলকে শক্তিশালী করে চুল ঘন করতে সহায়তা করতে পারে। 

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় কি খাবেন? কি কি খাবেন না? জেনে নিন গর্ভাবস্থায় ১০ মাস গর্ভবতী মায়ের খাবার।

কলার মাস্ক

কলাতে রয়েছে খনিজ পদার্থ যা কোলাজেন সংশ্লেষণে সাহায্য করে এবং আপনার চুল ঘন ও মজবুত করে। একটি পাকা কলা ম্যাশ করুন এবং 2 টেবিল চামচ অলিভ ওয়েল যোগ করুন। ব্রাশ ব্যবহার করে এটি আপনার সমস্ত চুলে লাগান। আপনার নিয়মিত শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার দিয়ে 20 মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন। 

৪। ভেষজ

প্রকৃতিতে অনেক ভেষজ উদ্ভিদ আছে যেগুলা চুল ঘন করে থাকে, চুল ঘন করতে এসব ভেষজ উদ্ভিদ ব্যাবহার করতে পারেন।

অ্যালোভেরা

অ্যালোভেরা ত্বক, মাথার ত্বক এবং চুলে দীর্ঘস্থায়ী উপকারের জন্য গত দশক থেকেই ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। অ্যালো অয়েল সরাসরি চুল এবং মাথার ত্বকে প্রয়োগ করলে এটি  চুলকে শক্তিশালী করতে এবং সময়ের সাথে ঘন করতে সাহায্য করতে পারে। সক্রিয় উপাদান হিসেবে অ্যালো ধারণকারী বেশ কিছু বাণিজ্যিক পণ্য সহজেই বাজারে পাওয়া যায়। আপনি অ্যালোভেরাযুক্ত এইসব পণ্য কিনতে পারেন। এই পণ্যগুলি প্রায়শই জেল এবং ক্রিমের আকারে বিক্রি করে যা সরাসরি মাথার তালু এবং চুলে প্রয়োগ করা হয়। একটি ঘরোয়া সমাধানের জন্য, আপনি মাথার ত্বকে এবং চুলে কিছু বিশুদ্ধ অ্যালো জেল ঘষতে পারেন এবং ধুয়ে ফেলার আগে ৩০ মিনিটের জন্য রাখতে হবে। কিছু লোক নারকেল তেল বা অলিভ অয়েলের সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করে থাকেন। এটি আপনি প্রতি সপ্তাহে একবার বা দুবার ব্যবহার করতে পারেন। রিলেটেডঃ এলোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা, এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা

মেথি

এটি আমাদের ব্যক্তিগত প্রিয় এবং এমন উপাদান যা আমরা যুগ যুগ ধরে ব্যবহার করে আসছি। মেথি বীজ সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। একটি সূক্ষ্ম পেস্ট তৈরি করতে পিষে নিন এবং ২ টেবিল চামচ দই বা ক্যাস্টর অয়েল মেশান। এই মেথি মাস্কটি আপনার মাথার তালু এবং চুলে লাগান। ৩০ মিনিট পর হালকা শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। মেথি চুল ঘন করতে, খুশকি রোধ করতে, চুল চকচকে উন্নত করতে এবং চুলে আর্দ্রতা দিতে পরিচিত। রিলেটেডঃ মেথির উপকারিতা ও মেথির অপকারিতা

অ্যাভোকাডো

অ্যাভোকাডো ভিটামিন ই সমৃদ্ধ, এবং অনেকে বিশ্বাস করেন যে এটি একটি ভাল ময়েশ্চারাইজার। একটি সাধারণ অ্যাভোকাডো পেস্ট তৈরি করুন এবং এটি সপ্তাহে দুই বার ব্যবহার করুন। একটি অ্যাভোকাডো পেস্ট তৈরি করতেঃ 1 টেবিল চামচ অলিভ অয়েলের সাথে 1 টি অ্যাভোকাডো ফল মিশিয়ে চুল এবং মাথার ত্বকে মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন এবং হালকা শ্যাম্পু দিয়ে ভালভাবে ধুয়ে ফেলুন। 


