নিম পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা ২০২২

নিম পাতা

আপনাকে যদি আপনার আশেপাশে একটি ভেষজগুণ সম্পন্ন গাছের নাম বলতে বলা হয়,আপনি নিঃসন্দেহে নিম গাছের কথা বলবেন,তাই না? নিম গাছের পাতা হতে শুরু করে ছাল,বাকল,কাঠ সবই কোনো না কোনো কাজে ব্যবহৃত হয়।চলুন আজ নিম পাতার উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেই।

আপনি আপনার ছোটবেলায় থেকেই নিমের উপকারিতা সম্পর্কে কম-বেশি জেনে থাকবেন।নিম গাছের প্রতিটি অংশ, তা পাতা, ছাল, শিকড় বা ফুলই হোক না কেন আয়ুর্বেদশাস্রে, বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। তাই বলা যায় নিম পাতার অনেক পুষ্টিগুণ রয়েছে।

Table of Contents

নিমগাছের পরিচিতি

আয়ুর্বেদ শাস্রে , প্রায় ৫০০০ বছর ধরে নিম একটি জনপ্রিয় ঔষধি গাছ হিসেবে সুপরিচিত। ইংরেজিতে Azadirachta Indica বা সংস্কৃতে ‘Neemba’ নামেও পরিচিত, এছাড়াও আরো বহু নামে নিম গাছ পরিচিত। যেমন:

  • অরিষ্ট
  • পুঁতি গাছ
  • পবিত্র গাছ
  • ভারতীয় লিলাক
  • পার্সিয়ান লিলাক
  • চীনের গর্ব

নিম গাছের পাতা নানা ঔষধি গুনের জন্য এটি নানারোগের মহাপ্রতিষেধক নামে পরিচিত। এটি প্রায় ১৩০ টিরও বেশি বিভিন্ন জৈবিক ক্রিয়ায় সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে। তাই নিমের উপকারিতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করার কোনো অবকাশ নেই।

নিম পাতার পুষ্টিমূল্য

নিমের পাতায় প্রায় ১৪০টিরও বেশি সক্রিয় যৌগ রয়েছে যা নিমকে এর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল, অ্যান্টিপ্যারাসাইটিক, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টিডায়াবেটিক, অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং ক্ষত নিরাময় বৈশিষ্ট্যের জন্য দায়ী।প্রায় এক কাপ পরিমাণ (৩৫ গ্রাম) নিমের পাতায় নিম্নলিখিত পুষ্টিমান পাওয়া যায়-

পুষ্টিমান
পরিমাপ
ফাইবার
6.77 গ্রাম
ফ্যাট
3.3 গ্রাম
ক্যালসিয়াম
178.5 গ্রাম
আয়রন
5.98 মিলিগ্রাম
ম্যাগনেসিয়াম
44.45 মিলিগ্রাম
ফসফরাস
28 মিলিগ্রাম
সোডিয়াম
25.27 মিলিগ্রাম
পটাসিয়াম
88.9 মিলিগ্রাম

এত পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ নিমের পাতার উপকারিতা নিয়ে সম্পর্কে সন্দেহ প্রকাশ করার কোনো সুযোগ নেই।

নিম গাছ
নিম গাছ (ফটোঃ gettyimages)

নিম পাতার উপকারিতা

স্বাস্থ্যক্ষেত্রে নিম এক কথায় আশীর্বাদের ঝুড়ি।আশ্চর্য হওয়ার কোনো কারণ নেই যে, নিমপাতা একটি শক্তিশালী ইমিউনো-উত্তেজক হওয়ার পাশাপাশি এটি একটি কার্যকর অ্যান্টি-ভাইরাল এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল হিসেবে কার্যকর ভূমিকা রাখে। নিম পাতার প্রাথমিক উদ্দেশ্য হল বাত ব্যাধি বা নিউরোমাসকুলার ব্যথার চিকিৎসা। এছাড়া নিম পাতার অন্যান্য উপকারিতা হল: রক্ত পরি​​শুদ্ধ করা, শরীরের ফ্রি রেডিক্যালের কারণে ক্ষতি প্রতিরোধ করা, টক্সিন অপসারণ করা, পোকামাকড়ের কামড় এবং আলসারের চিকিৎসা করা। নিম পাতায় অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুণ রয়েছে যার কারণে এটি সংক্রমণ, পোড়া এবং ত্বকের যেকোনো ধরনের সমস্যায় বিস্ময়কর কাজ করে। এটি নানা সংক্রামক ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে, ইমিউন সিস্টেমকে উদ্দীপিত করে এবং দ্রুত নিরাময় করে। চলুন স্বাস্থ্যক্ষেত্রে নিমের উপকারিতা নিয়ে আরো বিশদভাবে জেনে নেই-

