প্রোগ্রামিং কি এবং কেন? প্রোগ্রামিং এর কাজ কি? প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ কিভাবে শিখবো? ২০২২

programming

খুব সহজ করে যদি বলি প্রোগ্রামিং  হচ্ছে কম্পিউটারকে দিক নির্দেশনা দেয়ার মাধ্যম। প্রোগ্রামিং  (Computer programming) এর মাধ্যমে আমরা কম্পিউটারকে বিভিন্ন কাজের নির্দেশনা দিয়ে থাকি। প্রোগ্রামিং কাজ করে  অ্যালগরিদমের মাধ্যমে। প্রোগ্রামিং ভাষা এটি কম্পিউটার দ্বারা কার্যকর করা হয়। অ্যালগরিদম ছাড়া কোন প্রোগ্রাম হতে পারে না।  কম্পিউটার প্রোগ্রামিং বিজ্ঞানের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।  প্রোগ্রামিং ভাষা আমাদের জীবনের সাথেই একটি মৌলিক অংশ হয়ে ওঠেছে।

প্রোগ্রামিং অ্যালগরিদমগুলি আমাদের সমস্যা সমাধান করার জন্য কাজ করে থাকে। অ্যালগরিদমগুলি প্রয়োজনীয় ডেটার পরিপ্রেক্ষিতে সমস্যার সমাধান এবং প্রয়োজনীয় ফলাফল তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে থাকে। প্রোগ্রামিং ভাষাগুলিকে অবশ্যই একটি প্রক্রিয়া এবং ডেটা সংরক্ষণ করার জন্য একটি সুন্দর উপায় প্রদান করতে হয়। এই লক্ষ্যে, ভাষাগুলি নিয়ন্ত্রণ এবং ডেটার প্রকার সরবরাহ করে।কম্পিউটারে সমস্ত ডেটা আইটেম বাইনারি ডিজিটের স্ট্রিং হিসাবে উপস্থাপন করা হয়। এই স্ট্রিংগুলিকে একটি অর্থ দেওয়ার জন্য, আমাদের ডেটা টাইপ থাকতে হয়। বেশিরভাগ প্রোগ্রামিং ভাষা পূর্ণসংখ্যার জন্য একটি ডেটা টাইপ প্রদান করে। কম্পিউটারের মেমরিতে বাইনারি ডিজিটের স্ট্রিংগুলিকে পূর্ণসংখ্যা হিসাবে ব্যাখ্যা করে থাকে। কম্পিউটার প্রোগ্রামের সমস্যাগুলো সমাধান করা প্রায়ই অনেক জটিল হয়ে পরে। দিন দিন প্রোগ্রামিং ভাষাগুলোকে আরোও সহজ করে গড়ে তোলার চেষ্টা চলছে।

Table of Contents

প্রোগ্রাম

প্রোগ্রাম হচ্ছে একটি গাণিতিক এবং ক্রমিক ফাংশনের একটি গ্রুপ যা একসাথে একটি শ্রেণীর অংশ হিসেবে কাজ করে। যখন তাদের শ্রেণীবুদ্ধ করা হয় তখন এই ফাংশনগুলি একটি প্রোগ্রাম সম্পাদন করে। প্রতিটি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ বিভিন্ন ধরনের কাজের উপর দৃষ্টি প্রদান করে থাকে। শুধু তাই নয় প্রোগ্রাম কম্পিউটারকে বিভিন্ন উপায়ে কমান্ড দিয়ে থাকে কাজ পরিচালনা করার জন্য।

কোডিং চিহ্ন
কোডিং চিহ্ন

প্রোগ্রামিং ভাষা

প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজের ইতিহাস আসলে আমরা  যা চিন্তা করেন তার থেকেও অনেক আগে প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজের প্রচোলন ছিল। ধারনা করা হয় কম্পিউটারের কোডগুলি আবিষ্কার করা হয় ১৮০০ এর দশকের প্রথম দিকে। তারপর থেকে  প্রায় ৯০০০ হাজার ধরনের প্রোগ্রামিং ভাষা আবিষ্কার করা হয়েছে। এই ভাষাগুলির মধ্যে অনেকগুলি কম্পিউটার এবং এর ফাংশন ছিল। এটি ১৯৪০ সালের দিকে সর্ব প্রথম আধুনিক কম্পিউটার তৈরি করা হয়েছিল। যাইহোক, ১৮৮৪ সালে চার্লস ব্যাবেজ সর্ব প্রথম কম্পিউটার আধুনিক প্রোগ্রামিং ভাষা তৈরি করেছিলেন। বর্তমানে এখন বিভিন্ন কোডিং এবং প্রোগ্রামিং ভাষার একটি বিশাল ব্যবহার লক্ষ করা যায়। সর্বাধিক জনপ্রিয় প্রোগ্রামগুলোর  মধ্যে ১৫০ এর কাছাকাছি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ রয়েছে। তবে বহুল ব্যবহার করা কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজের সংখ্যা কিন্তু অনেক কম।

জনপ্রিয় প্রোগ্রামিং ভাষা

আধুনিক প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজগুলির কিছু গুরুত্বপূর্ণ দিক নির্দেশনা রয়েছে।আমরা জানি পুরো পৃথিবীতে ১৫০ এরও বেশি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ রয়েছে। টিআইওবিই প্রোগ্রামিং কমিউনিটি ইনডেক্স এই সংস্থাটি তাদের একটি মাসিক একটি সারভে থেকে জানা যায় যে প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজগুলি র‍্যাঙ্কিং এ রয়েছে সেরা  ৫ টি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ।

৫টি ভাষার মধ্যে রয়েছে:

  • পাইথন (Python)
  • জাভা (Java)
  • সি/সি++ (CC++, C#)
  • জাভা স্ক্রিপ্ট (Java Script)
  • পিএইচ  PHP (Hypertext Preprocessor)
  • এসকিএল (SQL)

