ব্রডব্যান্ড কি? ব্রডব্যান্ড কিভাবে কাজ করে? সুবিদা অসুবিধা কি?

ব্রডব্যান্ড লাইন

ব্রডব্যান্ড (Broadband) হল একটি উচ্চ গতির ইন্টারনেট সংযোগ। যার ইন্টারনেট স্পিড ১ এমবিপিএস থেকে শুরু হয়। সহজ করে বললে ব্যান্ডউইথ এর স্পীড ১ এমবিপিএস থেকে শুরু হলে তাকে ব্রডব্যান্ড বলা হয়। (“ব্রড ব্যান্ডউইথ”) এর সংক্ষিপ্ত নাম হচ্ছে ব্রডব্যান্ড। এই ইন্টারনেট দ্রুত হওয়ায়, যা ব্যবহারকারীদের দ্রুত বড় ফাইল আপলোড, স্ট্রিম এবং ডাউনলোড করতে অনেক সুবিধা দেয়। 

ব্রডব্যান্ডের ইতিহাস

যখন প্রথম এই ইন্টারনেট সংযোগ এসেছিল, তখন মনে হয়েছিল এটি জাদু থেকে কোন অংশে কম নয়। বাংলাদেশে ২০০৬ সালের দিকে প্রথম এই ইন্টারনেট চালু করা হয়েছিল। যা মানুষকে অনলাইনে থাকা আগের চেয়ে সহজ করে তুলেছে।ব্রডব্যান্ড আগে, ‘ন্যারব্যান্ড’ ডায়াল-আপ ইন্টারনেট সংযোগের মাধ্যমে ইন্টারনেট অ্যাক্সেস করত। যার স্পিড অত্যন্ত ধীর ছিল। যা টেলিফোন লাইনের শ্রবণযোগ্য ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে কাজ করত। এই ইন্টারনেট অনেক দ্রুত এবং আমাদের ইন্টারনেট সুবিধা দেয়ার জন্য অনন্য মাধ্যম। 

যেভাবে কাজ করে?

ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা (ISP)-আইএসপি দ্বারা সরবরাহ করা হয়। এটি একটি ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান। আইএসপি রাউটার এবং প্রয়োজনে সকেট ইনস্টল করার ব্যবস্থা করে। কিছু কিছু আইএসপি-র নিজস্ব ইন্টারনেট অবকাঠামো আছে যেমন স্কাই এবং টকটালক, তবে, এটি ব্যয়বহুল এবং জটিল, এই কারণেই আইএসপিগুলির বেশিরভাগই ফোন কো-অপ সহ তাদের সেবা প্রদানের জন্য শেয়ারযোগ্য নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে।

ব্রডব্যান্ড কিভাবে কাজ করে
ব্রডব্যান্ড কিভাবে কাজ করে

ব্রডব্যান্ড প্রকারভেদ

এই ইন্টারনেটের বিভিন্ন ধরনের প্রকারভেদ রয়েছে। আমরা আজকে ৪ ধরনের ব্রডব্যান্ড সংযোগ নিয়ে আলোচনা করব।

১) ডিএসএল ইন্টারনেট।

২) পেয়ার বন্ডিং ইন্টারনেট।

৩) ফাইবার ইন্টারনেট।

৪) কেবল ইন্টারনেট।

ডিএসএল ইন্টারনেট

(ডিজিটাল সাবস্ক্রাইবার লাইন) এর সংক্ষিপ্ত নাম হল ডিএসএল। ব্রডব্যান্ডের প্রথম দিকের ইন্টারনেট এর মধ্যে এটি একটি ছিল। ডিএসএল সিগন্যাল ভয়েস লাইন থেকে বিভিন্ন ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে, যার ফলে এটির মাধ্যমে আপনি টেলিফোনেও কথা বলতে পারবেন। আপনার কম্পিউটারে সংযোগ আনতে একটি মডেম ব্যবহার করলে ডিএসএল আরও “ব্যান্ডউইথ” পায় যা গতি আরও বাড়ায়। ডিএসএল এর গতি ১০০ এমবিপিএস পর্যন্ত হতে পারে।

