কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় ২০২২

কোষ্ঠকাঠিন্য

আপনি কি প্রায়শই কখনো না কখনো স্বল্পস্থায়ী বা দীর্ঘমেয়াদী কোষ্ঠকাঠিন্যে ভুগছেন? আপনার দৈনন্দিন কাজকর্ম ও স্বাস্থ্যের অবনতি হচ্ছে কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য? শারীরিক বা ভুল খাদ্যভাসের কারণে সাধারনত কোষ্ঠকাঠিন্য হয়ে থাকে। চলুন কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় কি সেই সম্পর্কে জেনে নেই।

Table of Contents

কোষ্ঠকাঠিন্য

একজন ব্যক্তির সহজভাবে মলত্যাগ করার ব্যর্থতাকে কোষ্ঠ্যকাঠিন্য বলে। সপ্তাহে তিন দিনের কম মলত্যাগ করা হলে তাকে কোষ্ঠকাঠিন্য বলে অবিহিত করা হয়। যাইহোক, আপনি কতবার মলত্যাগ করেন,এইটা ব্যক্তি থেকে ব্যক্তিতে ব্যাপকভাবে পরিবর্তিত হয়। কিছু লোকের দিনে কয়েকবার মলত্যাগ হয়, আবার অন্যদের সপ্তাহে মাত্র এক থেকে দুইবার। আপনার মলত্যাগের ধরণ যাই হোক না কেন, এটি আপনার জন্য ততক্ষণই স্বাভাবিক যতক্ষণ আপনি নিয়মত মলত্যাগ করতে পারছেন।

আপনার অন্ত্রের ধরণ যাই হোক না কেন, একটি সত্য নিশ্চিত: আপনি যত বেশি সময় চেপে মলত্যাগ করতে যাবেন, মল/মলত্যাগ করা ততই কঠিন হয়ে উঠবে।যে বৈশিষ্ট্যের জন্য আপনি সাধারণত বুঝবেন আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য হয়েছে –

  • আপনার মল যদি শুকনো এবং শক্ত।
  • আপনার মলত্যাগ বেদনাদায়ক এবং মল পাস করা কঠিন অনুভূত হয়।
  • আপনার অন্ত্র সম্পূর্ণরূপে খালি হয় নি এমন অনুভূতি।

কোষ্ঠকাঠিন্য কতটা সাধারণ?

আপনি ভাবতে পারেন আপনার একারই কোষ্ঠকাঠিন্য আছে। কিন্তু এটাও সত্য যে,কোষ্ঠকাঠিন্য হচ্ছে  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল অভিযোগগুলির মধ্যে একটি। কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণে প্রতি বছর কমপক্ষে প্রায় 2.5 মিলিয়ন মানুষ ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়।তাহলে জেনে নিন কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় গুলো।

সব বয়সের মানুষের মাঝে মাঝে কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। তবে কিছু নির্দিষ্ট বয়স ও পরিস্থিতিতে ধারাবাহিকভাবে কোষ্ঠকাঠিন্য (“দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য”) হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। এর মধ্যে রয়েছে:

  • বৃদ্ধ বয়স: বয়স্ক ব্যক্তিরা তুলনামূলকভাবে কম সক্রিয় থাকে, অল্প বয়সের তুলনায় তাদের পরিপাকতন্ত্রে ধীর বিপাক এবং পেশির সংকোচনের-প্রসারণ কম হয়ে থাকে।
  • গর্ভাবস্থায়: একজন মহিলার গর্ভবতীবস্থায় ও প্রসবের পরে নানারকম হরমোনের পরিবর্তন হয় যা তাদের কোষ্ঠকাঠিন্য প্রবণ করে তোলে। এছাড়াও গর্ভের ভিতরের শিশুটি অন্ত্রগুলিকে স্কুইশ করে, মলের উত্তরণকে ধীর করে দেয়।
  • খাদ্যভাস: আপনার কোষ্ঠকাঠিণ্য অনেকটাই আপনার খাদ্যভাসের উপর নির্ভর করে।পর্যাপ্ত পরিমাণে উচ্চ আঁশযুক্ত খাবার না খাওয়া কোষ্ঠকাঠিন্য হওয়ার অন্যতম একটি প্রধান কারণ। উচ্চ আঁশযুক্ত খাবার খাদ্যকে পরিপাকতন্ত্রের মাধ্যমে সচল রাখে।
  • নির্দিষ্ট ওষুধ গ্রহণ : নির্দিষ্ট কিছু ঔষধও আপনার কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য দায়ী।
  • কিছু স্নায়বিক (মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ডের রোগ) এবং হজমের ব্যাধি থাকার কারণেও কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে।
কোষ্ঠকাঠিন্য কি
কোষ্ঠকাঠিন্য

কোষ্ঠকাঠিন্য কিভাবে হয়?