আপনি যদি ভাল করে লক্ষ্য করেন যে, এই তালিকায় এমন দুটি ভাষা আছে যা এই ৫ টি ভাষার মধ্যে  অন্তর্ভুক্ত নেই। এমন দুটি ভাষা হচ্ছে – এইচটিএমএল এবং  সিএসএস। এই দুটি ভাষা ওয়েব সাইটের গঠন নির্ধারণ করে। যাইহোক, এই ৫ টি ভাষা  তালিকাভুক্ত করা হয় না, এবং এই দুটি ভাষা সাধারণত প্রোগ্রামিং ভাষা হিসাবে বিবেচিত হয় না। বলা যায়, আপনি যদি ওয়েবের জন্য কোড করার চিন্তা করে থাকেন এবং জাভাস্ক্রিপ্ট বা অন্যান্য ভাষা ব্যবহার করে ওয়েবের কাজ করবেন তাহলে আপনি এইচটিএমএল এবং সিএসএস উভয়েরই উপরই ভালো ধারনা থাকতে হবে।

সি প্রোগ্রামিং

সি একটি সাধারণ প্রোগ্রামিং ভাষা যা অত্যন্ত জনপ্রিয়। সি ব্যবহার করা অনকে সহজ। এটি একটি কাঠামোগত প্রোগ্রামিং ভাষা। সি ব্যাপকভাবে বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন, উইন্ডোজের মতো অপারেটিং সিস্টেম এবং ওরাকল ডাটাবেস, গিট, পাইথন ইন্টারপ্রেটার, এবং আরও অনেক জটিল প্রোগ্রাম লিখতে ব্যবহৃত হয়। সি#, সি ++, জাভা, পাইথন এবং আরও অনেক কিছু সি থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে তৈরি হয়েছে।

সি ভাষার ইতিহাস

সি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজটি প্রথম ১৯৭২ সালে আবিষ্কার করা হয়। ডেনিস রিচি – সি ভাষার প্রতিষ্ঠাতা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত (আমেরিকান টেলিফোন এবং টেলিগ্রাফ) এর বেল ল্যাবরেটরিতে ডেনিস রিচি সি প্রোগ্রামিং ভাষা তৈরি করেছিলেন। ডেনিস রিচি সি  ভাষার প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে পরিচিত।

সি এর ব্যবহার

সি একটি বহুমুখী ভাষা যা বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। এটি প্রধানত সিস্টেম অ্যাপ্লিকেশন তৈরির জন্য ব্যবহৃত হয়, যার মানে অপারেটিং সিস্টেম যেমন উইন্ডোজ এবং লিনাক্স এগুলোতে সি প্রোগ্রামিং ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আপনি গেম, গ্রাফিক্স এবং অ্যাপ তৈরি করতে সি ব্যবহার করতে পারেন।।

কিভাবে শিখবেন

আপনি যদি কোডিং এবং প্রোগ্রামিং এর জগতে একজন নবাগত হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার জন্য সি শুরু করার জন্য একটি মোটামুটি কঠিন জায়গা। সি শেখার জন্য  অনলাইন প্রচুর টিউটোরিয়াল রয়েছে। যা দেখে আপনি খুব সহজ ভাবে সি শিখতে পারবেন।

নিচে সি ভাষার একটি কোড দেখানো হলোঃ-

#include <stdio.h>

int main()

{

   /* print function displays the content that is

    * passed between the double-quotes.

    */

   printf(“Hello World”);

   return 0;

}

উপরোক্ত কোডের আউটপুটঃ-

Hello World

পাইথন

প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজগুলি যত সহজেই শেখা যায়, তার মধ্যে পাইথন একটি।  আপনি যদি কেবল কোড শেখা শুরু করেন, তবে শুরু করার জন্য একটি ভাল রাস্তা হচ্ছে পাইথন। আপনি চাইলে বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যম থেকে পাইথন শিখে নিতে পারেন।

পাইথন কি

পাইথন একটি অবজেক্ট-ওরিয়েন্টেড, উচ্চ-স্তরের প্রোগ্রামিং ভাষা যা ১৯৯২ সালে চালু হয়েছিল। এটি এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যে এটি লিখতে এবং বোঝার জন্য তুলনামূলকভাবে অন্যান্য ভাষা থেকে অনেক সহজ। যারা  দ্রুত উন্নতি করতে চায় তাদের জন্য এই ভাষাটি একটি আদর্শ। এই বর্তমান প্রেক্ষাপটে এটি একটি খুব জনপ্রিয় ভাষা। পাইথনের প্রচুর কাজ পাওয়া যায়। এর চাহিদা অনেক।

পাইথনের ইতিহাস

পাইথন একটি বহুল ব্যবহৃত প্রোগ্রামিং ভাষা। এটি প্রাথমিকভাবে ১৯৯১ সালে গুইডো ভ্যান রসম পাইথন ভাষা আবিষ্কার করেছিলেন। পরবর্তীতে পাইথন সফটওয়্যার ফাউন্ডেশন এর মাধ্যমে এর ব্যাপক প্রসার ঘটেছিল। এটি মূলত কোড পঠনযোগ্যতার উপর জোর দেওয়ার জন্য তৈরি করা হয়েছিল। 

পাইথনের ব্যাবহার

পাইথন একটি বহুমুখী ভাষা। পাইথনের অনেক  অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে। সাধারণ ব্যবহারের জন্য যেমন ভাল, তেমনি ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনগুলির জন্যও ভালো। এর বিশেষায়নের অনেক ক্ষেত্রও রয়েছে। এর একটি ভাল উদাহরণ হল কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) এবং মেশিন লার্নিং।

পাইথন শিখা

অনলাইনে অনেক ফ্রি পাইথন কোর্স রয়েছে যা আপনি খুব সহজ ভাবে শুরু করতে পারবেন। আপনি যদি প্রোগ্রামিংয়ে সম্পূর্ণ নতুন হন তাহলে আপনার জন্য পাইথন প্রোগ্রামিং একটি আদর্শ জায়গা।

নিচে সি ভাষার একটি কোড দেখানো হলোঃ-

if 5 > 2:

  print(“Five is greater than two!”)

উপরোক্ত কোডের আউটপুটঃ-

Five is greater than two!