চুলের যত্নে নিম পাতার উপকারিতা

চুলের যত্নে নিম পাতার উপকারিতা বহুবিধ। চুলের বৃদ্ধি থেকে খূশকি দূরীকরণ সবই নিমের পাতার মাধ্যমে সম্ভব। নিমের মধ্যে রয়েছে অ্যাজাডিরাকটিন। এটি এমন একটি সক্রিয় যৌগ যা চুল এবং ত্বকের ক্ষতিসাধনকারী পরজীবী (যেমন: উকুনের)  লড়াই করে।  Azadirachtin নামক পরজীবীর বৃদ্ধি ব্যাহত করে চুলকে রক্ষা করে।

নিম পাতার তেল কখনও কখনও খুশকির চিকিৎসায় অভাবনীয় ফলাফল দেয়, যদিও এটি কীভাবে কাজ করে তা সঠিকভাবে কেউ জানে না। নিম পাতার তেলটি প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে বলে মনে করা হয়। এছাড়া এটি লালভাব, চুলকানি এবং ফ্লেকিংয়ে অবদান রাখে। নিম পাতা ছত্রাকের বিরুদ্ধে কাজ করে যা খুশকি দূরীকরণের আরেকটি সম্ভাব্য কারণ।

একটি ল্যাব গবেষণায় দেখা গেছে যে, নিম পাতায় নিমবিন নামক একটি উপাদান রয়েছে যা প্রদাহ বিরোধী।এছাড়া এতে quercetin নামক উদ্ভিজ উপাদান আছে, যার ফলে এতে শক্তিশালী অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল প্রভাবও রয়েছে।

পাকস্থলীর ক্যান্সার নিরাময়ে নিম পাতার উপকারিতা

নিম পাতায় ৭.১ শতাংশ প্রোটিন এবং ২২.৯ শতাংশ কার্বোহাইড্রেট থাকে। এছাড়াও ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, ভিটামিন সি এবং ক্যারোটিন খনিজ রয়েছে।পাকস্থলির আলসার এখনকার সময়ের খুবই সাধারণ একটি রোগ।

নিমের পাতা পেপটিক আলসারের চিকিৎসায় দেখায় খুবই অবিশ্বাস্য ভূমিকা পালন করে। ২০০৯ সালের একটি ফাইটোথেরাপি গবেষণা অনুসারে এটি বলা হয়। পেপটিক আলসার, যা পাকস্থলীর আলসার নামেও পরিচিত, খুব বেশি পাকস্থলীর অ্যাসিড তৈরির কারণে পেটে ব্যথা এবং অন্যান্য উপসর্গ হতে পারে। গবেষণায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে, নিম পাতার  নির্যাস এই অ্যাসিডের নিঃসরণকে আংশিকভাবে প্রতিহত করে। ফলে যা ক্যান্সারের উপসর্গ কমাতে সাহায্য করে।

২০১৯ সালে জার্নাল অফ এথনোফার্মাকোলজিতে প্রকাশিত আরেকটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে, নিম পাতার তেল হেলিকোব্যাক্টর পাইলোরিকে মেরে ফেলতে সক্ষম। এই হেলিকোব্যাক্টর পাইলোরি  হল এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া যা পেপটিক আলসারের অন্যতম প্রধান কারণ।

নিম পাতার উপকারিতা
নিম পাতার উপকারিতা (ফটোঃ www.gettyimages.com)