কখনো ভেবে দেখেছেন কেন আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য হচ্ছে বা কীভাবেই বা ঘটছে? মূলত কোষ্ঠকাঠিন্য ঘটে কারণ আপনার কোলন বর্জ্য (মল/মলত্যাগ) থেকে অত্যধিক জল শোষণ করে, যা মল শুকিয়ে যায়। সময়ের ধারাবাহিকতায় এটি দীর্ঘস্থায়ীভাবে শক্ত হয়ে যায় এবং ফলে শরীর থেকে বের করা কঠিন করে তোলে।

একটু বিস্তারিতভাবে বলতে গেলে,আমাদের দেহের সকল  খাবার যেহেতু সাধারণত পরিপাকতন্ত্রের মধ্য দিয়ে যায় এবং একপর্যায়ে তা থেকে পুষ্টি শোষিত হয়। আংশিকভাবে হজম হওয়া খাদ্য (বর্জ্য) যা ছোট অন্ত্র থেকে বড় অন্ত্রে চলে যায়, তাকে কোলনও বলা হয়। কোলন এই বর্জ্য থেকে পানি শোষণ করে, যা মল নামক কঠিন পদার্থ তৈরি করে। আপনার যদি কোষ্ঠকাঠিন্য থাকে তবে খাবার পরিপাকতন্ত্রের মাধ্যমে খুব ধীরে ধীরে যেতে পারে। এটি কোলনকে বর্জ্য থেকে জল শোষণ করার জন্য আরও বেশি সময় পায়। এই শুষ্ক ও শক্ত মলকে বাইরে ঠেলে দেওয়া কঠিন হয়ে যায়।

কোষ্ঠকাঠিন্যের লক্ষণ

দীর্ঘদিন সঠিক খাদ্যাভাসের অভাব সহ নানা কারণে আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। কীভাবে বুঝতে পারবেন আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য হয়েছে? চলুন সেই সুনির্দিষ্ট কিছু লক্ষণ সম্পর্কে জেনে নেই-

কোষ্ঠকাঠিন্যের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • আপনার সপ্তাহে তিন দিনেরও কম সময় মলত্যাগ হওয়া।
  • আপনার মল শুষ্ক, শক্ত।
  • আপনার মল পাস করা কঠিন বা বেদনাদায়ক।
  • আপনার পেটে ব্যথা বা ক্র্যাম্প আছে।
  • আপনি শরীর ফোলা এবং বমি বমি ভাব অনুভব করেন।
  • মলত্যাগের পর অনুভব করেন যে, আপনার অন্ত্র সম্পূর্ণরূপে খালি হয় নি।
পেটে ব্যথা
পেটে ব্যথা

কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ

কোষ্ঠকাঠিন্যের অনেক কারণ রয়েছে। যেমন: সঠিক জীবনধারা নির্বাচন, ওষুধ, চিকিৎসা পরিস্থিতি এবং গর্ভাবস্থা। চলুন সেই কারণগুলো জেনে নেই-

কোষ্ঠকাঠিন্যের সাধারণ জীবনধারার কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • ফাইবার জাতীয় খাবার কম খাবার খাওয়া।
  • পর্যাপ্ত পানি পান না।
  • পর্যাপ্ত ব্যায়াম বা শারীরিক কসরত না করা।
  • আপনার নিয়মিত রুটিনে পরিবর্তন, যেমন ভ্রমণ বা খাওয়া বা বিভিন্ন সময়ে ঘুমাতে যাওয়া।
  • প্রচুর পরিমাণে দুধ বা পনির খাওয়া।
  • মানসিক চাপ
  • দীর্ঘসময় মল চেপে রাখার প্রবণতা।