চুল ঘন করার প্রাকৃতিক উপায়

কমলার খোসা

কমলাতে থাকা ভিটামিন সি, পেকটিন এবং অ্যাসিড একজন ব্যক্তির চুলকে বিভিন্ন উপায়ে সাহায্য করতে পারে। ভিটামিন এবং পুষ্টি চুলের প্রাকৃতিক দীপ্তিকে উন্নতি করতে পারে, যার ফলে চুলকে ঘন দেখায়। কমলাতে থাকা এসিড চুল থেকে অবশিষ্টাংশ আলাদা করতে সাহায্য করে। এই অবশিষ্টাংশগুলি চুলের বৃদ্ধিতে বাধা প্রদান করে। অন্যান্য কিছু  উপাদান এর মত এতে কোনো দুর্গন্ধ নেই। কমলা খোসাতে একটি মনোরম সুগন্ধ রয়েছে যা আপনার চুলকে সুগন্ধ করে তুলে। একজন ব্যক্তি তাজা কমলার খোসা পেস্ট করে চুল এবং মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করে ব্যবহার করতে পারেন। পেস্টটি ধুয়ে ফেলার আগে চুলে প্রায় 1 ঘন্টা রেখে দিন। কিছু লোক কমলার খোসা ব্যবহারের পরে চুলকে রিহাইড্রেট করার জন্য হালকা কন্ডিশনার ব্যবহার করতে পছন্দ করে। 

গ্রিন টি

পলিফেনল সমৃদ্ধ গ্রিন টি ঘন চুল পাওয়ার অন্যতম সেরা একটি উপায়। যদি আপনি ভাবছেন যে কীভাবে গ্রিন টি পাতলা চুল ঘন করে তুলতে পারে, তাহলে আপনার লক্ষ্য করা উচিত যে এতে জৈব সক্রিয় যৌগ রয়েছে। এটি মাথার ত্বকের ডার্মাল প্যাপিলা কোষের উপর বিস্তৃত প্রভাব ফেলে। যার ফলে এটি চুল পড়া হ্রাস করে এবং এর বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। যাইহোক, যদি আপনার ক্যাফিন গোপনে সমস্যা হয় হয়, অথবা আপনি  কোন ধরনের সিমুলেন্টস গ্রহণ করছেন,  তাহলে অবশ্যই গ্রিন টি খাওয়ার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। উষ্ণ গ্রিন টি  ব্যবহার করে আপনার মাথার ত্বক ধুয়ে ফেলুন, যা ছত্রাক এবং ব্যাকটেরিয়া পরজীবী ধ্বংস করবে। অবশ্যই, পাতলা চুল ঘন করার জন্য আপনি প্রতিদিন ১-২ কাপ গ্রিন টি খেতে পারেন।

গুজবেরি

ভারতীয় গুজবেরি, যাকে আমলা বলা হয়, আপনার চুলকে ঘন করার সবচেয়ে ভাল প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি। এটি আপনার চুলের ফলিকলে উপস্থিত DPC (ডার্মাল প্যাপিলা কোষ) এর উপর বিস্তৃত প্রভাব ফেলে। যার ফলে এটি আপনার চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে, আপনার চুলের বৃদ্ধির চক্রের সময় সক্রিয় বৃদ্ধির পর্যায় প্রসারিত করে। যদি আপনি ভাবছেন যে কীভাবে চুলকে ঘন করা যায়,  তাহলে এটি ব্যবহার করে দেখুন। গুজবেরি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ। স্পষ্টতই, এটি আপনার চুলকে ফ্রিরেডিকেল থেকে রক্ষা করবে, চুলের বিভিন্ন ধরনের ক্ষতি এবং চুল পড়া রোধে সহায়তা করবে। যদি আপনি এক মাসে চুল ঘন করতে ইচ্ছুক হন, তাহলে চুলের আগা ফাটা অথবা চুল ভাঙ্গার মতো সমস্যা রোধ করতে গুজবেরি তেল ব্যবহার করতে পারেন। আপনার হাত দিয়ে  কিছু আমলা তেল আপনার মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন। আপনার মাথার তালুতে এক ঘণ্টা বা তারও বেশি সময় রেখে দিন এবং স্নানের সময় তেলটি ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুবার এটি পুনরাবৃত্তি করুন।  