পেয়ার বন্ডিং ইন্টারনেট

পেয়ার বন্ডিং যা কিছু DSL সংযোগের জন্য একটি বিকল্প সেবা। যা সাধারণত একক-লাইন DSL পরিষেবার তুলনায় দ্বিগুণ ব্যান্ডউইথ প্রদান করে। সাধারণ ডিএসএল ইন্টারনেট সংযোগের সাথে কেবলমাত্র এক জোড়া তামার তার ব্যবহার করা হয়ে থাকে কিন্তু পেয়ার বন্ডিং এর সাথে, দুটি তামার তারের জোড়া (চারটি পৃথক তার) ব্যবহার করা হয়। যার ফলে আপনার ইন্টারনেটের গতি দ্বিগুণ পাওয়া যায়। পেয়ার বন্ডিং ব্যবহার করার সময়, গতি ১৪০ এমপিবিএস পর্যন্ত হতে পারে। 

ফাইবার ইন্টারনেট

ফাইবার ইন্টারনেট ফাইবার-অপটিক ক্যাবল এর মাধ্যমে কাজ করে। যা হাজার হাজার ক্ষুদ্র, স্বচ্ছ ফাইবার স্ট্র্যান্ডের উপর আলোর মাধ্যমে ডেটা পাঠায়। যেহেতু আলো হল ডেটা প্রেরণের দ্রুততম মাধ্যম, তাই ফাইবার-অপটিক ইন্টারনেট অবিশ্বাস্যভাবে অনেক দ্রুত এবং এর ফলে একটি উচ্চমানের এবং নির্ভরযোগ্য সংযোগ হয় প্রদান করা হয়। ফাইবার ইন্টারনেট ১ জিবিপি-এস পর্যন্ত ইন্টারনেট সংযোগ প্রদান করতে পারে এবং এটি সময়ের সাথে আরও বেশি হবে বলে আশা করা হচ্ছে। ফাইবার একটি বিস্তৃত প্রযুক্তি যা শীঘ্রই আরও ব্যাপকভাবে উপলব্ধ হবে।

কেবল ইন্টারনেট

কেবল ইন্টারনেট DSL এর মতই সাধারণ ভাবে কাজ করে। এটি একই তার ব্যবহার করে যা একটি উচ্চ গতির ইন্টারনেট সংযোগ বহন করার জন্য পরিষেবা প্রেরণ করে। একটি মডেম ব্যবহার করে। আপনি এই কেবল লাইনের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে পারেন এবং একটি উচ্চ গতির নিরবচ্ছিন্ন ডেটা সংযোগ উপভোগ করতে পারেন। কেবল ইন্টারনেটের গতি ডাউনলোডের জন্য ৯৪০ এমবিপিএস এবং আপলোড করার জন্য ৫০ এমবিপিএস পর্যন্ত হতে পারে।

মোবাইল ব্রডব্যান্ড প্রযুক্তি কি?

মোবাইল ব্রডব্যান্ড প্রযুক্তি এটি ওয়্যারলেস ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্ক (WWAN) এর মাধ্যমে কাজ করে। সহজ কথায়, এটি রেডিও টাওয়ারের মাধ্যমে পোর্টেবল ডিভাইসে ওয়্যারলেস হাই-স্পিড ইন্টারনেট অ্যাক্সেস প্রদান করতে সাহায্য করে। এই ইন্টারনেট প্রযুক্তির সাহায্যে আপনি ইন্টারনেট সংযোগের জন্য জিএসএম বা সিডিএমএ-ভিত্তিক সেলুলার সেবার মাধ্যমে যে কোনও জায়গায় ইন্টারনেট সংযোগ করতে পারেন। এটি ওয়াইফাই হটস্পটের উপর নির্ভর না করেই ব্যক্তিরা একটি স্থান থেকে অন্য স্থানে যাওয়ার সময় একটি ইন্টারনেট সংযোগ বজায় রাখতে সক্ষম হয়। বর্তমানে ২ ধরনের মোবাইল ব্রডব্যান্ড এর সংযোগ দেখতে পাওয়া যায়।