কিছু ঔষধের জন্যও কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে, যেমনঃ

  • শক্তিশালী ব্যথার ওষুধ, যেমন কোডিন, অক্সিকোডোন (অক্সিকন্টিন®) এবং হাইড্রোমরফোন (ডিলাউডিড®) ধারণকারী মাদকদ্রব্য।
  • ননস্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ড্রাগ, যেমন আইবুপ্রোফেন (অ্যাডভিল, মট্রিন®) এবং নেপ্রোক্সেন (আলেভ®)।
  • নির্বাচনী সেরোটোনিন রিউপটেক ইনহিবিটরস (যেমন ফ্লুওক্সেটাইন [প্রোজ্যাক®]) বা ট্রাইসাইক্লিক অ্যান্টিডিপ্রেসেন্টস (যেমন অ্যামিট্রিপটাইলাইন [এলাভিল®]) সহ এন্টিডিপ্রেসেন্টস।
  • ক্যালসিয়াম বা অ্যালুমিনিয়াম ধারণকারী অ্যান্টাসিড, যেমন Tums®।
  • আয়রন ট্যাবলেট
  • অ্যালার্জির ওষুধ, যেমন অ্যান্টিহিস্টামাইনস (যেমন ডিফেনহাইড্রাইমাইন [বেনাড্রিল®])।
  • ক্যালসিয়াম চ্যানেল ব্লকার (যেমন ভেরাপামিল [ক্যালান এসআর], ডিল্টিয়াজেম [কার্ডিজেম®] এবং নিফেডিপাইন [প্রোকার্ডিয়া®]) এবং বিটা-ব্লকার (যেমন অ্যাটেনোলল [টেনরমিন®]) সহ রক্তচাপের কিছু ওষুধ।
  • মস্তিষ্ক ঠান্ডাকারী ওষুধ, যেমন ক্লোজাপাইন (ক্লোজারিল®) এবং ওলানজাপাইন (জাইপ্রেক্সা®)।
  • অ্যান্টিকনভালসেন্ট/খিঁচুনি ওষুধ, যেমন ফেনাইটোইন এবং গ্যাবাপেন্টিন।
  • অ্যান্টিনাউসিয়ার ওষুধ, যেমন অনডানসেট্রন (জোফ্রান)।

অনেক ঔষধের কারণে কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। কোন নির্দিষ্ট ঔষধ সেবনের পর যদি আপনি মনে করেন আপনার মলত্যাগে সমস্যা হচ্ছে। তবে অবশ্যই আপনার  ডাক্তার বা ফার্মাসিস্টকে জিজ্ঞাসা করুন।

কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ হতে পারে এমন চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যগত অবস্থার মধ্যে রয়েছেঃ

  • অন্তঃস্রাবী সমস্যা, যেমন আন্ডারঅ্যাক্টিভ থাইরয়েড গ্রন্থি ( হাইপোথাইরয়েডিজম ), ডায়াবেটিস , ইউরেমিয়া, হাইপারক্যালসেমিয়া ।
  • কোলোরেক্টাল ক্যান্সার ।
  • ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম (IBS) ।
  • Diverticular রোগ.
  • আউটলেট ডিজফাংশন কোষ্ঠকাঠিন্য। (পেলভিক  পেশীগুলিতে কোনো ত্রুটি। এই পেশীগুলি পেলভিস এবং তলপেটের মধ্যে থাকা অঙ্গগুলিকে সাহায্য করে, মল মুক্ত করে)
  • মেরুদণ্ডের আঘাত, মাল্টিপল স্ক্লেরোসিস , পারকিনসন্স ডিজিজ এবং স্ট্রোক সহ নিউরোলজিক ব্যাধি ।
  • লেজি বউল সিন্ড্রোম,যাতে কোলন খারাপভাবে সংকুচিত হয় এবং মল ধরে রাখে।
  • আন্ত্রিক প্রতিবন্ধকতা।
  • পরিপাকতন্ত্রের কাঠামোগত ত্রুটি (যেমন ফিস্টুলা , কোলনিক অ্যাট্রেসিয়া, ভলভুলাস, ইনটুসসেপশন , ইম্পরফোরেট মলদ্বার, বা ম্যালরোটেশন ।)
  • একাধিক অঙ্গের রোগ, যেমন অ্যামাইলয়েডোসিস , লুপাস এবং স্ক্লেরোডার্মা ।
  • গর্ভাবস্থা

কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণে কি অভ্যন্তরীণ কোনো ক্ষতি করতে পারে বা অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে?