ত্বকের যত্নে নিম পাতার উপকারিতা

নিমের পাতা ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ, যার মধ্যে রয়েছে ওলিক, স্টিয়ারিক, পামিটিক এবং লিনোলিক অ্যাসিড। ফলে নিম পাতার প্রদাহ বিরোধী, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ত্বকের যত্নে ব্যাপক ভূমিকা রাখে।নিম পাতায় অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্যের কারণে ব্রণ এবং অন্যান্য ত্বকের রোগ দূর করতেও সাহায্য করতে পারে।

  • ২০১৩ সালে জার্নাল অফ অ্যাকিউট ডিজিজেস – এ প্রকাশিত একটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে, নিমের তেল অনেক ধরনের ব্রণ-সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলতে সক্ষম। এটি ত্বকের জ্বালা বা শুষ্কতা ছাড়াই ব্রণ দূর করতে কার্যকর ভূমিকা রাখছে।তাই আপনার ব্রণের সমস্যা দূরীকরণে নিম পাতার তেল হতে পারে একটি দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসা।
  • এছাড়া ত্বকের অন্যান্য রোগ যেমন : চুলকানি,একজিমা,রিং ওয়ার্ম নানা চর্মরোগের চিকিৎসায় নিম পাতা ব্যবহার করা হয়। প্রাথমিকভাবে নিম পাতার পেস্টের সাথে হলুদ মিশিয়ে আক্রান্ত স্থানে ব্যবহার করলে উপশম পাওয়া যাবে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরিতে নিম পাতার ভূমিকা

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে নিমের পাতার উপকারিতা বহুবিধ। আপনি যদি প্রতিদিন মুষ্টিমেয় পরিষ্কার নিম পাতা চিবিয়ে খান,তবে আপনি নিজেকে প্রায় শত শত রোগ থেকে রক্ষা করতে পারবেন।নানা ভাইরাল ও ব্যাকটেরিয়াল সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার সক্ষমতা অর্জন করবেন।

নিমে পাতায় রয়েছে কোয়ারসেটিন এবং নিম্বোলাইড যা আপনাকে বিনামূল্যে রেডিক্যালের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।একইভাবে ডায়াবেটিস, হৃদরোগ এবং ক্যান্সারের মতো জটিল রোগ থেকে দূরে রাখে।

মুখের যত্নে নিম পাতার ব্যবহার

নিমের পাতায় মুখের লালার ক্ষারীয় স্তর বজায় রাখতে সাহায্য করে।মুখের জীবাণুর সাথে লড়াই করে এবং তাজা শ্বাস নিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখে।

নিম পাতার রস মুখের জীবাণু ধ্বংস করে,দাঁতের ক্ষয় থেকে আপনাকে রক্ষা করতে সাহায্য করবে।তাই প্রতিদিন নিমের পাতা চিবিয়ে বা নিম পাতার রস দিয়ে মুখ পরিষ্কার করার চেষ্টা করুন।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে নিম পাতার ভূমিকা

রক্তে শর্করার পরিমাণ কমাতে নিম পাতার ভূমিকা উল্লেখ না করলেই নয়। আপনি যদি ডায়াবেটিস রোগী হয়ে থাকেন,নিম পাতা আপনার ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রণে মহা ঔষধ হিসেবে কাজ করবে।

নিয়মিত সেদ্ধ নিম পাতা পরিমিতভাবে গ্রহণ করলে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, নিম পাতার নির্যাস প্রাথমিকভাবে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে একটি কার্যকর উপায়।

দাঁতের যত্নে নিম পাতার উপকারিতা

দাতের যত্নে নিম পাতা খুবই কার্যকর ভূমিকা পালন করে।বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে, নিম পাতা দাঁতে প্লাক তৈরির বিরুদ্ধে লড়াই করতে এবং জিনজিভাইটিস  নামক এক ধরনের মাড়ির রোগ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

২০১৭ সালের সমসাময়িক ডেন্টাল প্র্যাকটিস জার্নালের একটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে, নিম পাতার দিয়ে তৈরীকৃত মাউথওয়াশ, ক্লোরহেক্সিডিন গ্লুকোনেট ধারণকারী অন্যান্য বাণিজ্যিক মাউথওয়াশের মতোই কার্যকর ছিল।এমনকি বলা হয় এটি সাধারণ মাড়ির রোগ প্রতিরোধে সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে। যাইহোক, এই গবেষনাটি সপ্তাহব্যাপী প্রায় ৪০জন সংখ্যক মানুষের উপর করা হয়।