জাভা

প্রোগ্রামিং এর জন্য আরেকটি দরকারী ভাষা হল জাভা শেখা। এটি একটি বহুমুখী এবং সাধারণ উদ্দেশ্যমূলক ভাষা যা জাভাস্ক্রিপ্ট এবং পাইথনের অনুরূপ।

জাভা কি

জাভা একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় প্রোগ্রামিং ভাষা। এর সবচেয়ে জনপ্রিয় দিকটি হলো এই যে, একবার আপনি জাভাতে একটি কোড লিখলে, এটি জাভা প্ল্যাটফর্মের সাথে যেকোনো ডিভাইসে চলতে পারে।

জাভা স্ক্রিপ্টের লগো
জাভা স্ক্রিপ্টের লগো

জাভা ভাষার ইতিহাস

১৯৯১ সালে জুন মাসে  জেমস গসলিংয়ের “ওক” নামে একটি প্রকল্প হিসেবে জাভা শুরু করেছিলেন।  ১৯৯৫ সালে প্রথমবারের মতো  বাস্তবায়ন করেছিলেন জাভা ১.০ নামের প্রোগ্রামটি। জাভা ১৯৯৫ সালে প্রকাশিত হওয়ার পর জাভা ইন্টারঅ্যাক্টিভিটি এবং মাল্টিমিডিয়া প্রদানের ক্ষমতা দেখিয়েছিল যে এটি ওয়েবের জন্য বিশেষভাবে উপযুক্ত।

জাভা এর ব্যাবহার

কিছু প্রধান ব্যবহারের মধ্যে রয়েছে ব্যবসায়িক সফ্টওয়্যার, ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন এবং মোবাইল অ্যাপস। গুগল অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম জাভাকে স্থায়ি ভাষা হিসাবে ব্যবহার করছে।

কিভাবে শিখা

জাভা শিখার একটি আদর্শ মাধ্যম হচ্ছে  মোবাইল গেম তৈরির উপর কাজ করা। এটি আপনাকে জাভার কিছু প্রয়োজনীয় ধারণা এবং এর নির্মাণ কাজের সাথে পরিচয় করিয়ে দেবে। আপনি যদি আরও বিশদ অনুসন্ধানের সন্ধান করেন তবে পাইথন এবং জাভা এক্সপার্টট্র্যাকের সাথে আমাদের সফ্টওয়্যার ডেভেলপমেন্ট শুরু করার জন্য আদর্শ জায়গা হচ্ছে জাভা শিখা।

নিচে সি ভাষার একটি কোড দেখানো হলোঃ-

public class Main {

  public static void main(String[] args) {

    System.out.println(“Hello World”);

  }

}

উপরোক্ত কোডের আউটপুটঃ-

Hello World

জাভাস্ক্রিপ্ট

এর নাম জাভার সাথে মিল থাকা সত্ত্বেও জাভাস্ক্রিপ্ট সরাসরি জাভার সাথে সম্পর্কিত নয়। যাইহোক, এটি  জাভার মত সাধারণত ব্যবহার করা হয়। আপনি যদি ক্লায়েন্ট-সাইড ওয়েব ব্রাউজার কোডিংয়ে আগ্রহী হন, তাহলে এই ভাষা আপনাকে সাহায্য করবে।

জাভাস্ক্রিপ্ট কি

জাভাস্ক্রিপ্ট একটি উচ্চ স্তরের অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ। ভাষাটি ১৯৯৫ সালের দিকে আবিস্কার করা হয়েছিল। আপনি দেখতে পাবেন যে আপনার ব্যবহার করা অনেক ওয়েব ব্রাউজারে জাভাস্ক্রিপ্ট সমর্থন করে।

জাভাস্ক্রিপ্ট এর ইতিহাস

ব্রেন্ডন আইচ ১৯৯৫ সালে জাভাস্ক্রিপ্ট তৈরি করেছিলেন। কিংবদন্তী নেটস্কেপ নেভিগেটর তিনি একটি ওয়েব ব্রাউজার আবিষ্কার করেছিলেন। সেই সময়ে, জাভা কোডিং ভাষা দ্রুত গতি অর্জন করছিল তার আবিষ্কার করা ব্রাউজার এর মাধ্যমে। নেটস্কেপ, ব্রেন্ডন আইচকে একটি বহুমুখী প্রোগ্রামিং ভাষা ডিজাইন করার জন্য আবেদন করেছিলেন যা ওয়েব ডেভেলপমেন্টকে গতিশীল করতে পারে এবং জাভার জন্য একটি স্ক্রিপ্টিং হিসেবে কাজ করতে পারে।

জাভাস্ক্রিপ্ট এর ব্যাবহার

উল্লিখিত হিসাবে, জাভাস্ক্রিপ্ট একটি ভাষা যা কোড লিখতে ব্যবহৃত হয় যা ওয়েব ব্রাউজারে চলে। যেমন, এটির একটি বিস্তৃত অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে এবং বিশেষ করে ওয়েব পেজগুলোকে ইন্টারেক্টিভ এবং রেসপনসিভ করার জন্য জাভাস্ক্রিপ্ট উপযোগী। এটি প্রায়শই এইচটিএমএল এবং সিএসএসের পাশাপাশি অ্যানিমেশন, ভিডিও প্লেয়ার এবং এমনকি ব্রাউজার-ভিত্তিক গেমগুলি যুক্ত করার জন্য ব্যবহৃত হয়।

কিভাবে শিখা

আপনি যদি জাভাস্ক্রিপ্ট, এইচটিএমএল এবং সিএসএস -এর কোডিংয়ে নতুন হন, তাহলে অনলাইনে অনেক  ওয়েব ডেভেলপমেন্ট কোর্স রয়েছে যেখান থেকে আপনি শুরু করতে পারবেন। এই সকল কোর্সগুলো  থেকে আপনি জাভাস্ক্রিপ্ট ব্যবহার করে কীভাবে আপনার নিজস্ব ইন্টারেক্টিভ ওয়েবসাইট তৈরি করতে শিখতে পারবেন। আপনার শিখার একটি ভিন্ন জায়গা হচ্ছে জাভাস্ক্রিপ্ট, jQuery, এবং JSON। এগুলো ব্যবহার করার জন্য  বিভিন্ন কোর্সগুলো আপনাকে কিছু মৌলিক বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করতে সাহায্য করতে পারে।

কিছু প্রোগ্রামিং ভাষার লগো
কিছু প্রোগ্রামিং ভাষার লগো

নিচে জাভাস্ক্রিপ্ট  ভাষার একটি কোড দেখানো হলোঃ-

<!DOCTYPE html>

<html>

<body>

<p id=”demo”>Click the button to change the layout of this paragraph</p>

<button onclick=”myFunction()”>Click Me!</button>

<script>

function myFunction() {

let x = document.getElementById(“demo”);

x.style.fontSize = “25px”;

x.style.color = “red”;

}

</script>

</body>

</html>

উপরোক্ত কোডের আউটপুটঃ-

Click the button to change the layout of this paragraph

Click Me!