আপনার নরম ও নিয়মিত মলত্যাগ না হলে, শরীরে কিছু জটিলতা দেখা দিতে পারে। সেইসব জটিলতার মধ্যে রয়েছে:

  • আপনার মলদ্বারে ফোলা, স্ফীত শিরা( যা সাধারনত অর্শ্বরোগ নামে পরিচিত)
  • আপনার মলদ্বারের আস্তরণে শক্ত হয়ে যাওয়া যা আপনার মল বের করে দেওয়ার চেষ্টাকে কষ্টকর করে তোলে। একে অ্যানাল ফিসার বলে।
  • মল জমা হওয়ার থলিতে সংক্রমণ যা কখনও কখনও মল থেকে কোলন প্রাচীর তৈরি করে ফলে মল আটকে যায় এবং সংক্রামিত হয়। এই অবস্থাকে বলা হয় ডাইভার্টিকুলাইটিস।
  • মলদ্বার এবং মলদ্বারে অত্যধিক মল/মলত্যাগের স্তূপ জমা হয় যা অস্বস্তির সৃষ্টি করে।
  •  স্ট্রেস ইউরিনারি ইনকন্টিনেন্স নামক অস্বস্তিকর অবস্থার সৃষ্টি করতে পারে।

নিয়মিত মলত্যাগ না করার ফলে কি আপনার শরীরে টক্সিন জমা হয়?

চিন্তা করবেন না, নিয়মিত মলত্যাগ না করলে আপনার শরীরে সাধারনত কোনো জমা হয় না। যদিও আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য হলে আপনার কোলন বেশিক্ষণ মল ধরে রাখে এবং আপনি অস্বস্তি বোধ করতে পারেন।কোলন বা মলদ্বারে বিদ্যমান ক্ষতস্থানে বর্জ্য প্রবেশ করলে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের সামান্য ঝুঁকি থাকে।তবে কোনো টক্সিন শরীরে জমা হয় না।

মাথা ব্যথা
কোষ্ঠকাঠিন্য হওয়ার ফলে মাথা ব্যথা ও হয়ে থাকে

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে, চিকিৎসক প্রথমেই আপনাকে সঠিক খাদ্যভাস ও সঠিকভাবে জীবনধারা নির্বাচনের পরামর্শ দিবেন। হালকা থেকে মাঝারি কোষ্ঠকাঠিন্যের বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আপনি বাড়িতে বসে সমাধান করতে পারেন। আপনি কি খান এবং পান করেন তার একটি তালিকা গ্রহণ করে এবং তারপরে পরিবর্তন করার মাধ্যমে স্ব-যত্ন শুরু করে দেন।

চলুন কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় সম্পর্কে জেনে নেই –

১. পানি পান করা

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার প্রথম উপায় হচ্ছে শরীরের চাহিদা অনুযায়ী পানি পান করা। দিনে দুই থেকে চার গ্লাস অতিরিক্ত পানি পান করুন। আপনার যদি নিয়মিত ক্যাফেইনযুক্ত পানীয় এবং অ্যালকোহল করার অভ্যাস থাকে, তবে তা পরিহার করুন। এগুলো আপনার শরীরকে ডিহাইড্রেট করে তোলে।

২. ফাইবারযুক্ত খাবার

আপনি যদি নিয়মিত শাকসবজি না খান,কিন্তু কোষ্ঠ্যকাঠিন্য দূর করতে চান।তবে আপনার জন্য একটি দুঃসংবাদ হচ্ছে এটা কখনোই সম্ভব নাহ। আপনি যদি আপনার খাদ্যতালিকায় ফল, শাকসবজি এবং অন্যান্য উচ্চ আঁশযুক্ত খাবার যোগ করেন, তবেই একমাত্র কোষ্ঠ্যকাঠিন্য দূর করতে পারবেন।ফাইবারের ভালো উৎস হল ফলমূল, শাকসবজি, লেবুস, এবং পুরো শস্যের রুটি এবং সিরিয়াল। ফাইবার এবং জল কোলন পাস মল সাহায্য করে। ফলের বেশিরভাগ ফাইবার ত্বকে পাওয়া যায়, যেমন আপেলের মধ্যে। বীজযুক্ত ফল আপনি খেতে পারেন, যেমন স্ট্রবেরির মধ্যে সবচেয়ে বেশি ফাইবার থাকে।প্রতিদিন 18 থেকে 30 গ্রাম ফাইবার খাওয়া উচিত।

৩. উচ্চ প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার কম গ্রহণ করুন

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় গুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে আপনার খাদ্যতালিকা থেকে মাংস, ডিম, পনির ও দুগ্ধ্যজাত খাবার কমিয়ে ফেলা। পরিমিত পরিমাণ প্রোটিন গ্রহণ করুন।