১) তারবিহীন ইন্টারনেট।

২) স্যাটেলাইট ইন্টারনেট।

তারবিহীন ইন্টারনেট

স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ওয়্যারলেস ইন্টারনেট কাজ করে। এই ইন্টারনেট অন্যান্য উন্নত বিশ্বে গ্রামীণ এলাকায় এর ব্যবহার সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। কারন ওই সব এলাকায় তারযুক্ত ইন্টারনেটের (ডিএসএল, কেবল বা ফাইবার) ব্যবহার করা তুলনামূলক কঠিন। তারবিহীন ইন্টারনেট এর স্পিড ২০০ এমবিপিএস পর্যন্ত হতে পারে।


ব্রডব্যান্ড কি জানতে এই ভিডিওটি আগ্রুহীরা দেখতে পারেন।

স্যাটেলাইট ইন্টারনেট

স্যাটেলাইট ইন্টারনেট পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে এবং সরাসরি তথ্য প্রেরণ করে। এটি অন্যান্য ধরণের  ইন্টারনেটের মতো দ্রুত বা সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়, তবে এটি বিশ্বের যে কোনও জায়গায় ব্যবহার করা যেতে পারে। ডাউনলোডের জন্য স্যাটেলাইটের গতি সাধারণত ২৫ এমবিপিএস থেকে ১০০ এমবিপিএসের এর মত হতে পারে। আপলোড করার জন্য গড়ে ২৫ এমবিপিএস পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ প্রোগ্রামিং কি এবং কেন? জেনে নিন কোন প্রোগ্রামিং ভাষাগুলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

মোবাইল ব্রডব্যান্ডের সুবিধা

মোবাইল ব্রডব্যান্ড প্রযুক্তির সবচেয়ে বড় সুবিধা হল ইন্টারনেটে সাব সময় বা প্রায় সব সময় অ্যাক্সেস করা যায়। এই   প্রযুক্তির মাধ্যমে ব্যক্তিরা যে কোন স্থান থেকে, যে কোন সময় ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে। এটিতে খুব সহজে ব্যবহারকারীর ওয়েব ব্রাউজার ব্যবহার করতে, একটি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে লগ ইন করতে বা ক্লাউডের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে পারে। স

ট্যাব বা ল্যাপটপে, এই  প্রযুক্তি ব্যবহারকারীদের ইউটিউবে ভিডিও দেখতে, ইমেল পাঠাতে, ইন্টারনেট ব্রাউজ করতে, ক্লাউড-ভিত্তিক স্টোরেজ অ্যাকাউন্ট থেকে সামগ্রী অ্যাক্সেস করতে এবং চলতে চলতে ফাইল আপলোড করতে সক্ষম। এই প্রযুক্তি ব্যক্তিদের তাদের ল্যাপটপ এবং ট্যাবএ ইন্টারনেট ব্যবহার করার ক্ষমতা প্রদান করে। এই  প্রযুক্তির সক্ষমতা এবং ব্যবহারযোগ্যতা বৃদ্ধি করে।

ব্রডব্যান্ড ও ওয়াইফাই

ব্রডব্যান্ড হল এক ধরনের হাই-স্পিড ইন্টারনেট সংযোগ যেটিকে আপনি একটি ইন-হোম ওয়্যারলেস সংযোগ স্থাপন করতে পারবেন। এই ইন্টারনেট কিভাবে ওয়াইফাই হিসেবে কাজ করে সেটা সহজ করে বুঝিয়ে বলছি। ধরুন আপনি একটি ব্রডব্যান্ড সংযোগ  নিয়েছেন তখন একটি রাউটারের মাধ্যমে   আপনার বাড়িটিকে সম্পুর্ন ইন্টারনেট অথবা ওয়াই-ফাই এর আওতায় আনতে পারবেন।  রাউটার ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটকে ওয়্যারলেস সিগন্যাল এ  রূপান্তরিত করে। যার ফলে আপনাকে একাধিক ডিভাইসকে ইন্টারনেটে ওয়্যারলেসভাবে সংযুক্ত করতে দেয়।

রাউটারের নমুনা
রাউটারের নমুনা

ইন্টারনেট এর ব্যবহার

নিচে কাজ ভেদে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট এর ব্যবহার দেওয়া হল।