পিএইচপি

পিএইচপি হল আরেকটি সহজে শেখার কোডিং ভাষা যা বিনামূল্যে এবং পেইড কোর্স উভয়ই  রয়েছে। এই ভাষাটি অনেকটা জাভাস্ক্রিপ্টের মতো, এটি মূলত ওয়েবসাইটে কোডিংয়ের জন্য ব্যবহৃত হয়। বর্তমান ওয়েব সাইটের বাজারে পিএইচপির সবচেয়ে বেশি ব্যবহার দেখা যায়।

পিএইচপি কি?

পিএইচপি: হাইপারটেক্সট প্রিপ্রসেসর একটি উচ্চ স্তরের, অবজেক্ট-ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ। যদিও কিছু উপায়ে এটি জাভাস্ক্রিপ্টের অনুরূপ, পিএইচপি হল ক্লায়েন্ট-সাইড স্ক্রিপ্টিং ল্যাঙ্গুয়েজ। যেমন, এটি প্রায়ই জাভাস্ক্রিপ্টের সাথে একসাথে ব্যবহৃত হয়। যেমন- পিএইচপি যদি পেইন্টব্রাশ হয়, জাভাস্ক্রিপ্ট হল পেইন্ট।

পিএইচপিএর  ইতিহাস

পিএইচপি হল সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্ভার-সাইড স্ক্রিপ্টিং ল্যাঙ্গুয়েজ।  এটি ১৯৯৪ সালে রাসমুস লারডফ ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর জন্য আবিষ্কার করেছিলেন। দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে, পিএইচপি জজনপ্রিয় ভাষা হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। বর্তমানে পিএইচপি ভাষা পিএইচপি গ্রুপ দ্বারা পরিচালিত হয় এবং ক্রমাগত উন্নয়নে কাজ করছে। পিএইচপি মানে হাইপারটেক্সট প্রিপ্রসেসর যা “ব্যক্তিগত হোম পেজ” এর প্রাথমিক নাম থেকে নেয়া হয়েছিল।

পিএইচপিএর ব্যবহার

পিএইচপির অনেক ব্যবহার আছে, যদিও বেশিরভাগই ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্টের জন্য। উদাহরণস্বরূপ, আপনি একটি ওয়েবসাইটকে গতিশীল এবং ডাটাবেস পরিচালনা করতে এটি ব্যবহার করা হয়।

নিচে পিএইচপি ভাষার একটি কোড দেখানো হলোঃ-

<!DOCTYPE html>

<html>

<body>

<h1>My first PHP page</h1>

<?php

echo “Hello World!”;

?>

</body>

</html>

উপরোক্ত কোডের আউটপুটঃ-

My first PHP page

Hello World!

এসকিউএল

স্ট্রাকচার ক্যোয়ারী ল্যাঙ্গুয়েজ হল এসকিউএল, কখনও কখনও সিকুয়েল বলা হয়।এই ভাষাটি একটি ডোমেইন-নির্দিষ্ট ভাষা যা ডেটাবেসে ধরে রাখা এবং ডেটা পরিচালনার জন্য ডিজাইন করা হয়। এখন পর্যন্ত উল্লিখিত বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ভাষার অনেকগুলি থেকে এটি একদম ভিন্ন।

এসকিউএল ইতিহাস

এসকিউএল প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজটি প্রথম তৈরি হয়েছিল ১৯৭০ এর দশকে আইবিএম গবেষক রেমন্ড বয়েস এবং ডোনাল্ড চেম্বারলিন এর মাধ্যমে।  ভাষাটির প্রাথমিক ভাবে নাম দেয়া হয়েছিল, SEQUEL (স্ট্রাকচার্ড ইংলিশ ক্যোয়ারী ল্যাঙ্গুয়েজ)। এই সিস্টেমটি ১৯৭০ এর শেষ এর দিকে এই নাম সংস্করণের পরে SEQUEL থেকে SQL এ পরিবর্তন করা হয়েছিল।  এর কারণ হল “SEQUEL” নামটি ইতিমধ্যে হকার সিডলি দ্বারা ট্রেডমার্ক করা হয়েছিল, যা ছিল যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি বিমান কোম্পানি।

এসকিউএল ব্যবহার

এসকিউএল মূলত ডাটাবেসের সাথে যোগাযোগের জন্য ব্যবহৃত হয়। যেমন, এটি সার্ভার ডেভেলপার, ডাটাবেস অ্যাডমিনিস্ট্রেটর এবং সফটওয়্যার ডেভেলপাররা বিভিন্ন শিল্পে ব্যবহার করে। যাইহোক, সম্প্রতি, এটি ডেটা বিশ্লেষণ এবং বড় ডেটা মাইনিংয়ের মতো ক্ষেত্রেও ব্যবহৃত হয়েছে।

এসকিউএল শিখা

আপনি যদি এই বিষয়ে নতুন হন, তাহলে আপনাকে বিভিন্ন ধরনের ভালো পেইড কোর্স রয়েছে যা ডেটাবেস এবং এসকিউএল -শুরু করতে সাহায্য করবে। এখানে, আপনি কিভাবে ডাটাবেস কাজ করে এবং কিভাবে এসকিউএল ডেটা অনুসন্ধান এবং ম্যানিপুলেট করতে ব্যবহার করা যায় সে সম্পর্কে জানতে পারবেন।

নিচে এসকিউএল ভাষার একটি কোড দেখানো হলোঃ-

CREATE TABLE HelloWorld (phrase TEXT);

INSERT INTO HelloWorld VALUES (“Hello, World!”);

INSERT INTO HelloWorld VALUES (“Goodbye, World!”);

SELECT COUNT(*) FROM HelloWorld;

উপরোক্ত কোডের আউটপুটঃ-

Hello, World!