৪. মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা

আমাদের মানসিক স্বাস্থ্যের সাথে কোষ্ঠকাঠিন্য অনেকাংশে জড়িত। তাই নিজেকে উৎফুল্ল রাখার চেষ্টা করুন। মন খুশি করে এমন কাজ করুন। গান শুনন, ঘুরতে যান মোদ্দা কথা নিজের মানসিক প্রশান্তি বজায় রাখুন

৫. মলত্যাগের চাপ হলে তা চেপে রাখা থেকে বিরত থাকুন

অনেকসময় দেখা যায়,আমরা নিজেদের ব্যস্ততা বা সময় বাঁচানোর জন্য মলত্যাগের চাপ হলেও তখন যাই না। আপনারও যদি এরকম প্রবণতা থাকে,তবে আজই দূর করে ফেলেন। পায়খানার চাপ আসলে দ্রুত বাথরুমে যাবেন।আমাদের বাথরুম ব্যবহার করার দেহভঙ্গি ও কোষ্ঠকাঠিন্য হওয়ার জন্য দায়ী। তাই কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় হিসেবে প্যান বা কমোড ব্যবহার করাও সমান গুরুত্ব রাখে।

৬. নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম করুন

প্রায়ই দেখা যায়,কোষ্ঠকাঠিন্যভোগা রোগীদের বেশিরভাগই কম শারীরিক কসরত করে থাকে। দিনের বেশিরভাগ সময় শুয়ে বসে কাটালে আমাদের হজম প্রক্রিয়া ধীর হয়ে যায়, বৃহদান্ত্র পর্যাপ্ত পরিমাণে নড়াচড়া হয় না। ফলে সহজেই কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দেয়।

শারীরিক পরিশ্রম
শারীরিক পরিশ্রম

৭. একটি সঠিক খাদ্য তালিকা নির্বাচন করুন

কোন কোন খাবারগুলো আপনার কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য দায়ী হতে পারে, এবং কোন খাবারগুলো কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করবে তার একটি তালিকা তৈরি করুন।

৮. ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জেনে নিন

কিছু কিছু ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রূপ কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। তাই কোনো ঔষধ খেলে যদি কোষ্ঠকাঠিন্য হয়, অবশ্যই আপনার চিকিৎসককে সেই সম্পর্কে অবহিত করুন।

৯. কুসুম গরম পানি

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় হিসেবে সকালে খালি পেটে ও রাতে কুসুম গরম পানি বেশ কার্যকর হিসেবে বিবেচিত।

১০. ইসবগুল

এছাড়াও ঘুমানোর আগে দুইচামচ ইসবগুল খেলে তা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার বেশ ভালো উপায়।

১১. ভিটামিন-সি

খাদ্য তালিকায় ভিটামিন সি জাতীইয় খাবার এবং ম্যাগনেসিয়াম নিশ্চিত করুন। কারন ধমনীর হালকা হওয়ার সাথে এদের ব্যাপক ভুমিকা রয়েছে।

১২. চিনি ও প্রক্রিয়াজাত খাবার

চিনি ও প্রক্রিয়াজাত খাবার এড়িয়ে চলুন, দেখবেন আপনার কোনো কোষ্ঠকাঠিন্য নেই।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার  ব্যায়াম

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় হিসেবে নিয়মিত ব্যায়াম করা নিঃসন্দেহে একটি ভালো উপায়। নিয়মিত শারীরিক কসরত আপনার শরীরকে আরো কর্মক্ষম রাখে, শরীরে আরো নড়াচড়া হয়, ফলে দেহের অন্ত্রেও প্রভাব পড়ে যা আপনার মলত্যাগ করার প্রবণতাকে আরেকটু সহজতর করে দেয়। তাই প্রতিদিন হাঁটা-চলা,সাঁতার, খেলাধুলা ইত্যাদি শারীরিক কসরতে নিজেকে যুক্ত রাখুন।

শিশুদের কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়?

মায়ের বুকের দুধের উপর নির্ভরশীল শিশুদের প্রায়ই কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দেয়। আর সেক্ষেত্রে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার একমাত্র উপায় মায়ের খাদ্যভাসে পরিবর্তন আনা। এছাড়া শিশুদের নিয়মিত কুসুম গরম পানিতে গোসল করাতে হবে।চেষ্টা করবেন ওদের কিছু না কিছু শারীরিক কসরতে যুক্ত রাখতে।পটি করানোর জন্য পেটে ম্যাসাজ করতে পারেন।

দই কি কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য দায়ী?