দাঁতের যত্নে নিম পাতা
দাঁতের যত্নে নিম পাতা (ফটোঃ www.gettyimages.com)

চোখের সমস্যা দূরীকরণে নিম পাতার ভূমিকা

নিম পাতার নানা উপকারিতার মধ্যে অনন্য আরেকটি হল এটি চোখের যত্নেও বেশ ভালো ভূমিকা রাখে। আপনি যদি চোখে কোনো অস্বস্তি, জ্বালা, ক্লান্তি বা লালচে ভাব অনুভব করেন,তবে নিম পাতাকে আপনি প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করতে পারেন।

কিছু নিম পাতা সিদ্ধ করুন, এরপর এই সিদ্ধ জল পুরোপুরি ঠান্ডা হতে দিন এবং তারপর আপনার চোখ ধোয়ার জন্য ব্যবহার করুন। এটি আপনার চোখের যেকোনো ধরনের জ্বালা, ক্লান্তি বা লালচে ভাব দূর করতে সাহায্য করবে।

ব্যথা নিরাময়ে নিম পাতার ভূমিকা

ব্যথা নিরাময়ে নিমপাতার পেস্ট বেশ দুর্দান্ত ভূমিকা রাখে। এর এন্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্যের জন্য, কোনো পোকামাকড় কামড়ানো স্থানে নিম পাতার পেস্ট ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। প্রায় বহুবছর ধরেই এই চিকিৎসা চলে আসছে।

কানের ব্যথা উপশমেও নিম পাতার ব্যবহার করা হয়।

নিম পাতার ব্যবহার

নিমের এত উপকারী দিক শুনে আপনি হয়তো ভাবছেন, এই নিম পাতা কীভাবে ব্যবহার করবেন বা গ্রহণ করবেন।চলুন এই উপকারী ভেষজগুনসম্পন্ন নিমপাতার ব্যবহার জেনে নেই-

নিম পাতার জুস

নিম পাতার রস পান করা আপনার হজম প্রক্রিয়া পুনর্গঠন এবং পুনরায় চালু করতে সাহায্য করতে পারে। এটি উল্লেখযোগ্যভাবে একজনের বিপাক বৃদ্ধি করে। রস হিসাবে খাওয়া হলে, তেতো নিম শরীরের চর্বি ভাঙতে কার্যকর। এটি কোলন পরিষ্কার করতে এবং শরীরের নির্গমন প্রক্রিয়াকে উন্নত করতে সহায়তা করে। এটি অবাঞ্ছিত ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি দূর করে রক্তকে বিশুদ্ধ করে কারণ নিমের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে উপস্থিত অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিসেপটিক এনজাইম রয়েছে। এই সমস্ত কারণে, নিম পাতার রস সবচেয়ে উপকারী রসগুলির মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচিত হয়। যাইহোক, গবেষণা এখনও এতটা বেশি অগ্রসর হতে পারে নি,যে ডাক্তাররা নিয়মিত নিম পাতার রস পান করার পরামর্শ দেন।

নিম পাতার পাউডার

নিম পাতা গুঁড়ো আকারে পাওয়া যায়। এই পাউডারের একটি ভাল শেলফ লাইফ রয়েছে, যা এটি ভ্রমণের সময় সাথে বহন করার জন্য আদর্শ করে তোলে। নিমের গুঁড়ো করার আরেকটি সুবিধা হল যে, এটি বিশ্বের প্রায় সব জায়গায় সহজলভ্য।  নিম পাতার গুঁড়া ত্বকে অভ্যন্তরীণ এবং বাহ্যিকভাবে প্রয়োগ করা যেতে পারে। ঘরে বসেই নিম পাতার গুঁড়ো করা যায়।নিম পাতা সংগ্রহ করে তা শুকিয়ে মিহি গুঁড়ো করে পাউডার হিসেবে ব্যবহার করা যায়।

নিমের পাতার তেল

ত্বকের জন্য স্বাস্থ্যসম্মত ও ভেষজগুণসম্পন্ন একটি প্রসাধনী সামগ্রী হচ্ছে নিম পাতার তেল।সংগৃহীত নিম পাতার রস থেকে তৈরি তেল চুল থেকে শরীরের ত্বকের যত্নে ব্যবহার করা যেতে পারে।যা আপনার ত্বকের সতেজতা ও তারুণ্য বজায় রাখবে।ত্বককে নানা পরজীবির হাত থেকে রক্ষা করবে।