ব্যবহার 
যতটুকু স্পীড আপনার প্রয়োজন 
ওয়েব ব্রাউজিং এর জন্য 
৩-৪ এমবিপিএস
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এর জন্য  যেমন-

ফেস-বুক,ইন্সটাগ্রাম,টুইটার ইত্যাদি 

৩-৫ এমবিপিএস
ভিডিও কল এর জন্য 
৩-৫ এমবিপিএস
অনলাইন গেমিং এর জন্য 
৩-৬ এমবিপিএস
এইচডি স্ট্রিমিং এর জন্য 
৫-১০ এমবিপিএস
ই-মেইল
 এমবিপিএস

ব্রডব্যান্ডের জনপ্রিয়তা

মনে প্রশ্ন জাগা স্বাভাবিক ব্রডব্যান্ড সংযোগ কেন জনপ্রিয়? এই ইন্টারনেট সংযোগ এখন বর্তমানে ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। বিশেষ করে যেসব কোম্পানি ডায়াল-আপ ইন্টারনেট ব্যবহারে হতাশ, তাদের জন্য এই ইন্টারনেট সংযোগ হল মুনাফা অর্জনের একটি নতুন উপায়। কোম্পানি ছাড়াও, পৃথক ব্যবহারকারীরা এই সংযোগ ব্যবহার করে উপকৃত হয়। এই ইন্টারনেট সংযোগগুলি গতির পরিপ্রেক্ষিতে অনেক সুবিধা প্রদান করে।  Statista মতে ২০১৯ সাল পর্যন্ত বিশ্বে ইন্টারনেট বা ব্রডব্যান্ড ব্যাবহারকারী ছিলো প্রায় ৪০০০ মিলিওন, নিচের চিত্রে লক্ষ করুন।

Number of internet users worldwide from 2005 to 2019
Number of internet users worldwide from 2005 to 2019

ব্রডব্যান্ডের সুবিধা

অন্যান্য ইন্টারনেট সংযোগের মতো, এই ইন্টারনেট এর বেশ কিছু সুবিধা এবং অসুবিধা রয়েছে। এই কানেকশন ব্যবহার করার আগে ভালো এর মন্দ জেনে নেয়া জরুরি। নিম্নে এই ব্যাপারে আলোচনা করা হলঃ 

 ১) কর্মক্ষমতা

এই সংযোগের প্রধান সুবিধা হল এটি যে গতি প্রদান করে যা একটি ডায়াল-আপ সংযোগের তুলনায়, একটি ব্রডব্যান্ড সংযোগ প্রায় ১০০ গুন দ্রুত।  এই উচ্চ গতি বড় বড় ভিডিও, সঙ্গীত এবং অন্যান্য বড় ফাইল ডাউনলোড করার জন্য এটি ব্যবহার করা আদর্শ। 

২) নির্ভরযোগ্যতা

একটি ডায়াল-আপ সংযোগ যেখানে ঘন ঘন বন্ধ থাকে সেখানে এই সংযোগ সাধারণত কম ব্যর্থতার সম্মুখীন হয়। অনবরত আপনি ইচ্ছামত চালাতে পারবেন এই ইন্টারনেট। তাই এটি এই ইন্টারনেটকে একটি নির্ভরযোগ্য ধরনের সংযোগে পরিণত করেছে।

 ৩) প্রাপ্যতা

এই সংযোগ ২৪ ঘন্টায় পাওয়া যায়।  একবার ব্যবহারকারী কম্পিউটার চালু করলে এই সংযোগ সবসময় পাওয়া যায়।  ব্যবহারকারীর নাম এবং পাসওয়ার্ড বারবার লিখে সময় নষ্ট করার দরকার নেই এবং এছাড়াও, এই ইন্টারনেট সংযোগে প্রযুক্তিগত ত্রুটির সম্ভাবনা খুবই কম।

 ৪) সঙ্গতি

এই সংযোগের দ্বারা প্রদত্ত গতি এতই সামঞ্জস্যপূর্ণ যে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা প্রায় অসম্ভব।  এমনকি খারাপ আবহাওয়ার দিনেও, ব্যবহারকারীরা ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন।