আপনি হয়তো ইতোমধ্যেই জেনে গেছেন যে,দুগ্ধ্যজাত খাবার অনেকটাই কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য দায়ী। সেই হিসাবে বলা যায়, দই ও কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য দায়ী। রাতে ঘুমানোর আগে দই খেলে তা আপনার এসিডিটি বাড়ায় যার প্রভাব অনেকাংশে কোষ্ঠকাঠিন্যের উপর পড়ে। তাই রাতে দই খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

কোন খাবারগুলো কোষ্ঠকাঠিন্যের বেশি দায়ী?

কোষ্ঠকাঠিন্যের বেশিরভাগই নির্ভর করে আপনার খাদ্যভাসের উপর।তাই কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য কোন খাবার বেশি বা কম দায়ী তা জানা প্রয়োজন। যেমন :এলকোহল, লাল মাংস, দুধ, প্রক্রিয়াজাত খাবার, চিনি, চা,কফি বা কোমল পানীয়, গ্লুটেনিন সমৃদ্ধ খাবার ইত্যাদি কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য বেশ ভালোভাবে দায়ী।

কলা কি কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে নাকি ঘটায়?

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার জন্য মূলত পাকা কলা খাওয়া যেতে পারে। তবে আপনি যদি কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগেন আর কাচা কলা খান,তবে আপনার মলত্যাগ বন্ধ হয়ে যাবে। মূলত পেট খারাপ হলে, কাঁচা কলা খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।তবে জেনে রাখা ভালো, কলা কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য দায়ী কিনা তা নিয়ে কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়া যায় নি।

ডিম খাওয়ার কারণে কি কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দিতে পারে?

অবশ্যই, কেননা ডিম উচ্চ প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার। এতে ফাইবারের পরিমাণ কম। ফলে ডিম সহজেই কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ হতে পারে। তবে এ বিষয়ে, এখনো পর্যাপ্ত পরিমাণ বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়া যায় নি।

কখন আপনি কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য ডাক্তারের পরামর্শ নেবেন?

আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য নিয়ে ডাক্তারের সাথে কথা বলা মোটেও সহজ কথোপকথন হবে না। যেহেতু আপনি ঘরোয়া ভাবেও আপনার দীর্ঘদিনের কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে পারছেন না, তাই একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়াই উত্তম। আপনি কখন বুঝবেন আপনার কোনো ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত-

  • দীর্ঘদিন ধরে কষা পায়খানা
  • পায়খানা শক্ত ও রং কালো
  • মলত্যাগের করার সময় প্রচন্ড ব্যথা অনুভুত হয়
  • পেট ফাঁপা থাকলে
  • বমিবমি ভাব
  • পেটব্যথা
  • ক্রমশ ওজন হ্রাস
  • কারণ ছাড়া জ্বর

দীর্ঘদিন এই লক্ষণগুলো থাকলে আপনার কোনো অভিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উচিত। আপনার ডাক্তার প্রথমে আপনাকে আপনার পূর্ববর্তী চিকিৎসা ইতিহাস, মলত্যাগ, আপনার জীবনধারা এবং রুটিন সম্পর্কে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করবেন।

এই প্রশ্নগুলি অন্তর্ভুক্ত হতে পারে:
  • আপনার বর্তমান এবং অতীতের রোগ/স্বাস্থ্যের অবস্থা কি?
  • আপনি কি সম্প্রতি কোন ওজন হ্রাস বা বৃদ্ধি করেছেন?
  • আপনার কি পূর্বে কোনো পাচনতন্ত্রের অস্ত্রোপচার হয়েছে?
  • অন্যান্য রোগের জন্য এবং কোষ্ঠকাঠিন্য উপশমের জন্য আপনি কোন ওষুধ এবং সম্পূরক গ্রহণ করেন?
  • আপনার পরিবারের কারো কি কোষ্ঠকাঠিন্য বা পরিপাকতন্ত্রের রোগ বা কোলন ক্যান্সারের ইতিহাস আছে?
  • আপনি একটি কোলনোস্কোপি আছে?
মলত্যাগ সম্পর্কে এই প্রশ্নগুলি অন্তর্ভুক্ত হতে পারে:
  • আপনার কত ঘন ঘন মলত্যাগ হয়?
  • আপনার মল দেখতে কেমন?
  • আপনি কি আপনার মলে কোন রক্ত ​​বা লাল দাগ লক্ষ্য করেছেন?
  • আপনি কি কখনও টয়লেট বাটিতে বা টয়লেট পেপারে মুছার পরে রক্ত ​​দেখেছেন?
জীবনযাত্রার অভ্যাস এবং রুটিন সম্পর্কে
  • আপনি কি খাবার এবং পানীয় পান করেন?
  • আপনার ব্যায়াম রুটিন কি?