নিম পাতার ক্যাপসুল

নিম পাতা নিয়মিত খাওয়ার একটি সহজ উপায় হচ্ছে ক্যাপসুল আকারে গ্রহণ করা।নিমপাতা শুকিয়ে তা মিহি করে ব্লেন্ডার বা বেটে ছোট ছোট ট্যাবলেট বানিয়ে রোদে শুকাতে হয়।এই পদ্ধতিতে নিমের পাতা দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করে গ্রহণ করা যায়।আর যারা কাঁচা নিমপাতা খেতে পারেন না,তাদের জন্য এটা খুবই গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি।

এছাড়াও নিমপাতা দিয়ে দৈনন্দিন ব্যবহার্য নানা প্রসাধনী সামগ্রী যেমন: শ্যাম্পু,তেল,ফেসওয়াশ,টোনারসহ নানা ভেষজগুণসম্পন্ন প্রোডাক্ট তৈরি করা হয়।

নিম পাতার ক্যাপসুল
নিম পাতার ক্যাপসুল (ফটোঃ www.gettyimages.com)

নিমপাতার পার্শ্ব পতিক্রিয়া

কথায় আছে,বেশি ভালো, ভালো না। ঠিক তেমনি নিমপাতার শত উপকারিতা থাকলেও, এর অতিরিক্ত ও দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহার অনিরাপদ।  নিম পাতার নির্যাস স্বল্পমেয়াদী ব্যবহার করলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তা শুধু প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য নিরাপদ। ধারনা করা হয়, প্রায় ১০ সপ্তাহ পর্যন্ত প্রতিদিন ৬০ মিলিগ্রাম পর্যন্ত ডোজ গ্রহণ করা নিরাপদ।বেশি মাত্রায় বা দীর্ঘ সময়ের জন্য মুখ দিয়ে নিম পাতার রস গ্রহণ স্বাস্থ্যহানি ঘটাতে পারে। এমনকি এটি আপনার কিডনি এবং লিভারের ক্ষতি করতে পারে।

শুধু নিমপাতা খাওয়া না এর তৈরি প্রসাধনী সামগ্রী ব্যবহারেও সতর্ক থাকতে হবে।নিম পাতার তেল বা ক্রিম ২ সপ্তাহ পর্যন্ত ত্বকে প্রয়োগ করা সম্ভবত নিরাপদ।

নিম পাতার নির্যাস থেকে তৈরি জেল মুখের ভিতরে ৬ সপ্তাহ পর্যন্ত প্রয়োগ করা  নিরাপদ। গর্ভাবস্থায় নিম পাতার তেল এবং নিমের ছাল গর্ভাবস্থায় মুখে খাওয়ার সময় খুবই অনিরাপদ যা গর্ভপাত পর্যন্ত ঘটাতে পারে। বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় মোটেই  নিম পাতা ব্যবহার করা নিরাপদ কিনা তা জানার জন্য যথেষ্ট নির্ভরযোগ্য তথ্য নেই।তবে তা এড়িয়ে চলাই উত্তম।

নিম পাতার তেল খাওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে শিশু এবং ছোট শিশুদের মধ্যে গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ঘটতে পারে। এই গুরুতর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে রয়েছে বমি, ডায়রিয়া, তন্দ্রা, খিঁচুনি, চেতনা হ্রাস, কোমা এবং মৃত্যু। তাই নিম পাতা খেলে অবশ্যই সাবধানতা অবলম্বন করবেন। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নিমপাতা গ্রহণ করবেন।

নিম পাতার সাথে ওষুধের মিথস্ক্রিয়া

আপনি যদি নিম পাতা নিয়মিত গ্রহণ করার পরিকল্পনা করেন, তবে লক্ষ্য রাখবেন বেশ কয়েকটি ওষুধের সাথে এর মিথস্ক্রিয়া রয়েছে। নির্দিষ্ট ওষুধের সাথে নিম পাতা গ্রহণ করলে অন্য ওষুধের কার্যকারিতা কমে যেতে পারে বা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