আরো পড়ুনঃ এলার্জি কেন হয়? এলার্জি কমানোর উপায় কি? জেনে নিন বিস্তারিত।

পেঁয়াজের রস এবং মধু

যারা চুল ঘন ও দ্রুত বৃদ্ধির জন্য প্রাকৃতিক উপায় খুঁজছেন তাদের এই উপায়টি ব্যবহার করা উচিত। গবেষকদের মতে, পেঁয়াজের রসে নির্দিষ্ট কিছু ফাইটোকেমিক্যাল যৌগ রয়েছে। এটি নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে এবং আপনি এটিআপনার শুষ্ক রুক্ষ চুলের জন্যও ব্যবহার করতে পারেন। এটি মধুর সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করলে  মধুর গন্ধ পেঁয়াজের গন্ধকে দূর করে দেয়। যার ফলে এটি আপনার চুলকে একটি মিষ্টি ঘ্রাণ দেয়। এই মিশ্রণটি আপনার চুলকে বড় করতে সাহায্য করবে, পাশাপাশি প্রাকৃতিকভাবে আপনার চুলকে ঘন করে তুলবে। অর্ধেক পেঁয়াজ কেটে তার রস বের করুন। এর সাথে  2 চা চামচ মধু মিশন। মিশ্রণটি মাথার তালুতে লাগান এবং আধা ঘণ্টা পর কেমিক্যাল মুক্ত শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুইবার প্রক্রিয়াটি পুনরাবৃত্তি করলে এটি আপনাকে আপনার চুল ঘন এবং শক্তিশালী করতে সাহায্য করবে।

লেবুর রস এবং অ্যালোভেরা

আপনার চুলকে ঘন করার জন্য চুলের ঘরোয়া উপায় খুঁজে থাকলে লেবুর রস ব্যবহার করতে ভুলবেন না। আপনি একটি ভাল ফলাফলের জন্য এটি অ্যালোভেরার সাথেও ব্যবহার করতে পারেন। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, লেবুর রসের রয়েছে  প্রচুর গুণ যা আপনাকে ঘন চুল দেয়। এছাড়াও, লেবুর রস আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং  প্রদাহ কমাতে পারে। এটি চুল পেকে যাওয়া কমায়। যদি আপনি পুরুষদের জন্য চুল ঘন করার জন্য একটি উপায় চান, তাহলে আপনি এই উপায়টি ব্যবহার করতে পারেন। একটি বাটিতে একটি লেবু দুই ভাগে কাটার পর রস চেপে নিন। এর সাথে 2 চামচ অ্যালোভেরা যুক্ত করুন। মিশ্রণটি ভালোভাবে মিশিয়ে আপনার মাথার ত্বকে এবং চুলে ব্যবহার করুন এবং কয়েক মিনিটের জন্য আলতো করে ম্যাসাজ করুন। পরবর্তী 10 মিনিটের জন্য এটি শুকানোর জন্য ছেড়ে দিন, যা আপনার মাথার ত্বক থেকে তেল এবং ময়লা দূর করবে। 10 মিনিট পরে আপনার মাথার ত্বক ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন। 

লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা
লেবুর শরবত

৫। ডায়েট

কিছু কিছু খাবার আছে যেগুলা আপনার চুল পরা কমাতে সাহায্য করবে, আপনি যদি নিয়মিত ডায়েট করতে পারেন তাহলে ভালো ফল আশা করা যায়। নিচে সংক্ষেপে সেগুলা নিয়া আলোচনা করা হল।