কোষ্ঠকাঠিন্য নির্নয়

এতক্ষণ কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় জানলেন,এখন আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য কীভাবে নির্ণয় করা হয় তা একটু জেনে নিন।ডাক্তার আপনার হিস্ট্রি নেওয়ার পরও আপনাকে কিছু টেস্ট বা শারীরিক পরিক্ষাও দিবেন। যার মধ্য অতি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণগুলি হচ্ছে  (তাপমাত্রা, নাড়ি, রক্তচাপ) পরীক্ষা । তিনি আপনার পেটের শব্দ শোনার জন্য স্টেথোস্কোপ ব্যবহার করবেন। ব্যথা, কোমলতা, ফোলাভাব এবং পিণ্ডগুলি পরীক্ষা করার জন্য আপনার পেটেও স্পর্শ করা হবে। সচেতন থাকুন যে, আপনার ডাক্তার একটি মলদ্বার পরীক্ষাও করবেন। এটি আপনার মলদ্বারের ভিতরের একটি আঙুল পরীক্ষা। এটি আঙুল দ্বারা অনুভূত হতে পারে এমন একটি দ্রুত পরীক্ষা।

আপনার কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ খুঁজে বের করার জন্য যে ল্যাব পরীক্ষা করা হয়?

আপনার ডাক্তার যেকোন পরীক্ষা বা টেস্ট দিতে পারেন না। ডাক্তার আপনার লক্ষণ, চিকিৎসা ইতিহাস এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্যের উপর নির্ভর করে যথাযথ টেস্ট করতে বলবেন।

ল্যাব পরীক্ষা: রক্ত ​​এবং প্রস্রাব পরীক্ষা হাইপোথাইরয়েডিজম , রক্তাল্পতা এবং ডায়াবেটিসের লক্ষণ প্রকাশ করে । একটি মলের নমুনা সংক্রমণ, প্রদাহ এবং ক্যান্সারের লক্ষণগুলির জন্য পরীক্ষা করে।

ইমেজিং পরীক্ষা: কম্পিউটেড টমোগ্রাফি (সিটি), ম্যাগনেটিক রেজোন্যান্স ইমেজিং (এমআরআই) বা নিম্ন গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ট্র্যাক্ট সিরিজগুলি আপনার কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য দায়ী কারণগুলো চিহ্নিত করতে পারেন।

কোলনোস্কোপি: কোলনোস্কোপি বা সিগমায়েডোস্কোপি – আপনার কোলনের অভ্যন্তরীণ দৃশ্য পরিদর্শন করতে পারে। এই প্রক্রিয়া চলাকালীন, ক্যান্সার বা অন্যান্য সমস্যা পরীক্ষা করার জন্য টিস্যুর একটি ছোট নমুনা (বায়োপসি) নেওয়া যেতে পারে এবং যে কোনো পলিপ পাওয়া গেলে তা অপসারণ করা হবে।

কোলোরেক্টাল ট্রানজিট অধ্যয়ন: এই পরীক্ষাগুলিতে একটি তেজস্ক্রিয় পদার্থের একটি ছোট ডোজ গ্রহণ করা হয় বড়ি আকারে বা খাবারে, এবং তারপর সময় এবং কীভাবে পদার্থটি আপনার অন্ত্রের মধ্য দিয়ে চলে তা উভয়ই ট্র্যাক করা।

অন্যান্য অন্ত্রের কার্যকারিতা পরীক্ষা: আপনার ডাক্তার এমন পরীক্ষা দিতে পারে যার মাধ্যমে আপনার মলদ্বার কতটা ভালভাবে মল ধরে রাখে এবং ছেড়ে দেয় তা নির্ণয় করা হয়। এই পরীক্ষাগুলির মধ্যে রয়েছে একটি নির্দিষ্ট ধরণের এক্স-রে ( ডিফেকোগ্রাফি ), যা কোষ্ঠকাঠিন্যের আউটলেটের কার্যকারিতার পরিক্ষা করার জন্য মলদ্বারে একটি ছোট বেলুন প্রবেশ করানো হয়। (বেলুন বহিষ্কার পরীক্ষা এবং অ্যানোরেক্টাল ম্যানোমেট্রি )