৫) বাধা

 ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময়, এই ইন্টারনেট সংযোগ ফোন লাইনে কোন বাধা সৃষ্টি করে না।  ইন্টারনেট ব্যবহারের পাশাপাশি একই ফোন লাইন সার্ভিসের জন্যও এটি ব্যবহার করা যেতে পারে। আপনি ওয়াই-ফাই  নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে এমনটি করতে পারবেন। যাতে খুব সহজে আপনি একই লাইনে মোবাইল এবং কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারতারনে

ব্রডব্যান্ডের অসুবিধা

এর সুবিধার পাশাপাশি ব্রডব্যান্ড এর বেশ কিছু অসুবিধা রয়েছে। নিম্নে এই ব্যাপারে আলোচনা করা হলঃ 

১) খরচ

 ব্রডব্যান্ড সংযোগ সাধারণত একটি ডায়াল-আপ সংযোগের চেয়ে বেশি খরচ হয়। এই  ইন্টারনেট  যারা সব সময় অনলাইনে থাকে তাদের জন্য দুর্দান্ত মাধ্যম। কিন্তু যারা অনলাইনে এক্টিভ কম থাকে এই সকল ব্যবহারকারীদের জন্য এটি নয়। তাদের লাভ এর চেয়ে উল্টো লোকশান হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

২) গতি

যদিও ব্রডব্যান্ড সংযোগ অনেক বেশি গতির ক্ষমতার অধিকারী তবুও এটি সব সময় নিশ্চিত করা যায় না। এটি  ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারের (ISP) সার্ভারের উপরও নির্ভর করে। আইএসপি -তে যে কোনো সমস্যা অবশ্যই এই ইন্টারনেট সংযোগ গতিতে প্রভাব ফেলবে।

৩) নিরাপত্তা

এই সংযোগ সব সময় কম্পিউটার এর সাথে এটাচড থাকে। যার ফলে আপনার নেটওয়ার্ক নিরাপত্তা হুমকিতে থাকে। তবে বিশেষ করে ওয়্যারলেস  সংযোগের ক্ষেত্রে বেশি হতে পারে। হ্যাকার এবং অন্যান্য অনুমোদিত লোকেরা আপনার অজান্তেই আপনার এই  সংযোগ অ্যাক্সেস করার একটি ভাল সম্ভাবনা থাকে। অতএব, এটি সুরক্ষিত করার জন্য ফায়ারওয়ালের মতো ব্যক্তিগত সুরক্ষা প্রয়োজন।

৪) প্রবেশযোগ্যতা

গ্রামীণ এলাকায় বসবাসকারী কিছু লোকের এই  সংযোগ অ্যাক্সেস করতে সমস্যা হয়। বিশেষ করে ADSL এবং ফাইবার সংযোগের জন্য। কারণ এই  সংযোগে ব্যবহৃত সমস্ত ফোন লাইন DSL পরিষেবা দ্বারা সমর্থিত নয়।

৫) সংকেত শক্তি

 তার ছাড়া এই  সংযোগ প্রায়শই কম সংকেত শক্তিতে ভোগে কারণ এটি অনেক বাধা অতিক্রম করতে হয়। এটি দেয়াল, স্ল্যাব, এবং ছাদের মধ্য দিয়ে যাওয়ার কারনে শেষ পর্যন্ত সংকেতকে দুর্বল করে দিতে পারে। কখনও কখনও খারাপ আবহাওয়ার মতো পরিবেশগত কারণগুলিও দুর্বল সংকেতের পিছনে একটি কারণ হতে পারে।

সংযোগ খরচ

ব্রডব্যান্ড এর খরচ এর স্পিড এর উপর নির্ভর করে। বর্তমান সরকার এই ইন্টারনেট এর দাম নির্ধারিত করে দিয়েছে। নিম্নলিখিত ছকটি দেখলে এর দাম সম্পর্কে আপনি স্পষ্ট ধারনা পেয়ে যাবেন।

ইন্টারনেট স্পিড
টাকার পরিমান
৫ এমবিপিএস স্পিড ইন্টারনেট 
৫০০ টাকা
১০ এমবিপিএস স্পিড ইন্টারনেট
৮০০ টাকা
২০ এমবিপিএস স্পিড ইন্টারনেট
১২০০ টাকা