সম্ভাব্য মিথস্ক্রিয়া

  • ডায়াবেটিসের ওষুধ , যার সম্মিলিত ব্যবহার আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা বিপজ্জনকভাবে নিম্ন স্তরে নেমে যেতে পারে।
  • ইমিউনোসপ্রেসেন্ট ওষুধ , যার সম্মিলিত ব্যবহার ইমিউন সিস্টেমকে উদ্দীপিত করতে পারে।
  • লিথিয়াম , যার সম্মিলিত ব্যবহার লিথিয়ামের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ঝুঁকি বাড়াতে পারে

নিম পাতা কি একটি কার্যকর পোকামাকড় নিরোধক?

নিমের পাতার  তেল সিট্রোনেলার ​​মতোই কাজ করে বলে মনে হয়। ম্যালেরিয়া জার্নালে ২০১৫ সালের একটি গবেষণায় দেখা গেছে,যে, ২০% নিমের পাতার ফর্মুলা প্রায় তিন ঘন্টা মশার বিরুদ্ধে কার্যকর যা অন্যান্য বানিজ্যিক ফর্মুলার চেয়ে ৭০%বেশি কার্যকর । যাইহোক, নিম পাতা মশা তাড়াতে DEET এর মতো কার্যকর ছিল না।

চালে ক্ষতিকারক পোকার আক্রমণ থেকে রক্ষা করার জন্য নিমের পাতা ব্যবহার করা হয়।


নিম পাতার ৭টি জাদুকরী উপকারিতা

নিমের পাতার তেল কি উকুন মেরে ফেলে?

হ্যাঁ,বাজারে বেশ কিছু উকুন বিরোধী শ্যাম্পু রয়েছে যেগুলোতে নিম পাতার  তেল রয়েছে। 2011 সালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, একটি নিম পাতা থেকে তৈরিকৃত পণ্য প্রায় 10 মিনিট ব্যবহারে যথেষ্ট পরিমাণে উকুন এবং তাদের ডিমগুলিকে মেরে ফেলেতে সক্ষম হয়।

অস্ত্রোপচারের আগে নিম বন্ধ করা উচিত?

অবশ্যই, যেহেতু নিম রক্তে শর্করাকে কমাতে পারে, তাই নির্ধারিত অস্ত্রোপচারের অন্তত দুই সপ্তাহ আগে নিমের পাতা গ্রহণ বন্ধ করা ভাল।

নিম পাতা কখন গ্রহণ করা উচিত?

আপনি হয়তো এখন ভাবছেন নিম পাতা কখন গ্রহণ করা উচিত, কখন খেলে তা সবচেয়ে কার্যকর হবে।

নিম পাতা রস বা ক্যাপসুল যেভাবেই খান না কেন,সকালে খালি পেটে খাওয়া সবচেয়ে কার্যকর। যা আপনার পেট পরিষ্কার করে, হজমে সহায়তা করে এবং রক্ত পরিশুদ্ধ করে।

আয়ুর্বেদের প্রাচীন বিজ্ঞান অনুসারে, নিম সমস্ত ঔষধি উদ্ভিদের রাজা। জাতিসংঘ কর্তৃক নিমকে “২১ শতকের বৃক্ষ” হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। নিম পাতার উপকারিতা ঐতিহ্যগতভাবে ত্বকের সমস্যা থেকে পেটের আলসার পর্যন্ত বিস্তৃত,যা প্রতিনিয়ত স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা হয়েছে, কিন্তু বেশিরভাগ দাবিই শক্তিশালী বিজ্ঞান দ্বারা সমর্থিত নয়। আপনি যদি কোনো কারণে নিম ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেন, তবে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।

আর আপনি যদি ডায়াবেটিস, লিভার, বা কিডনি রোগের মতো দীর্ঘস্থায়ী রোগে আক্রান্ত বা আপনি গর্ভবতী বা বুকের দুধ খাওয়াচ্ছেন,তবে ডাক্তার পরামর্শ ব্যতীত নিমের পাতা ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।

রেফারেন্স:
www.verywellhealth.com
www.unep.org/wed/tree-a-day/neem.asp

Author

You cannot copy content of this page