কষা পায়খানা দূর করার ঘরোয়া চিকিৎসা — – ডা. তাসনিম জারা (চিকিৎসক, ইংল্যান্ড)

কোষ্ঠকাঠিন্যের ব্যবস্থাপনা ও চিকিৎসা

ওষুধ/পরিপূরক পর্যালোচনা

ঘরোয়া পদ্ধতি ছাড়াও, আপনার ডাক্তারের পরামর্শ ও ঔষধ কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় হিসেবে বেশ কার্যকর ভূমিকা রাখবে। অনেক সময় ঔষধের সাইড ইফেক্ট হিসেবে কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দেয়।আপনার উচিত ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী তার পরিপূরক ঔষধ ব্যবহার করা।

প্রেসক্রিপশন ওষুধ

কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসার জন্য কিছু প্রেসক্রিপশন ওষুধ পাওয়া যায়। এর মধ্যে রয়েছে lubiprostone (Amitiza®), prucalopride (Prudac®, Motegrity®), plecanatide (Trulance®), lactulose (Cephulac®, Kristalose®) এবং linaclotide (Linzess®)। আপনার পরীক্ষার ফলাফলের উপর ভিত্তি করে আপনার ডাক্তার আপনার জন্য সবচেয়ে ভালো কাজ করতে পারে এমন ওষুধ বাছাই করবেন।

সার্জারি

কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসার জন্য খুব কমই অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হয়। আপনার ডাক্তার অবশ্য অস্ত্রোপচারের সুপারিশ করতে পারেন, যদি কোলনে কাঠামোগত সমস্যার কারণে কোষ্ঠকাঠিন্য হয়। এই সমস্যার উদাহরণগুলির মধ্যে রয়েছে কোলনে বাধা (অন্ত্রের প্রতিবন্ধকতা), অন্ত্রের একটি অংশে সংকীর্ণতা (অন্ত্রের কঠোরতা), মলদ্বারে ছিঁড়ে যাওয়া (মলদ্বারে ফিসার) বা যোনিতে মলদ্বারের অংশ ভেঙে যাওয়া (রেকটাল প্রল্যাপস) ) আউটলেট ডিসফাংশন কোষ্ঠকাঠিন্যের কিছু কারণ অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে চিকিৎসা করা যেতে পারে। আপনার কোলন বা মলদ্বারে ক্যান্সার পাওয়া গেলেও আপনার অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হতে পারে।

শেষ কথা

কোষ্ঠকাঠিন্য আমাদের মোটামুটি কম-বেশি সবাইকেই ভোগায়। তাই পাচকতন্ত্রের সুস্থতার জন্য কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় গুলো বাস্তবিকভাবেই প্রয়োগ করার চেষ্টা করুন।সঠিক খাদ্যাভাসের সাথে সাথে নিয়মিত মলত্যাগ করার অভ্যাস গড়ে তুলুন। কোনো কারনে কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দিলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন।

Source: https://www.healthline.com/health/digestive-health/how-to-make-yourself-poop

বিঃদ্রঃ  এই ব্লগের প্রত্যেকটা ব্লগ পোস্ট Sylhetism ব্লগের নিজস্ব ডিজিটাল সম্পদ। কেউ ব্লগের কোন পোস্ট কিংবা আংশিক অংশ ব্লগের কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কপি পেস্ট করে অন্য কোথাও প্রকাশ করলে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা করার অধিকার রাখে। এবং অবশ্যই কপিরাইট ক্লাইম করে যে মাধ্যমে এই ব্লগের পোস্ট প্রকাশ করা হবে সেখানেও কমপ্লেইন করা হবে।

Sylhetism ব্লগের কোন লেখায় তথ্যগত কোন ভুল থাকলে আমাদের Contact পেইজে সরাসরি যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো, আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তথ্য যাচাই করে লেখা আপডেট করে দিবো।

Sylhetism ব্লগের কোন স্বাস্থ বিষয়ক পোস্টের পরামর্শ নিজের বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করার আগে অবশ্যই বিশেষজ্ঞদের মতামত নিবেন, আমরা স্বাস্থ বিষয়ে কোন বিশেষজ্ঞ না, আমাদের উদ্দেশ্য ও লক্ষ হচ্ছে সঠিক তথ্য পরিবেশন করা। সুতারাং কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার দায়ভার অবশ্যই আমরা নিতে পারবো না। ধন্যবাদ, ব্লগ কর্তৃপক্ষ।

Author

You cannot copy content of this page