খাবার

ভাল চর্বি এবং প্রোটিন সমৃদ্ধ সুষম খাদ্য চুল পাতলা হওয়া রোধ করে। মাছ, ডিম, আখরোট, বাদাম, দই, মটরশুটি এবং সবুজ শাক -সবজি জাতীয় খাবার খাওয়া চুল ঘন করতে সাহায্য করে।

সাপ্লিমেন্টস

আপনার শরীরের ট্রেস পরিমাণে প্রচুর পুষ্টির প্রয়োজন। যখন আপনার ডায়েট সাহায্য করছে না, তখন সাপ্লিমেন্টের দিকে ফিরে যান। ঘন চুলের জন্য ভিটামিন বি 5, বি 12, এ, আয়রন, জিংক এবং বায়োটিন বেছে নিন। 

৬। স্পা/সেলুন চিকিৎসা

পেশাদার সেলুনে নিয়মিত হেয়ার স্পা দিলে আপনি দৃশ্যত ঘন এবং উজ্জ্বল চুল লক্ষ্য করবেন। হেয়ার স্পা রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে এবং আপনার মাথার ত্বকের ছিদ্রগুলি খুলে দেয় যাতে পুষ্টির শোষণ আরও ভাল হয়। এটি আপনার চুলের অবস্থা এবং মাথার ত্বকে তেল উৎপাদনের ভারসাম্য বজায় রাখে। আপনার চুলের ধরনের জন্য সেরা হেয়ার স্পা চিকিৎসা সম্পর্কে আপনার হেয়ারস্টাইলিস্টের সাথে কথা বলুন। ঘরে তৈরি উপকরণ দিয়েও ঘরে বসে হেয়ার স্পা করতে পারেন। 


হেয়ার স্পা

চুল সঠিকভাবে ধুয়ে নিন

চুল সঠিকভাবে ধুয়ে নেওয়ার জন্য প্রথমে আপনার মাথার ত্বক এবং চুল ভিজানোর জন্য হালকা গরম জল ব্যবহার করুন। আপনার মাথার তালু এবং চুলে আলতো করে শ্যাম্পু ম্যাসাজ করুন (জলে আপনার শ্যাম্পু পাতলা করতে ভুলবেন না)। শ্যাম্পু করার প্রথম রাউন্ডের পরে, ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন এবং প্রথম রাউন্ডটি পুনরাবৃত্তি করুন। এরপর চুল ভালো করে ধুয়ে কন্ডিশনার লাগান। সমস্ত কন্ডিশনার পরিষ্কার করতে ভালোভাবে চুল ধুয়ে ফেলুন। আপনার চুল শুকানোর জন্য একটি নরম টি-শার্ট ব্যবহার করুন এবং শেষে চুলের সিরাম ব্যবহার করুন।

স্ক্যাল্প ম্যাসাজ

এ প্রক্রিয়াটি ছেলেদের চুল ঘন করতে অনেক সাহায্য করবে। আস্তে আস্তে আপনার মাথার ত্বকের চারপাশে চাপ দিন। এটি ফলিকলে আরও সহজে রক্ত প্রবাহিত করতে সাহায্য করে এবং চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। আপনার চুলকে ময়শ্চারাইজ করার জন্য ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহার করুন এবং একই সাথে ম্যাসাজ চালু রাখুন। উভয়ই আপনাকে আরও ঘন চুল গজাতে সাহায্য করতে পারে।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় কি খাবেন? কি কি খাবেন না? জেনে নিন গর্ভাবস্থায় ১০ মাস গর্ভবতী মায়ের খাবার।

৭। ওষুধ ও চিকিৎসা

চুল পাতলা এবং ক্ষতির জন্য এখানে কিছু ওষুধ রয়েছে যা আপনার ডাক্তার আপনাকে বলতে পারে। তাছাড়াও কিছু উপায় র‍য়েছে যার মাধ্যমে চুল ঘন করতে পারবেন। নিচে ওষুধ ও উপায়গুলো দেওয়া হলঃ