প্রোগ্রামিং এর গুরুত্ব

আপনি যদি আপনার কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ এর উপর দক্ষতা অর্জন করার কথা ভেবে থাকেন, তাহলে আপনাকে প্রোগ্রামিং ভাষা, ক্লাস, ফাংশন এবং কমান্ড উপর ধারণা থাকতে হবে, যদি আপনি বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন, সফ্টওয়্যার বা বিভিন্ন প্রোগ্রাম তৈরি করতে চান। এছাড়াও, আপনি এমন প্রোগ্রাম তৈরি করতে পারবেন যা বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেমে কাজ করে যেমন আইও-এস বা এন্ড্রয়েড। এই প্রোগ্রামগুলির বিভিন্ন ফাংশন এবং ক্লাস রয়েছে, এই অপারেটিং সিস্টেমগুলো বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ভাষার উপর নির্ভর করে। ওয়েবের সমস্ত অ্যাপ্লিকেশন কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ব্যবহার করে তৈরি করা হয়। আমরা প্রতিদিন যেই অ্যাপ্লিকেশনগুলো প্রতিনিয়ত ব্যবহার করে থাকি সেই অ্যাপ্লিকেশনগুলোর ভাষাগুলি একটা একেক ধরনের এবং ভিন্ন ভিন্ন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ ব্যবহার করা হয়। কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ভাষা শিখতে পারলে আপনাকে একটি বহুমুখী কম্পিউটার প্রোগ্রামার হতে সাহায্য করবে।

যেভাবে প্রোগ্রাম শিখবেন

প্রোগ্রামিং সহজে এবং দ্রুত বোঝার অন্যতম সেরা উপায় হল টিউটোরিয়াল বা কোর্স।  প্রোগ্রামার হতে হলে আপনাকে সর্বপ্রথম যেটি আপনি করতে পারেন সেটি হল একজন ভালো প্রোগ্রামার এর সাথে আলোচনা করা যা আপনাকে আপনাকে দ্রুত একটি ভালো প্রোগ্রামার বানাতে সাহায্য করবে। 

আপনি যেই প্রতিষ্ঠানে শিখতে যাবেন সেইখানে আপনি অনেক   সহ-প্রোগ্রামার পেয়ে যাবেন। সহ-প্রোগ্রামারদের সাথে আপনার কোড নিয়ে আলোচনা করতে পারেন এছাড়াও আপনি ফোরাম বা বিভিন্ন ধরনের সাইট থেকে সাহায্য নিতে পারেন। যখন আপনি প্রোগ্রামিং শিখবেন তখন সাহায্য চাইতে দ্বিধা করবেন না। নতুনরা এই ভুলটি করে এবং যখন তাদের সাহায্য চাওয়ার প্রয়োজন হয় তখন তারা লজ্জা বোধ করে। আপনি অবশ্যই প্রশ্ন করবেন আপনার বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে। এটি আপনাকে প্রোগ্রামার হিসেবে গড়ে তুলতে সাহায্য করবে খুব সহজে এবং যদি আপনি এটি না করেন তবে আপনি পরে কোডিং করতে গিয়ে ভুল করবেন। সুতরাং সহজে এবং দ্রুত ধারণাগুলি বোঝার জন্য একজন পরামর্শদাতা খুঁজে পাওয়া বা সহকর্মী প্রোগ্রামারদের সাহায্য নেওয়া ভাল। আপনার পরামর্শদাতা বা পেশাদার প্রোগ্রামার আপনাকে আরও ভালভাবে গাইড করতে পারবে।আসুন প্রোগ্রামিং শেখার ধাপগুলি এবং সমস্যা সমাধানের দক্ষতা তৈরির কিছু টিপস নিয়ে আলোচনা করি।

১) ভাষা নির্বাচন

অনেক শিক্ষার্থীরাই এই প্রাথমিক বিষয়গুলি এড়িয়ে যায় এবং সরাসরি প্রধান সরঞ্জাম এবং প্রযুক্তিতে ঝাঁপ দিয়ে দেয়। এটি একটি মারাত্মক ভুল। আপনার প্রাথমিক বিষয়গুলো পরিষ্কার না হলে আপনি আরও বিভ্রান্ত এবং ভুল করবেন। তাই প্রথমে যে প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজটি আপনার কাছে সবচেয়ে আরামদায়ক বা ভালো ধারনা অর্জন করেছেন সেই  ল্যাঙ্গুয়েজটি বেছে নিন।যেমন- (পাইথন বা সি ++)  ইত্যাদি এগুলো অনেক ভাল কিন্তু  এটি আপনার লক্ষ্যের উপর নির্ভর করবে যে আপনি কোন ল্যাঙ্গুয়েজটি শিখে আগাতে চান।

আপনার পছন্দের ল্যাঙ্গুয়েজটি নির্বাচন করা হয়ে গেলে তারপর আপনার পছন্দের ভাষা ব্যবহার করে প্রাথমিক ভিত্তি স্থাপন তৈরি করুন। বর্তমানে আপনি ইন্টারনেটের সাহায্য নিতে পারেন এবং খুব সহজ ভাবে এই কাজ গুলো আপনি শিখে নিতে পারবেন। GeeksforGeeks, Codecademy, HackerRank ইত্যাদি সাইট গুলো থেকে আপনি খুব সহজ ভাবে এই প্রাথমিক  বিষয়গুলো শিখে নিতে পারবেন।GeeksforGeeks এ কিছু প্রাথমিক টিপস অনুসরণ করতে পারেন। যখন আপনি সেই প্রাথমিক বিষয়গুলি দিয়ে শুরু করবেন তখন এটি আপনার সমস্যা এবং সমাধানের দক্ষতাও তৈরি করবে।