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) এই  ইন্টারনেটের প্রতি মেগাবিট প্রতি সেকেন্ডে (এমবিপিএস) ৫০০ টাকা অভিন্ন মূল্য নির্ধারণ করেছে, যা দেশজুড়ে সমস্ত ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারী (আইএসপি) অনুসরণ করবে।

ট্যারিফ প্ল্যান অনুযায়ী ইউনিয়ন পরিষদ পর্যায়ে সর্বাধিক চার্জ হবে ৫০০ টাকা।

ইন্টারনেট এর দাম

বর্তমান সরকার ইন্টারনেট এর দাম নির্দিষ্ট করে দিয়েছে। উপরোক্ত তথ্যগুলো থেকে আশা করি এর দাম সম্পর্কে জানতে পারেছেন। যদি আপনার ইন্টারনেট প্রোভাইডার এই নির্ধারিত দাম থেকে বেশি রাখে তাহলে আপনি এর ব্যবস্থা নিতে পারবেন। আইএসপিএবির এর সভাপতি আমিনুল হাকিম স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন যে যদি কোন ব্যক্তি এই নির্ধারিত দাম থেকে ইন্টারনেট সেবা না পেয়ে থাকে তাহলে আইএসপিএবিকে অভিযোগ করতে বলা হয়েছে।আপনি নিম্ন লিখিত ইমেইল মেইল করে আপনার অভিযোগটি জানাতে পারবেন। 

ইমেইলটি হলঃ [email protected] 

এই মেইলে অভিযোগ লিখে পাঠিয়ে দিলে এই সংগঠনটি গ্রাহকদের সমস্যা সমাধানের জন্য উদ্যোগ নেবে।

বিঃদ্রঃ এই ব্লগের প্রত্যেকটা ব্লগ পোস্ট Sylhetism ব্লগের নিজস্ব ডিজিটাল সম্পদ। কেউ ব্লগের কোন পোস্ট কিংবা আংশিক অংশ ব্লগের কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কপি পেস্ট করে অন্য কোথাও প্রকাশ করলে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা করার অধিকার রাখে। এবং অবশ্যই কপিরাইট ক্লাইম করে যে মাধ্যমে এই ব্লগের পোস্ট প্রকাশ করা হবে সেখানেও অভিযোগ সাবমিট করা হবে।

ধন্যবাদ, ব্লগ কর্তৃপক্ষ।

যেসব প্রশ্ন বেশি জিজ্ঞেস করা হয়

 

প্রশ্নঃ ব্রডব্যান্ড ও ওয়াইফাই কি এক?

উত্তরঃ না, ব্রডব্যান্ড ও ওয়াইফাই দুইটা আলাদা জিনিষ। তবে আপনার বাসায় কিংবা অফিসে ব্রডব্যান্ডের সংযোগ থাকলে সেই সংযোগ থেকে রাউটারের মাধ্যমে ওয়াইফাই সুবিদা ভোগ করতে পারবেন।

প্রশ্নঃ ব্রডব্যান্ড এর গতি কত?

✅উত্তরঃ ব্রডব্যান্ডের গতি নির্ভর করে আপনার প্যাকেজের উপর, আপনি বেশি গতির প্যাকেজ ক্রয় করলে বেশি গতি পাবেন, উপরের চার্টে ব্রডব্যান্ডের গতির লিস্ট দেওয়া হয়েছে।

প্রশ্নঃ ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের দাম কেমন?

✅উত্তরঃ ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের দাম নির্ভর করবে আপনি কেমন স্পীড বা গতির ব্রডব্যান্ড চান তার উপর, স্বাভাবিক ভাবেই বেশি গতির ইন্টারনেট সংযোগের দাম বিশ্বের সব দেশেই বেশি হয়ে থাকে। উপরের সেকশনে বাংলাদেশ সরকারের বেধে দেওয়া দামের চার্ট দেওয়া হয়েছে।

Author

Leave a Comment

Your email address will not be published.

You cannot copy content of this page