ফিনাস্টারাইড (প্রোপেসিয়া)

এটি একটি মৌখিক ওষুধ যা ডাইহাইড্রোটেস্টোস্টেরন (ডিএইচটি) হরমোনের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে যা চুল পড়ার কারণ হতে পারে।

কর্টিকোস্টেরয়েড

এগুলি মৌখিক বা ইনজেকশনের ওষুধ যা প্রদাহ কমাতে পারে যা চুল পড়ার কারণ হতে পারে।

লেজার থেরাপি

আপনার ডাক্তার বা চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ লেজার প্রযুক্তির সাহায্যে চুলের ফলিকলগুলির চিকিত্সা করতে সক্ষম হতে পারেন যা ফোটন নামক হালকা কণাগুলিকে আপনার ফলিকলে বৃদ্ধিতে সহায়তা করার জন্য পাঠায়। এটি আপনাকে সাহায্য করবে কিনা তা দেখতে প্রথমে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলে নিতে পারেন।

হেয়ার ট্রান্সপ্লেন্ট

আপনার মাথার ত্বকে নতুন, স্বাস্থ্যকর ফলিকল কলম করার জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে হেয়ার ট্রান্সপ্লেন্টের অস্ত্রোপচার সম্পর্কে কথা বলুন। হেয়ার ট্রান্সপ্ল্যান্ট প্রত্যেককে সাহায্য করতে পারে না এবং ভুলভাবে করা হলে দাগ বা অস্বাভাবিক চুলের ধরন হতে পারে।

পরিশেষে যদিও আপনি জাদুকরীভাবে আপনার চুলের ফলিকল পরিবর্তন করতে পারবেন না, উপরের সব পদ্ধতি দিয়ে আপনি অবশ্যই আপনার চুলকে ঘন এবং স্বাস্থ্যকর করে তুলতে পারেন। আপনি যদি উল্লিখিত উপাদানগুলির মধ্যে কোনটি অ্যালার্জিযুক্ত হন তবে সেগুলি ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। যদি আপনার চুল হঠাৎ অনেক বেশি পড়া শুরু করে বা পাতলা হতে থাকে, তাহলে একটি অন্তর্নিহিত অবস্থা এর কারণ হতে পারে। দয়া করে চিকিৎসা সহায়তা নিন।

যদি এই ব্লগ পোস্টে চুল ঘন করার উপায় সম্পর্কে জেনে আপনাদের ভালো লাগে তাহলে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

বিঃদ্রঃ  এই ব্লগের প্রত্যেকটা ব্লগ পোস্ট Sylhetism ব্লগের নিজস্ব ডিজিটাল সম্পদ। কেউ ব্লগের কোন পোস্ট কিংবা আংশিক অংশ ব্লগের কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কপি পেস্ট করে অন্য কোথাও প্রকাশ করলে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা করার অধিকার রাখে। এবং অবশ্যই কপিরাইট ক্লাইম করে যে মাধ্যমে এই ব্লগের পোস্ট প্রকাশ করা হবে সেখানেও কমপ্লেইন করা হবে।

এই ব্লগের কোন লেখায় তথ্যগত কোন ভুল থাকলে আমাদের Contact পেইজে সরাসরি যোগাযোগ করুন, আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তথ্য যাচাই করে লেখা আপডেট করে দিবো।

এই ব্লগের কোন স্বাস্থ বিষয়ক পোস্টের পরামর্শ নিজের বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করার আগে অবশ্যই বিশেষজ্ঞদের মতামত নিবেন, আমরা স্বাস্থ বিষয়ে কোন বিশেষজ্ঞ না, আমাদের উদ্দেশ্য ও লক্ষ হচ্ছে সঠিক তথ্য পরিবেশন করা। সুতারাং কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার দায়ভার অবশ্যই আমরা নিবো না।

ধন্যবাদ, ব্লগ কর্তৃপক্ষ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

You cannot copy content of this page