  • বেশিরভাগ কোর্স বা টিউটোরিয়াল  প্রোগ্রামিং ভাষা শেখানোর সাথে শুরু হয়, এটি ভাল তবে সমস্যাগুলি সমাধান করার জন্য কীভাবে প্রোগ্রামিং ভাষা ব্যবহার করতে হয় তা বুঝতে হবে আপনাকে। যে কোন একটি ভাষার সাথে লেগে থাকুন। প্রথমে সবকিছু শেখার চেষ্টা করবেন না। বেশিরভাগ শিক্ষার্থীরাই এক ভাষা থেকে অন্য ভাষার উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে যা কেবল সময়ের অপচয়। প্রাথমিকভাবে, একটি ভাষার সাথে লেগে থাকা ভাল। ধরুন আপনি যদি জাভা ডেভেলপার হতে চান তাহলে জাভা শিখুন। বেশিরভাগ নতুন প্রোগ্রামারদের জন্য প্রোগ্রামিং ভাষা শেখা খুব কঠিন কিন্তু আপনি প্রতিদিন অনুশীলন শুরু করলে আপনার মস্তিষ্ক শেষ পর্যন্ত মনে রাখতে সক্ষ্মম হবে প্রোগ্রামিং ভাষা গুলো শিখতে।
  • প্রতিদিন একটি করে প্রোগ্রাম তৈরি করার চেষ্টা করুন। প্রথমে ছোট প্রোগ্রামগুলি করার চেষ্টা করুন এবং তারপরে জটিলটিতে যান তবে ধারাবাহিকতা বজায় রাখুন।
  • আপনি যা শিখছেন প্রাথমিক ভিত্তিতে একটি ছক তৈরি করুন। উদাহরণস্বরূপ, একটি ক্যালকুলেটর বা এমন কিছু তৈরি করুন যা আপনার জন্য আকর্ষণীয় মনে হয়।আপনি কোথাও আটকে গেলে কীভাবে গুগল করবেন তা শিখুন।

২) ডেটা স্ট্রাকচার ও অ্যালগরিদম

ডেটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদম হচ্ছে প্রোগ্রামিং এর প্রাণকেন্দ্র। আপনি যখন কোন ভাষার সাথে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন এবং কিছু মৌলিক প্রোগ্রাম তৈরি করবেন এর পরবর্তী কাজটি হলো আপনাকে ডেটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদম শিখতে হবে। আপনি যদি আপনার ডেটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদমের মৌলিক বিষয়গুলি বুঝতে পারেন তবে আপনার সমস্যা সমাধানের দক্ষতা তৈরিতে আরও ভাল হবে। বুঝার চেষ্টা করুন যে কোন সমস্ত ডেটা স্ট্রাকচার সব জায়গায় ব্যবহার করা যায় না। তাই যেকোনো ধরনের সমস্যার জন্য প্রথমে আপনাকে একটি অ্যালগরিদম প্রয়োগ করতে হবে যা একটি নির্দিষ্ট সমস্যা সমাধানের জন্য ধাপে ধাপে প্রক্রিয়া গঠন করে এবং তারপর সমাধানের জন্য আপনাকে সঠিক ডেটা স্ট্রাকচার বেছে নিতে হবে। সমস্যা সমাধানের জন্য ডেটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদমের সঠিক সমন্বয় সত্যিই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ডেটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদম বাস্তবায়ন করতে শিখুন, প্রতিদিন আপনার প্রোগ্রামিং ভাষায় এটি অনুশীলন করুন। GeeksforGeeks  এই সাইটটি নতুনদের জন্য ডেটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদমের সমস্যা অনুশীলন শুরু করার জন্য ভাল। কিছু প্রাথমিক বিষয় শেখার সময় অনুসরণ করার জন্য কিছু দরকারী টিপস নিচে দেওয়া হল।

আবার একসাথে ডেটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদমের সমস্ত তত্ত্ব বা ধারণা নেয়ার চেষ্টা করবেন না। একটি একক বিষয় শিখুন, উপরে উল্লিখিত সাইটগুলিতে অনুশীলন করুন এবং তারপরে পরবর্তী বিষয়ে যান। আপনি আপনার জন্য উপযুক্ত একটি নির্দিষ্ট শেখার কৌশল বানিয়ে নিতে পারেন।

  • যখন আপনি বড় সমস্যার দিকে যাবেন, তখন বড় সমস্যাগুলিকে ছোট অংশে ভেঙে ফেলুন এবং তারপর চূড়ান্ত আউটপুট বা সমাধান পেতে এই অংশগুলি সমাধান করুন।
  • অনুশীলন করুন। প্রোগ্রামিংয়ে আপনার হাত পাকা করুন এবং যদি সম্ভব হয় বিভিন্ন ওয়েবসাইটে প্রতিযোগিতামূলক প্রোগ্রামিংয়ে অংশগ্রহণ করুন। আপনি আত্মবিশ্বাস অর্জন করবেন এবং সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে আপনি অনেক ভালো হয়ে উঠবেন।
  • রিয়েল-ওয়ার্ল্ড প্রকল্পগুলির ডেটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদমগুলি কীভাবে ব্যবহার করে তা শিখুন। উদাহরণস্বরূপ: ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনগুলিতে, আপনি (অ্যারে এবং স্ট্রিং) এর প্রচুর ব্যবহার দেখতে পাবেন।
  • ধরুন আপনি প্রাথমিক বিষয়গুলো জানেন, আপনি ডেটা স্ট্রাকচার এবং অ্যালগরিদমের মৌলিক বিষয়গুলি জানেন, এখন আপনার শিখার উপর ভিত্তি করে একটি অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করুন। আপনি আপনার পূর্ববর্তী অ্যাপ্লিকেশন বা প্রকল্পের একটি বৈশিষ্ট্য বাস্তবায়নের জন্য এই ধারণাগুলি ব্যবহার করার চেষ্টা করতে পারেন, যা আপনাকে আপনার প্রকল্পটি প্রসারিত করতে সহায়তা করবে এবং সমস্যাগুলি সমাধান করার জন্য আপনাকে সাহায্য করবে।

৩) প্রকল্প নির্মাণ করুন

যেমন আমরা ইতিমধ্যে উল্লেখ করেছি যে যখন আপনার নিজের উপর একটি ছক তৈরির করার কথা আসে তখন বেশিরভাগ নবাগত প্রোগ্রামারাই আটকে যায়। আপনি যদি মনে করেন যে টিউটোরিয়ালই আপনাকে আপনার লক্ষে পৌছে দিবে তাহলে আপনি ভুল করছেন। আপনি টিউটোরিয়াল থেকে অনেক কিছুই শিখছেন কিন্তু এটি ঠিক মাথার উপর দিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাই  বেশি। আমি বলছি আপানাকে কি করতে হবে।

প্রথমে একটি ছোট প্রজেক্ট বা স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট তৈরির চেষ্টা করুন, এটি আপনার নিজের একটি পোর্টফোলিও, একটি ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন, একটি অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন, বা যে কোন ধরনের সাইট বা অ্যাএপ্লিকেশন হতে পারে। কিছু সহজ প্রকল্প দিয়ে শুরু করতে হবে এবং তারপরে জটিল প্রকল্পগুলিতে অগ্রসর হতে হবে। প্রোগ্রামিং এ নতুন যারা তাদের প্রকল্পে কী অন্তর্ভুক্ত করা উচিত তা বুঝতে পারে না। ধরুন আপনি যদি একটি ইকমার্স সাইট তৈরি করবেন, তখন ছোট ছোট কিছু বৈশিষ্ট্যগুলি তৈরি করে শুরু করুন। আপনি সাইনআপ বা লগইন ফর্ম থেকে শুরু করতে পারেন, তারপর আপনি এর পরবর্তী বৈশিষ্ট্য যেমন- ন্যাভিগেশন বার এটা তৈরি করতে পারেন। তাই একবারে সবকিছু করার পরিবর্তে পুরো প্রকল্প নিয়ে ধাপে ধাপে এগুতে  পারেন এবং একটি বড় সমস্যাকে ছোট সমস্যা বা অংশে বিভক্ত করুন। এটি আপনার প্রকল্প জটিলতার উপর নির্ভর করবে, প্রাথমিকভাবে, আপনি অনেক ভুল করবেন এবং আপনি অনেক সমস্যার সম্মুখীন হবেন কিন্তু এভাবেই আপনি জটিল প্রকল্পগুলি তৈরি এবং পরিচালনা করতে শিখবেন। একটি প্রকল্প তৈরির সময় আপনাকে কিছু দরকারী টিপস অনুসরণ করতে হবে।

  • আপনার প্রকল্পে ব্যবহার করার জন্য কিছু ভাল সরঞ্জাম, ব্যবহার করতে হবে। ডেভেলপার টুলস ব্যবহার করতে শিখুন যেমন- ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন , টেমপ্লেট, প্যাকেজ বা লাইব্রেরি ইত্যাদির প্রয়োজন পরবে আপনার।
  • যখন আপনি কোথাও আটকে যাবেন বা একটি ত্রুটি খুঁজে পাবেন তখন ত্রুটি সাবধানে সমাধান করার চেষ্টা করুন। বেশিরভাগ নবাগত প্রোগ্রামাররা ত্রুটিগুলো এড়িয়ে যান তবে সমস্যাগুলি সমাধান করতে পারলে আপনি অনেক আনন্দিত বোধ করবেন। এছাড়াও, গুগল আপনার প্রজেক্ট তৈরির সময় যে সমস্যা বা ত্রুটির সম্মুখীন হবেন তা গুগল থেকে সমাধান করে নিতে পারবেন।বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, আপনি স্ট্যাকওভারফ্লোতে উত্তর পাবেন।
  • আপনার প্রকল্পে তারাহুরো এড়িয়ে চলুন। আপনি আপনার প্রকল্পে ধীর অগ্রগতির সাথে শেষ করবেন।
  • প্রথমে একটি কাজ শেষ করুন, তারপর এটি সঠিক করুন, এবং অবশেষে এটি দ্রুত গতিতে করার চেষ্টা  করুন।

৪) অন্বেষণ

আপনি যখন আপনার প্রকল্পটি শেষ করবেন, তাতেই ভাববেন না যে আপনার কাজটি শেষ। আরোও এক্সপ্লোর করার চেষ্টা করুন। কম্পিউটার সায়েন্স এর ক্ষেত্রে যতটা সম্ভব এক্সপ্লোর করার চেষ্টা করুন। কম্পিউটার সায়েন্স একটি বিশাল এবং সমৃদ্ধ ক্ষেত্র। আপনি বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে মেশিন লার্নিং, ক্লাউড কম্পিউটিং, সিস্টেম প্রোগ্রামিং, মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট, ব্লকচেইন, ভার্চুয়াল রিয়েলিটি, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, ইত্যাদি শিখে নিয়ে কাজ করতে পারেন। আপনার আগ্রহ অনুসারে, আপনি ইন্টারনেটে কিছু টিউটোরিয়াল খুঁজে বের করতে পারেন। সেখান থেকে শিখুন এবং এর উপর কিছু প্রকল্প বা কাজ তৈরির চেষ্টা করুন।

অন্যান্য ডেভেলপারদের বিভিন্ন পন্থা এবং পদ্ধতি সম্পর্কে ধারণা নেয়ার চেষ্টা করুন। GitHub বা StackOverflow এ কোড পড়ার অভ্যাস করুন। আপনি একটি একক সমস্যা সমাধানের একাধিক উপায় পাবেন। প্রোগ্রামিংয়ে সমস্যা সমাধানের জন্য সর্বোত্তম কাজ হলো অনুশীলন করা। কিছু অনলাইন প্রযুক্তি সম্প্রদায়ের সাথে যোগ দিন, ওপেন সোর্স প্রকল্পে অবদান রাখুন বা কিছু প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করুন। আপনি যদি ছাত্র হন তাহলে ACM- ICPC বা GSoC এ অংশগ্রহণ করুন। আপনি যত বেশি এক্সপ্লোর করবেন এবং অনুশীলন করবেন তত ভাল প্রোগ্রামার হয়ে উঠবেন।

প্রোগ্রামিং এর ব্যবহার

বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকে এবং প্রোগ্রামিং বিভিন্ন ফাংশনের জন্য ব্যবহার করা হয়।

সর্বাধিক জনপ্রিয় প্রোগ্রামিং ভাষাগুলি যা বস্তু ভিত্তিক হিসাবে পরিচিত। এই ভাষাগুলি গাণিতিক ফাংশনের উপর ভিত্তি করে, রৈখিক গাণিতিক যুক্তি ব্যবহার করে। এই ভাষা গুলো অ্যাপ্লিকেশন এবং বড় ডেটা বিশ্লেষণের জন্য কাজ করে থাকে। চলুন নীচে, আমরা বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় কোডিং ভাষা এবং তাদের ব্যবহার দেখে নিই।

প্রোগ্রামার এর বেতন

একজন প্রোগ্রামার এর বেতন নির্ভর করে সে কোন প্রোগ্রামিং ভাষা জানে, আমরা এই আর্টিকেলে জেনেছি অনেক ধরনের প্রোগ্রামিং ভাষা আছে, ভিন্ন ভিন্ন ভাষা অনুযায়ী ভিন্ন ভিন্ন বেতন হয়ে থাকে। যেমন একজন HTML, CSS ডেভেলপারের বেতন আর পাইথন (Python) ডেভেলপারের বেতন সমান নয়। যেমন আমেরিকাতে একজন পাইথন ডেভেলপারের বা প্রোগ্রামারের বছরে বেতন হচ্ছে প্রায় ১ লক্ষ ১৫ হাজার ডলার, যা বংলা টাকায় ৯৫ লক্ষের উপরে। মাসিক হিসাব করলে পাইথন ডেভেলপারের বেতন গিয়ে দাঁড়ায় ৯ হাজার ৫০০ ডলার, বাংলা টাকায় প্রায় ৮ লক্ষ টাকা।

আবার আমেরিকাতে HTML ডেভেলপারের বছরে বেতন প্রায় ৯৫ হাজার ডলার, বাংলা টাকায় হয় প্রায় ৮০ লক্ষ টাকা। মাসিক হিবাস করলে দাঁড়ায় ৭৮০০ ডলার, যা বাংলাদেশি টাকায় ৬ লক্ষ টাকার উপরে। এই বেতনটা হচ্ছে আমেরিকার বেতনের হিসাবে, স্থান অনুযায়ী বেতন কমবেশি হয়ে থাকে। নিচের চিত্রে পাইথন ডেভেলপারের বেতন ও HTML ডেভেলপারের বেতন দেখানো হলঃ

এইচটিএমএল ডেভেলপার এবং পাইথন ডেভেলপারের বেতনের পার্থক্য
এইচটিএমএল ডেভেলপার এবং পাইথন ডেভেলপারের বেতনের পার্থক্য

প্রোগ্রামিং ভাবনা

আমরা বেশ কয়েকটি উদাহরণ বেছে নিয়েছি যা বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ভাষাগুলির জন্য  ব্যবহার করা হয়। আপনি যদি কোডিং এবং প্রোগ্রামিংয়ে প্রবেশ করতে চান, তাহলে আপনি এই ভাষাগুলো থেকে যেকোনো একটি ভাষা বেছে নিতে পারেন।  অনেক  ফ্রি প্রোগ্রামিং কোর্স এবং এক্সপার্টট্র্যাক সাবস্ক্রিপশন রয়েছে অনলাইনে। যা আপনাকে শুরু করতে সাহায্য করতে পারে। আপনার নতুন দক্ষতাগুলি তাদের বিকাশ অব্যাহত রাখার জন্য আপনাকে অনুশীলন করতে হবে। মনে রাখবেন কোন কিছু মুখস্থ করতে যাবেন না বুজে বুজে কাজ করার চেষ্টা করুন। এতে হয়ত আপনার শিখতে অনেক সময় লাগবে কিন্তু আপনি অনেক দক্ষ প্রোগ্রামার হয়ে উঠবেন।

ভবিষ্যতের প্রোগ্রামিং ভাষা

প্রোগ্রামিং হল যা সমাজের সমস্ত কম্পিউটার, স্ফটওয়ার এবং বিভিন্ন ডাটাবেস চালানোর জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। বর্তমানে স্মার্টফোন থেকে ট্রাফিক লাইট পর্যন্ত সবকিছুই কম্পিউটার ভাষা দিয়ে প্রোগ্রাম করা হয়। প্রোগ্রামিং ভাষা শেখা এবং ব্যবহার করা সফ্টওয়্যার ডেভেলপারের কাজের একটি অপরিহার্য অংশ। বর্তমান প্রেক্ষাপট যদি চিন্তা করেন তাহলে বুঝবেন যে বর্তমান যুগ হচ্ছে ককম্পিউটারের যুগ। দিন দিন  প্রোগ্রাম ডেভেলপার দের চাহিদা বেরেই চলেছে। আপনি যদি যে কোন একটি ভাষার উপর খুব ভালো ভাবে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন তাহলে আপনার কাজের অভাব হবে নাহ। আপনি একটি স্মার্ট এবং সুন্দর ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন।

টেচ-রিপাবলিক এর রিপোর্ট অনুযায়ী ভবিষ্যতের প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজগুলো হলো, Go, Kotlin, Python, TypeScript, R, Scala, Swift, Rust, Ruby, and Haskell ইত্যাদি। এই প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজগুলিতে দক্ষতা বা উন্নত দক্ষতা একজন পেশাদারদের প্রযুক্তিগত দক্ষতা বাড়িয়ে তুলবে এবং চাকরি খুঁজতে গিয়ে আরও সুযোগ খুলে দেবে।

বিঃদ্রঃ  ই ব্লগের প্রত্যেকটা ব্লগ পোস্ট Sylhetism ব্লগের নিজস্ব ডিজিটাল সম্পদ। কেউ ব্লগের কোন পোস্ট কিংবা আংশিক অংশ ব্লগের কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কপি পেস্ট করে অন্য কোথাও প্রকাশ করলে ব্লগ কর্তৃপক্ষ ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা করার অধিকার রাখে। এবং অবশ্যই কপিরাইট ক্লাইম করে যে মাধ্যমে এই ব্লগের পোস্ট প্রকাশ করা হবে সেখানেও কমপ্লেইন করা হবে।

এই ব্লগের কোন লেখায় তথ্যগত কোন ভুল থাকলে আমাদের Contact পেইজে সরাসরি যোগাযোগ করুন, আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তথ্য যাচাই করে লেখা আপডেট করে দিবো।

এই ব্লগের কোন স্বাস্থ বিষয়ক পোস্টের পরামর্শ নিজের বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করার আগে অবশ্যই বিশেষজ্ঞদের মতামত নিবেন, আমরা স্বাস্থ বিষয়ে কোন বিশেষজ্ঞ না, আমাদের উদ্দেশ্য ও লক্ষ হচ্ছে সঠিক তথ্য পরিবেশন করা। সুতারাং কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার দায়ভার অবশ্যই আমরা নিবো না। ধন্যবাদ, ব্লগ কর্তৃপক্ষ।

Author

Leave a Comment

Your email address will not be published.

You cannot copy content of this page